ট্যানারি মালিকরা ‘ছল-চাতুরি’ করছেন: প্রধানমন্ত্রী
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ট্যানারি মালিকরা ‘ছল-চাতুরি’ করছেন: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বেঁধে দেওয়া সময় অনুযায়ী রাজধানী ঢাকার হাজারীবাগ থেকে ট্যানারি সাভারে সরছে না। এখান থেকে যাতে না সরতে হয়, সে জন্য ট্যানারি মালিকরা গড়ি-মসি করছেন, ছল-চাতুরির আশ্রয় নিচ্ছেন।

কোনো ধরনের কারণ ছাড়াই, ট্যানারি সরাতে ব্যবসায়ীদের এই গড়ি-মসির সমালোচনা করে তিনি দ্রুত সাভারে যাওয়ার আহ্বান জানান।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা- ছবি সংগৃহীত

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা- ছবি সংগৃহীত

রোববার কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে ‘বিশ্ব পরিবেশ দিবস ও পরিবেশ মেলা ২০১৬’ এবং জাতীয় বৃক্ষরোপণ অভিযান ও বৃক্ষমেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী একথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, সাভারের হরিণধরা এলাকায় ট্যানারি শিল্প তৈরি করে দিয়েছি। সেখানে স্থানান্তর করার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। কিন্তু ব্যবসায়ীরা কেন অযথা দেরি করছেন- তার কারণ খুঁজে পাচ্ছি না। ব্যবসায়ীদের এটা করা ঠিক হচ্ছে না।

দফায় দফায় সময় দিয়েও ঢাকার ট্যানারিগুলোকে সাভার চামড়া শিল্পনগরীতে পাঠাতে না পেরে শেষ পর্যন্ত গত ২৯ ফেব্রুয়ারি শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু ট্যানারি স্থানান্তরে ৩১ মার্চ পর্যন্ত সময় দিয়েছিলেন মালিকদের। ওই সময়ের পরে হাজারীবাগে কাঁচা চামড়ার প্রবেশ ঠেকাতে বসানো হয় পুলিশ প্রহরা।

পরে হাজারীবাগে থাকা ১৫৪ ট্যানারি সেখান থেকে না সরানো পর্যন্ত পরিবেশ দূষণের ক্ষতিপূরণ হিসেবে প্রতিদিন ৫০ হাজার টাকা করে রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা দিতে গত ১৬ জুন নির্দেশ দেয় হাই কোর্ট। তবে ব্যবসায়ীদের এক আবেদনে হাই কোর্টের আদেশ ১৭ জুলাই পর্যন্ত স্থগিত করে চেম্বার আদালত।

প্রধানমন্ত্রী বলেন,  “তারা (মালিকরা) দ্রুত ট্যানারি স্থানান্তর করলে এ জায়গাটা (হাজারীবাগ) পরিবেশ আবার ফিরে পাবে।”

অনুষ্ঠানে তিনি বন্যাদুর্গত মানুষের প্রতি সাহায্যের হাত বাড়াতে সবার প্রতি আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে ‘জাতীয় পরিবেশ পদক’, ‘বঙ্গবন্ধু অ্যাওয়ার্ড ফর ওয়াইল্ডলাইফ কনজারভেশন’ এবং বৃক্ষরোপণে ‘প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কার’ তুলে দেন বিজয়ীদের হাতে। বিতরণ করা হয় সামাজিক বনায়নের লভ্যাংশের চেক।

এই বিভাগের আরো সংবাদ