'পিস স্কুল পরিচালনায় ছিল স্বাধীনতা চেতনার বিরোধী শক্তি'
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

‘পিস স্কুল পরিচালনায় ছিল স্বাধীনতা চেতনার বিরোধী শক্তি’

বাংলাদেশের স্বাধীনতার চেতনার বিরোধী শক্তি পিস স্কুল পরিচালনার সঙ্গে জড়িত ছিল বলে মন্তব্য করেছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। আজ বুধবার ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এই মন্তব্য করেন তিনি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, যে আঙ্গিকে বা পরিবেশে পিস স্কুলে লেখাপড়া হচ্ছে, এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা যে মানসিকতায় বড় হচ্ছে- তা আগামী প্রজন্ম এবং দেশের জন্য মঙ্গলকর নয়। এসব বিদ্যালয়ের শিক্ষা পদ্ধতি জঙ্গি তৈরির ক্ষেত্রকে উৎসাহিত করছিল।

তিনি বলেন, আমাদের স্বাধীনতার চেতনার বিরোধী শক্তিই পিস স্কুলগুলো পরিচালনার দায়িত্বে ছিল। নিজেদের উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য ইসলামের ভুল ব্যাখ্যা দিয়ে শিক্ষর্থীদের বিপথগামী করতো তারা। জঙ্গিবাদ তৈরির এমন প্রতিষ্ঠান আমরা চালাতে দিতে পারি না।

Nurul Islam Nahid2

ইতিবাচক সামাজিক পরিবর্তনে তরুণদের অংশগ্রহণ বিষয়ে রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে আয়োজিত ইয়ং চেইঞ্জ মেকার্স কোয়ালিশনে শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ।

নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, গণমাধ্যমের বিভিন্ন প্রতিবেদন থেকে জানতে পেরেছি, পিস স্কুল ‘বিশেষ চেইনে’ গড়ে ওঠেছে। এছাড়া পুলিশ এবং বিভিন্ন এজেন্সির জানিয়েছে, পিস স্কুলগুলোর অধিকাংশই অনুমোদিত নয়। এর মধ্যে দুয়েকটা স্কুল শিক্ষাবোর্ডের অনুমোদন নিয়েছে- তবে কোনো না কোনো ব্যক্তির সুপারিশের মাধ্যমে এটা করা হয়েছে। আপাতত পিস স্কুল বন্ধ রেখেছি, আরও তদন্ত করে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বন্ধ করে দেওয়া পিস স্কুলের শিক্ষার্থীদের প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এসব শিক্ষার্থীর দায়িত্ব তারাই নেবেন যারা তাদের এই পথে নিয়েছেন। ছেলেমেয়েদের ভুল তথ্য দিয়ে কিংবা বিপথগামী করে কোনো প্রতিষ্ঠান টিকে থাকতে পারবে না।

তিনি আরও জানান, অনুমোদনহীন স্কুল, কলেজ, মাদ্রাসাসহ সব ধরনের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করা হবে। অন্যান্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের বিষয়েও তদন্ত করা হচ্ছে।

গতকাল মঙ্গলবার বাংলাদেশের সব পিস স্কুল বন্ধের নির্দেশ দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। লালমাটিয়ার বি-ব্লকের ৫/৭ বাড়ির পিস ইন্টারন্যাশনাল স্কুলের নিবন্ধন বাতিলেরও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এরপর গতকালই লালমাটিয়ার ওই স্কুলের সাময়িক নিবন্ধন বাতিলের আদেশ জারি করে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড।

গুলশান হামলাকারীদের মধ্যে দুজন জাকির নায়েকের বক্তব্যে প্ররোচিত হয়েছিলেন- এমন অভিযোগের পর গত ১১ জুলাই বাংলাদেশে পিস টিভির সম্প্রচার বন্ধের সরকারি সিদ্ধান্ত হয়। জাকির নায়েকের মতাদর্শ অনুসরণে ঢাকাসহ বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকায় ‘পিস’ শব্দ জুড়ে দিয়ে বিভিন্ন নামে অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিচালিত হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এর পরিমাণ ঠিক কত- সে বিষয়ে সরকারের কাছে সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য নেই।

তবে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড কর্তৃপক্ষ জানায়, লালমাটিয়ায় পিস ইন্টারন্যাশনাল স্কুল নামে একটি ইংরেজি মাধ্যম বিদ্যালয়ের সাময়িক নিবন্ধন দেওয়া হয়েছিল। বাকিগুলো অননুমোদিত।

অর্থসূচক/বিএন/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ