পিপিপির আওতায় ৪১৪ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনে চুক্তি
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

পিপিপির আওতায় ৪১৪ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনে চুক্তি

পিপিপির (পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপ) আওতায় দেশে প্রথমবারের মতো বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপিত হচ্ছে সিরাজগঞ্জে।এই বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে ৪১৪ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ পাওয়া যাবে।প্রকল্পটির প্রাথমিক ব্যয় ধরা হয়েছে ৪১ কোটি ২৫ লাখ ডলার বা ৩ হাজার ৩০০ কোটি টাকা।

আজ সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁয়ে এক অনুষ্ঠানে প্রকল্প বাস্তবায়নে চুক্তি সই হয়েছে। অনুষ্ঠানে গ্যাস সরবরাহ, তেল সরবরাহ, বিদ্যুৎ ক্রয় চুক্তি ও জমি লিজ সংক্রান্ত পৃথক চারটি চুক্তি সই হয়।

আজ সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁয়ে প্রকল্প বাস্তবায়নে চুক্তি সই হয়। ছবি মহুবার রহমান।

আজ সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁয়ে প্রকল্প বাস্তবায়নে চুক্তি সই হয়। ছবি মহুবার রহমান।

দেশিয় কোম্পানি নর্থওয়েস্ট পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি (এনডব্লিউপিজিসিএল) ও সিঙ্গাপুর ভিত্তিক কোম্পানি সেম্বকব যৌথভাবে এই ডুয়েল ফুয়েল বিদ্যুৎ কেন্দ্রটি স্থাপন করবে। সেম্বকবের হাতে থাকছে ৭০ শতাংশ আর রাষ্ট্রীয় কোম্পানি এনডব্লিউপিজিসিএল’র মালিকায় থাকছে ৩০ শতাংশ।

সিরাজগঞ্জে এনডব্লিউপিজিসিএল’র নিজস্ব জমিতে বিদ্যুত কেন্দ্রটি স্থাপিত হবে। যেখানে আগে থেকে ২২৫ মেগাওয়াটের একটি পাওয়ার প্লান্ট উৎপাদনে রয়েছে। ২২৫ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন অপর দু’টি পাওয়ার প্লান্ট নির্মাণের কাজও চলমান রয়েছে।

পিপিপির (পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপ) আওতায়  স্থাপন করা এই  বিদ্যুৎ কেন্দ্র ২০১৮ সালের জুন মাসে উৎপাদনে আসবে।

চুক্তি অনুযায়ী, প্রকল্পের গ্যাস সরবরাহ করবে পশ্চিমাঞ্চল গ্যাস কোম্পানি লিমিটেড (পিজিসিএল)। ডিজেল সরবরাহ করবে বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন (বিপিসি)। জমি লিজ দেবে বাংলাদেশ পাওয়ার ডেভলপমেন্ট বোর্ড (বিপিডিবি)। প্রকল্পের স্পন্সর হিসেবে থাকছে সেম্বক্রপ ইউটিলিটিজ পিটি লিমিটেড (এসসিইউ)।

আর প্রকল্পের জন্য মোট ব্যয়ের ৭৫ শতাংশ ঋণ হিসেবে দেবে ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স কোম্পানি (আইএফসি), কমনওয়েল্থ ডেভলপমেন্ট কর্পোরেশন (সিডিসি) এবং ক্যালিফোর্ড ক্যাপিটাল (সিসি)। এ তিনটি প্রতিষ্ঠানের প্রত্যেকে মোট ব্যয়ের ২৫ শতাংশ করে লোন দেবে।

অনুষ্ঠানে বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, আমরা ইতোমধ্যে ১০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের মাইলফল গড়েছি। শিগগির ১৫ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন উদযাপন করবো। আগামী বিদ্যুৎ ও জ্বালানি মেলার আগেই আমরা এ লক্ষ্য অর্জন করতে পারবে বলে আশা রাখি।

এনডব্লিউপিজিসিএল’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক এএনএম খোরশেদুল আলম জানান, সিরাজগঞ্জে এনডব্লিউপিজিসিএল পাওয়ার হাব হিসেবে আত্মপ্রকাশ করতে যাচ্ছে। এনডব্লিউপিজিসিএল সেখানে তিনটি বিদ্যুতকেন্দ্র নির্মাণ করছে। বিদ্যুতকেন্দ্রগুলো নির্ধারিত সময়ের অনেক আগেই উৎপাদনে এসেছে।

অর্থসূচক/মেহেদী/শাহীন

এই বিভাগের আরো সংবাদ