১৬ বছর পর অনশন ভাঙছেন শর্মিলা!
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

১৬ বছর পর অনশন ভাঙছেন শর্মিলা!

৪৪ বছর বয়সের মধ্যে ১৬ বছর ধরে জেলই তার ঘর, জেলই তার হাসপাতাল। একের পর এক অজুহাতে সরকার পক্ষ গ্রেপ্তার করেছে তাকে। গ্রেপ্তারের পর থেকে বহু ঘাত-প্রতিঘাতের মধ্যেও অটুট ছিল তার অনশন। কিন্তু এবার অনশন ভাঙছেন ভারতের মণিপুরের ইরম চানু শর্মিলা।

মণিপুর থেকে সামরিক বাহিনীর বিশেষ ক্ষমতা আইন (আফস্পা) প্রত্যাহার করার দাবিতে ২০০০ সাল থেকে আমরণ অনশন চালিয়ে যাচ্ছেন শর্মিলা। শেষ পর্যন্ত এই অনশন ভাঙছেন তিনি।

শর্মিলার ভাই ইরম সিংহজিৎ জানান, আজ মঙ্গলবার সকালে অনশন ভাঙবেন শর্মিলা।

Sharmila1

মণিপুরের লৌহমানবী ইরম চানু শর্মিলা।

মণিপুরের এই ‘লৌহমানবী’ জানান, স্থানীয় আদালতে বিচার বিভাগীয় ম্যাজিস্ট্রেটের কাছ থেকে জামিন নেওয়ার পর ভক্ত-সমর্থকদের মাঝে গিয়ে অনশন ভাঙবো। তবে লড়াই শেষ হয়নি। এবার থেকে অনশন নয়, রাজনীতির ময়দানে নেমে আফস্পা প্রত্যাহার নিয়ে লড়াই চালিয়ে যাবো।

কিন্তু জামিন পাওয়ার পরও বাড়ি ফিরবেন না জানিয়েছে দিয়েছেন শর্মিলা।

তার ভাই ইরম সিংহজিৎ জানান, মণিপুর থেকে আফস্পা প্রত্যাহার না হওয়া পর্যন্ত মা শর্মিলার সঙ্গে দেখা করবেন না বলে জানিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, সামরিক বাহিনীর বিশেষ ক্ষমতা আইনে সন্ত্রাসবাদী সন্দেহে যেকোনো ভারতীয় নাগরিককে আটকের পাশাপাশি গুলি করারও অধিকার রয়েছে সৈন্যবাহিনীর। এই আইনে ২০০০ সালের ২ নভেম্বর মালোম বাসস্ট্যান্ডে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে ১০ জনের মৃত্যু হয়। নিহতদের পরিবারের পাশে দাঁড়াতে ও বিতর্কিত আফস্পা আইন বাতিল করার দাবিতে ওই বছরের ৪ নভেম্বর থেকে অনশন শুরু করেন শর্মিলা। তখন তার বয়স ছিলো ২৮ বছর।

অনশন শুরুর তিনদিন পর ভারতীয় দণ্ডবিধি আইনের ৩০ ধারায় আত্মহত্যা চেষ্টার অভিযোগে শর্মিলাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। তার স্বাস্থ্যের দ্রুত অবনতি ঘটার পরিপ্রেক্ষিতে জোরপূর্বক নাকে নল দিয়ে কৃত্রিম পদ্ধতিতে খাবার ব্যবস্থা করা হয়। ওই সময় থেকে ভারতীয় দণ্ডবিধি আইনের ৩০৯ ধারার অধীনে বার বার শর্মিলাকে আটক করা হয়েছে। এখনও পুলিশি হেফাজতে আছেন তিনি।

বর্তমানে অনশনের ১৬ বছর অতিক্রম করা শর্মিলাকে পৃথিবীর সবচেয়ে দীর্ঘ অনশনকারী নারী হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

অর্থসূচক/মিঠুন/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ