খুলনা সিটি কর্পোরেশনের বাজেট ঘোষণা
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

খুলনা সিটি কর্পোরেশনের বাজেট ঘোষণা

খুলনা সিটি কর্পোরেশনের (কেসিসি) ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ৪৬৭ কোটি ৮৪ লাখ ৬৬ হাজার টাকার বাজেট ঘোষণা করা হয়েছে। কেসিসির ভারপ্রাপ্ত মেয়র মো. আনিছুর রহমান বিশ্বাস আজ সোমবার দুপুরে নগর ভবনের শহীদ আলতাফ মিলনায়তনে জনাকীর্ণ সাংবাদিক সম্মেলনে এ বাজেট ঘোষণা করেন।

প্রস্তাবিত বাজেটে রাজস্ব ব্যয় ধরা হয়েছে ১৩০ কোটি ১০ লাখ ৬৬ হাজার টাকা এবং উন্নয়ন খাতে (সরকারি অনুদান ও বৈদেশিক সাহায্যপুষ্ট) ব্যয় ধরা হয়েছে ৩শ ৩৭ কোটি ৭৪ লাখ টাকা। একই সাথে ভারপ্রাপ্ত মেয়র ২০১৫-১৬ অর্থবছরের ৩০২ কোটি ৭৮ লাখ ৭ হাজার টাকার সংশোধিত বাজেট ঘোষণা করেন; যা প্রস্তাবিত বাজেটের শতকরা ৭১ ভাগ এবং কেসিসি’র জন্য এটি একটি বড় অর্জন।

খুলনা সিটি কর্পোরেশনের (কেসিসি) ২০১৬-১৭ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণা করছেন ভারপ্রাপ্ত মেয়র মো. আনিছুর রহমান বিশ্বাস।

খুলনা সিটি কর্পোরেশনের (কেসিসি) ২০১৬-১৭ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণা করছেন ভারপ্রাপ্ত মেয়র মো. আনিছুর রহমান বিশ্বাস।

অর্থ ও সংস্থাপনের স্থায়ী কমিটির সভাপতি কাউন্সিলর শেখ মো. গাউসুল আজম-এর সভাপতিত্বে বাজেট ঘোষণা অনুষ্ঠানে খুলনা পৌরসভার সাবেক চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেট মো. এনায়েত আলী, খুলনা মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশনের সাবেক প্রশাসক সিরাজুল ইসলাম, খুলনা সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র কাজি আমিনুল হক, কেসিসি’র প্যানেল মেয়র শেখ হাফিজুর রহমান হাফিজ ও রুমা খাতুনসহ কাউন্সিলর, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর, নগরীর বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

ভারপ্রাপ্ত মেয়র ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের বৈশিষ্ট্য বর্ণনা করে বলেন, এ বাজেটে নতুন কোনো করারোপের প্রস্তাব করা হয়নি। বকেয়া পৌরকর আদায়, নবনির্মিত স্থাপনার উপর হালনাগাদ করধার্য্য এবং নিজস্ব আয়ের উৎস সম্প্রসারণ করা হবে।

এটি একটি উন্নয়নমুখী বাজেট উল্লেখ করে তিনি বলেন, এ অর্থবছরে ব্যাপক ভৌত-অবকাঠামো, ড্রেনেজ ব্যবস্থা ও সড়ক উন্নয়নের কাজ বাস্তবায়ন করা হবে। অনগ্রসর জনগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন, পার্ক, উপাসনালয় এবং কেসিসি’র রাজস্ব আয়ের খাতসমূহ আধুনিক প্রযুক্তির আওতায় আনাসহ পরিবেশ উন্নয়ন ও নিরাপত্তার ওপর গুরুত্বারোপ করা হচ্ছে। নগরীর গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে সিসি ক্যামেরা স্থাপন, রাতে বর্জ্য অপসারণ, রোড সুইপিং মেশিন, সারা বছর ড্রেনের পেড়িমাটি উত্তোলনের জন্য মিনি এস্কেভেটর, ওয়াটার পাম্প ও জেনারেটর, ৪শ ভ্যান, ১৫টি ডি-মাউন্টেনেবল কনটেইনার, ওয়াকিটকি ও হাইমাস্ট লাইট ক্রয় করা হবে। এছাড়া জ্বালানী ব্যয় সাশ্রয়ের জন্য রাজবাঁধ ট্রেনসিং গ্রাউন্ডে ওয়েব্রীজ নির্মাণ, আউট সোর্সিং-এর মাধ্যমে পরিচ্ছন্নতা কর্মী নিয়োগ এবং স্বাধীনতা যুদ্ধে অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নিজ বসতবাড়ীর হোল্ডিং ট্যাক্স পূর্বের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সম্পূর্ণ মওকুফ করার সুযোগ রাখা হয়েছে।

বাজেট বর্ণনায় ভারপ্রাপ্ত মেয়র বলেন, ২০১৬-১৭ অর্থ বছরে জাতীয় এডিপিতে ৫০ কোটি টাকার একটি অনুমোদিত প্রকল্প রয়েছে। বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচীতে থোক বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৪০ কোটি ১৪ লাখ টাকা। এছাড়া কেসিসি’র নিজস্ব আয় অপ্রতুল হওয়া সত্বেও অফিস পরিচালনার দৈনন্দিন ব্যয় নির্বাহ করে রাজস্ব তহবিল হতে বিভিন্ন উন্নয়ন খাতে ৩৯ কোটি ৯৫ লাখ ৫৯ হাজার টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে।

ভারপ্রাপ্ত মেয়র বলেন, খুলনাকে আধুনিক সুযোগ সুবিধা সংবলিত একটি নগরী হিসেবে গড়ে তোলার জন্য আমরা সরকারের পাশাপাশি এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (এডিবি), জার্মান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক, জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থাসহ (এফএও)বিভিন্ন দাতা সংস্থার সাহায্য কামনা করেছি। তারা আমাদের প্রতি সহযোগিতার হাত প্রসারিত করায় দাতা সংস্থার অর্থায়নে ১০টি অনুমোদিত প্রকল্পে ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ২শ ৪৭ কোটি ৬০ লাখ টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। ন্যাশনাল আরবান পোভার্টি রিডাকশন প্রোগ্রাম (এনইউপিআরপি), বাংলাদেশ মিউনিসিপ্যাল ডেভেলপমেন্ট ফান্ড প্রকল্প, আরবান পাবলিক অ্যান্ড এনভায়রনমেন্টাল হেলথ সেক্টর ডেভেলপমেন্ট প্রকল্প, এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক ও জার্মান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (কেএফডব্লিউ) সাহায্যপুষ্ট নগর অঞ্চল উন্নয়ন প্রকল্প, নিরাপদ পথ খাবার উন্নয়ন কর্মসূচী, বাংলাদেশ দক্ষিণ অঞ্চল শহর কেন্দ্রের দারিদ্র বান্ধব ও বাজার ভিত্তিক মানব বর্জ্য ব্যবস্থাপনা প্রকল্প, আরবান ম্যানেজমেন্ট অব ইন্টারনাল মাইগ্রেশন ডিউ টু ক্লাইমেন্ট চেঞ্জ ইন খুলনা সিটি কর্পোরেশন, রিজিলিয়েন্ট ইনক্লুসিভ আরবান ডেভেলপমেন্ট প্রকল্প, সোলার স্ট্রীট লাইট প্রকল্প ও খালিশপুর কলেজিয়েট গার্লস স্কুল নির্মাণ প্রকল্পগুলোর মধ্যে অন্যতম।

এই বিভাগের আরো সংবাদ