বিয়ের ফাঁদে ফেলে ৫০ নারীকে ধর্ষণ, টাকা লুট!
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

বিয়ের ফাঁদে ফেলে ৫০ নারীকে ধর্ষণ, টাকা লুট!

অনলাইনে বিয়ে বিষয়ক সাইটের মাধ্যমে ৫০ নারীকে ফাঁদে ফেলেছেন ভারতের এক যুবক। বিয়ের ব্যাপারে আলোচনা করার কথা বলে কয়েকজন পাত্রীকে ডেকে এনে ধর্ষণ করেছেন তিনি। পাত্রীর কাছে থাকা টাকাও ছিনতাই করতেন ওই যুবক। এমন সব গুরুতর অভিযোগে অভিযুক্ত ধর্ষক ও প্রতারক রাহুল পাতিলকে সোমবার গ্রেপ্তার করেছে ভারতের পুলিশ।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবরে আজ এ তথ্য জানানো হয়। খবরে বলা হয়, গোপনীয় সূত্রে খবর পাওয়ার পর অভিযান চালিয়ে ৩২ বছর বয়সী ওই যুবককে আটক করা হয়েছে। এ দিনও সে ২৬ বছরের এক ইঞ্জিনিয়ার পাত্রীকে ডেকে এনেছিল। তবে পাত্রীর কোনো ক্ষতি করার আগেই পুলিশের জালে আটকা পড়ল ওই প্রতারক।

অভিযুক্ত রুহুল আমিন- ছবি সংগৃহীত

অভিযুক্ত রাহুল পাতিল- ছবি সংগৃহীত

৩০ বছর বয়সী এক হাসপাতাল-সেবিকা তার উপর যৌন নিপীড়ন চালানোর অভিযোগে রাহুলের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগে তিনি দাবি করেন, বিয়ের প্রস্তাব দেওয়ার পর গতমাসে এক বাসায় ডেকে এনে তাকে ‘ধর্ষণ’ করেছে রাহুল।

ওই সেবিকা ছাড়াও আরও ২৫ জন নারী রাহুলের বিরুদ্ধে মুম্বাইয়ের বিভিন্ন থানায় একই অভিযোগ দায়ের করেছেন।

জানা গেছে, বিয়ে বিষয়ক ওই সাইটে প্রোফাইল দেখার পর ওই নার্সের সাথে দেখা করেন রাহুল। পাত্রীর বাবা মায়ের সাথেও কথা বলেন। এসময় তিনি তাদেরকে বলেন, আইন বিষয়ে ডিগ্রি নেওয়ার পর তিনি একটি শীর্ষস্থানীয় ফার্মে কাজ করছেন। বেতন পান ২২ লাখ রুপি বা প্রায় ২৫ লাখ টাকা।

মেয়ের বাবা-মায়ের বিশ্বাস অর্জন করার পর রাহুল মেয়েটির সাথে দেখা করতে চান। অভিযোগে বলা হয়, মুম্বাইয়ের একটি ভবনে ডেকে আনার পর তার সাথে ‘অন্তরঙ্গ সময়’ কাটান। মেয়েটিকে শিগগিরই বিয়ে করবেন বলে আশ্বাস দেন রাহুল। এরপর মেয়েটিকে ভুল বুঝিয়ে তার এটিএম কার্ড নিয়ে দেড় লাখ রুপি তুলে নেন। এসময়ও রাহুল ওই টাকা ফেরত দিয়ে দেবেন বলে জানিয়েছিলেন। এরপর আর রাহুলের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। তার ফোন বন্ধ পাওয়ায় সন্দেহ জাগে মেয়েটির মনে। তখনই পুলিশের কাছে অভিযোগ দায়ের করেন তিনি।

মুম্বাই পুলিশের ডেপুটি কমিশনার বিরেন্দ্র মিশ্রা ওই ঠকবাজকে গ্রেপ্তার করতে পুলিশের বিশেষ একটি দল গঠন করেন। সেই দলের কাছেই ধরা খেলেন রাহুল।

রাহুল মূলত তালাক হওয়া নারী এবং সহজ-সরল মেয়েদের ফাঁদে ফেলত। তিনি এর আগে গতবছর ডিসেম্বরে এক শুল্ক কর্মকর্তার মেয়েকে প্রতারণার দায়ে গ্রেপ্তার হয়েছিলেন। তবে কীভাবে ছাড়া পেয়েছিলেন তা জানা যায়নি।

অর্থসূচক/রাশিদ/শাহীন

এই বিভাগের আরো সংবাদ