৮০ বছরের লোকটি এসেছিলেন বাংলাদেশকে ভালোবেসে
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

৮০ বছরের লোকটি এসেছিলেন বাংলাদেশকে ভালোবেসে

গত শুক্রবার রাতে গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারি রেস্টুরেন্টে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত হন ১৭ বিদেশি নাগরিক। নিহতদের মধ্যে নয়জন ইতালির, সাতজন জাপানের ও একজন ভারতের নাগরিক।

খবরে প্রকাশ নিহত সাত জাপনির ৬ জনই বাংলাদেশে এসেছিলেন মেট্রোরেল প্রকল্পের কাজ তদারকিতে। তারা সকলেই প্রকৌশলী। এদের মধ্যে হিরোশি তানাকা ছিলেন সবার সিনিয়র।tanaka

৮০ বছরের তানাকা কাজ করতেন অরিয়েন্টাল কনসালটেন্টস গ্লোবালের হয়ে। দীর্ঘ কর্মজীবনে পুরো এশিয়ার রেল যোগাযোগ উন্নয়নে রেখেছেন অসামান্য অবদান তিনি।

দেশটির এই প্রবীণ প্রকৌশলীর অনাহুত মৃত্যুতে শোক কাতর পুরো জাপান। দেশটির দ্যা আশাই সিমবান নামের একটি পত্রিকা তাকে নিয়ে করেছে একটি বিশেষ সংবাদ গল্প।

সেখানেই ওঠে আছে তানাকার ব্যক্তিগত জীবনের তথ্য। উঠে আসে এই বয়সেও বাংলাদেশে আসার কারণ।

পত্রিকাটির ভাষ্যমতে, তানাকা বাংলাদেশে এসেছিলেন দেশের রেল যোগাযোগের উন্নয়ন ঘটাতে। ৮০ বছর বয়সে কেবল টাকার জন্যই ঢাকায় আসেননি তিনি।

পত্রিকাটি তানাকার ভাই তাকাশি তানাকার বরাত দিয়ে জানায়, গত মে মাসের মাঝামঝি তাদের সাত ভাই একত্রিত হন হিরোশি তানাকার ৮০তম জন্মদিন পালনের উদ্দেশ্য। পারিপারিক ওই মিলনমেলায় তানাকা উপস্থিত সকলকে জানান, তিনি খুব শিগগিরই বাংলাদেশে যাচ্ছেন।

তখন পরিবারের সদস্যরা এই বয়সে বিদেশ ভ্রমণের বিষয়ে আপত্তি করলে তানাকা জানান, তিনি বাংলাদেশকে ভালোবেসে দেশটির জন্য কিছু করতে চান। তিনি বাংলাদেশের মানুষের জন্য কিছু করতে চান।

পত্রিকাটি আকিফুইয়ু নাকামুরা নামের তানাকার এক বন্ধুর বরাত দিয়ে বলছেম তিনি যখন দেশ ত্যাগ করেন তার স্বজনের ভেবেছিলেন অন্যান্যবারের মতোই তানাকা আবার ফিরে আসবেন তাদের মাঝে।

নাকামুরার ভাষ্য মতে, তার ৮০ বছরের বন্ধুটি খুব ধার্মিক ছিলেন। বাংলাদেশে আসার আগেও টাইট শিডিউলের মধ্যে টোকিওতে নব্য খ্রীস্টানদের উপদেশ-পরামর্শ দিতে একটি সেমিনারে যোগ দেন।

আসছে গরমে সেখানে বেশ কিছু ধর্মীয় অনুষ্ঠানেও তার যোগ দেওয়ার কথা ছিল বলে জানান নাকামুরা।

কিন্তু তানাকা দেশে ফিরতে পারেন নি। আসছে গরমে ধর্ম বিষয়ে লেকচার দিবেন না।  জাপানে ফিরেছে ৮০ বছরের এক বৃদ্ধের লাশ। যে লাশ জাপানকে দিয়েছে শোক আর বাংলাদেশকে ডুবিয়েছে লজ্জায়।

উল্লেখ, শুক্রবারে ওই হামলায় তানাকার সাথে জাপানের আরও ছয় নাগরিক কাতাহিরা অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্টারন্যাশনালের কোইও ওগাসাওয়ারা, অরিয়েন্টাল কনসালটেন্টস গ্লোবালের নোবুহিরো কুরোসাকি ও হিদেকি হাশিমতো, আলমেক কর্পোরেশনের ওকামুরা মাকোতো, ইউকো সাকাই ও শিমোদায়রা রুই নির্মম হত্যাকাল্ডের শিকার হন।

টি

 

এই বিভাগের আরো সংবাদ