সাপ্লাই অর্ডার প্রথায় পাইকারি মূল্যে পণ্য পাবে ভোক্তা
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

সাপ্লাই অর্ডার প্রথায় পাইকারি মূল্যে পণ্য পাবে ভোক্তা

ডেলিভারি অর্ডার (ডিও) প্রথার কারণে কয়েক দফা হাত বদলে পণ্যের মূল্যবৃদ্ধি হয়। সাধারণ ভোক্তাদের কথা চিন্তা করে ডিও প্রথা বাতিল করে সাপ্লাই অর্ডার (এসও) প্রথা চালুর সিদ্ধান্ত নিয়েছিল বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। ২০১১ সালের জুন থেকে পণ্য বিপণনের ক্ষেত্রে ডিও ব্যবস্থা বিলুপ্ত হয়ে এসও প্রথা চালুর কথা ছিল। কিন্তু নির্ধারিত সময়ের ৫ বছর পরও কার্যকর হয়নি এসও প্রথা।

ব্যবসায়ীরা জানান, ডিও পদ্ধতিতে পণ্য কয়েক দফা হাত বদল হওয়ায় এর দাম অনেক বেড়ে যায়। অন্যদিকে পণ্য গুদামে পড়ে থাকে। ভোক্তার সুবিধার কথা বিবেচনায় এসও প্রথা চালুর উদ্যোগ নিয়েছিল বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। নির্দিষ্ট সময়ে এসও প্রথা কার্যকর হলে পাইকারি দামে পণ্য কিনতে পারতেন সাধারণ ভোক্তারা।

ছবি সংগৃহীত

ছবি সংগৃহীত

অত্যাবশ্যকীয় পণ্য অধ্যাদেশ-১৯৫৬ এর আওতায় নয়া ব্যবস্থা প্রবর্তনের কথা ছিল। বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এ বিষয়ে ‘অত্যাবশ্যকীয় পণ্য বিপণন ও পরিবেশক নিয়োগ আদেশ, ২০১১’ জারি করে। এর আওতায়, প্রথম পর্যায়ে ভোজ্যতেল ও চিনি বিপণনে এসও প্রথা চালুর কর্মসূচি নিয়েছিল বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। পরবর্তীতে নিত্য প্রয়োজনীয় অন্যান্য জিনিস বিপণনে এসও প্রথা চালুর কথা বলা হয়েছিল।

বিদ্যমান বিপণন ব্যবস্থায় অর্থাৎ ডিও প্রথা অনুযায়ী খুচরা দোকানিদের কাছে পরিবেশকরা পণ্য সরবরাহ করেন। এতে প্রতিবার হাত বদলে পণ্যমূল্য বেড়ে যায়। এসও প্রথায় কোনো অবস্থাতেই পণ্য হস্তান্তরযোগ্য নয়; অর্ডারের ১৫ দিনের মধ্যে খুচরা দোকানদারের কাছে পণ্য হস্তান্তর করতে হবে। এসও এর মেয়াদের মধ্যে পণ্য সরবরাহ না হলে অর্ডার বাতিল হবে।

অত্যাবশ্যকীয় পণ্য বিপণন ও পরিবেশক নিয়োগ আদেশ, ২০১১ অনুযায়ী, এসও প্রথায় পরিমাপের ক্ষেত্রে মেট্রিক পদ্ধতি অনুসরণের কথা বলা হয়েছে। তরল পণ্য পরিমাপের ক্ষেত্রে লিটার ছাড়া অন্য কোনো একক গ্রহণযোগ্য হবে না। পণ্যের মোড়কে পরিমাণ, উৎপাদনের তারিখ, মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ এবং সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য (এমঅরপি) সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ করতে হবে।

এতে আরও বলা হয়েছে, পণ্যের ন্যায়সংগত সর্বোচ্চ মিলগেট মূল্য, বিতরণ মূল্য ও খুচরা বিক্রয় মূল্য নির্ধারণ করবে উৎপাদক, পরিশোধক বা আমদানিকারক। প্রতিক্ষেত্রেই অভিন্ন মূল্য নির্ধারণ পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে।

ভোগ্যপণ্যের আমদানিকারক আবুল বশর বলেন, উৎপাদক, পরিশোধক বা আমদানিকারক ও ব্যবসায়ী সমিতির সহযোগিতায় প্রতিটি পণ্যের মূল্য নির্ধারণ ও মেয়াদ পদ্ধতি স্থির করা হবে। কোনো অত্যাবশ্যকীয় পণ্যের মূল্য হ্রাস, বৃদ্ধি বা পুনর্নির্ধারণ করতে হলে সংশ্লিষ্ট পণ্যের ব্যবসায়ী সমিতির মাধ্যমে তা কার্যকর করার ১৫ দিন আগে তদারক সেল, ডিসি এবং ইউএনওকে জানাতে হবে।

দেশের বৃহত্তম পাইকারি বাজার খাতুনগঞ্জের ব্যবসায়ী আলম খোরশেদ জানান, বর্তমানে ডিও প্রথায় চিনি ও ভোজ্যতেল বাজারজাত করে শিল্প-কারখানাগুলো। এই দুই পণ্যের পরিমাপের একক হিসেবে মণের উল্লেক করা হয়। দেশের পাইকারি বাজারগুলোতে ডিও প্রথায় প্রতিদিন কয়েক শত কোটি টাকার তেল, চিনি এবং অন্যান্য পণ্য বিক্রি হয়। হাত বদলের কারণে ভোক্রা পর্যায়ে এসব পণ্যের দাম দ্বিগুণ হয়ে যায়।

খাতুনগঞ্জ ট্রেড অ্যান্ড ইন্ড্রাস্টির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ ছগীর আহমদ বলেন, দ্রব্যমূল্য স্বাভাবিক রাখার জন্য শিল্প-কারখানায় উৎপাদিত পণ্যের বিপণনে এসও প্রথা চালু জরুরি। এর পাশাপাশি চিনিসহ বিভিন্ন নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য বেসরকারি খাতে আমদানির ব্যবস্থা করা উচিত। বেসরকারি খাতে চিনি আমদানি হলে বাজার অনেকটা স্থিতিশীল থাকে। তবে উচ্চ শুল্কহারের কারণে বেসরকারি খাতে চিনি আমদানি বন্ধ রয়েছে।

এসও প্রথায় পণ্য বিক্রি হলে চিনিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের বাজার অস্থির হতো না বলেও জানান তিনি।

চিটাগাং চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, দ্রব্যমূল্য স্বাভাবিক রাখতে শিল্প-কারখানায় উৎপাদিত পণ্যের বিপণনে এসও প্রথা চালুর সিদ্ধান্ত কার্যকর করা প্রয়োজন। সরকারের ওই সিদ্ধান্ত কার্যকর হলে ভোক্তা সাধারণ অবশ্যই সুফল পেত।

অর্থসূচক/সুমন/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ