হিজাব পরায় চাকরি গেল মার্কিন তরুণীর
বুধবার, ২৭শে মে, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

হিজাব পরায় চাকরি গেল মার্কিন তরুণীর

যুক্তরাষ্ট্রে হিজাব খুলতে অস্বীকার করায় চাকরি হারিয়েছেন একজন মুসলিম তরুণী। তিনি একটি ডেন্টাল ক্লিনিকে চাকরি করতেন। ক্লিনিকের মালিক তাকে হিজাব ছেড়ে স্বাভাবিক পোশাকে অফিস করার নির্দেশ দিয়েছিলেন বলে অভিযোগ করেছেন চাকরি হারানো ওই তরুণী। খবর খালিজ টাইমস ও দ্যা ইন্ডিপেনডেনটের

নাজাফ খান নামের ওই তরুণী ভার্জিনিয়া রাজ্যের রাজধানীতে ফেয়ার ওকস ডেন্টাল কেয়ার নামের এক ক্লিনিকে চাকরি নিয়েছিলেন। কাজ শুরু করার তৃতীয় দিনের মাথায় তিনি চাকরিটি হারান।

যদিও প্রথম দিনের কাজ শেষে ক্লিনিকের মালিক তার দক্ষতা ও নিষ্ঠার যথেষ্ট প্রশংসা করেছিলেন বলে দাবি ওই তরুণীর। বিষয়টি তরুণীকে ই-মেইল করে জানানো হয়েছিল।

Najaf-Khan

মার্কিন তরুণী নাজাফ খান

দ্বিতীয় দিনেও সব ঠিকঠাক ছিল। গোল বাধে তৃতীয় দিনে এসে। এ দিন ক্লিনিকের মালিক নাজফকে তার হিজাব খুলে সাধারণ পোশাকে কাজ করার পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, তাকে (নাজাফ) হিজাব পরা দেখলে রুগীরা অস্বস্তি বোধ করতে পারে। তিনি আরও বলেন, ধর্মকে কর্মস্থলের বাইরে রেখে আসাই ভাল।

নাজাফ হিজাব খুলতে অস্বীকার করায় তার বস চূড়ান্ত হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, হিজাব পরে থাকলে তাকে চাকরিটি হারাতে হবে। শেষ পর্যন্ত তা-ই হয়েছে।

গণমাধ্যমকে নাজাফ বলেছেন, ক্লিনিকটিতে কাজের সুযোগ পেয়ে তিনি খুবই উচ্ছ্বসিত ছিলেন। তিনি একজন দন্তচিকিৎসক হতে চেয়েছিলেন।

নাজাফ বলেন, পুরো ঘটনায় আমি খুবই বিষ্মিত ও হতাশ। কারণ একদিন আগেই আমার কাজের তারিফ করে ই-মেইল করেছিলেন আমার বস। বলেছিলেন, আমি ক্লিনিকটিতে যোগ দেওয়ায় সেখানে নতুন প্রাণের সঞ্চার হয়েছে। অথচ সে-ই আমাকে এভাবে বিদায় নিতে হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আমি মনে মনে প্রস্তুত ছিলাম, হিজাব নিয়ে আমাকে হয়তো কিছু প্রশ্নের মুখোমুখী হতে হবে। সেগুলোর উত্তরও আমি ভেবে রেখেছিলাম। কিন্তু ইস্যুটিকে এত বড় করে কাজ করতে পারা না পারার সঙ্গে জড়িয়ে ফেলা হবে সেটি ভাবিনি।

নাজাফ জানিয়েছেন, তিনি নিয়মিত হিজাব পরেন না। মাঝে মধ্যে মনের খেয়ালে পরেন। ক্লিনিকে চাকরির ইন্টারভিউ দেওয়ার সময় তিনি হিজাব পরেন নি। আর চাকরির প্রথম দুদিনও তার পরনে হিজাব ছিল না। তৃতীয় দিনে কোনো কারণ ছাড়াই এটি পরেছিলেন তিনি।

এদিকে ওই ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে কাউন্সিল অন আমেরিকান-ইসলামিক রিলেশনস (সিএআইআর)। সংগঠনটি নাজাফকে তার চাকরিতে পুনর্বহাল এবং আর্থিক ও মানসিক ভোগান্তির জন্য ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবি জানিয়েছে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ