ইসলামী ব্যাংকের বিভিন্ন কমিটি পুনর্গঠন
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » কর্পোরেট সংবাদ

ইসলামী ব্যাংকের বিভিন্ন কমিটি পুনর্গঠন

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের ভাইস-চেয়ারম্যান হিসেবে ইউসিফ আবদুল্লাহ আল-রাজী পুনঃনির্বাচিত হয়েছেন। সেইসঙ্গে নতুন ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন এম. আযীযুল হক। এছাড়া প্রফেসর সৈয়দ আহসানুল আলমকে এক্সিকিউটিভ কমিটির চেয়ারম্যান, হেলাল আহমদ চৌধুরীকে অডিট কমিটির চেয়ারম্যান এবং মো. আবদুল মাবুদ, পিপিএমকে রিস্ক ম্যানেজমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান করা হয়েছে।

M. Azizul Huq & Syed Ahsanul Alam

ইসলামী ব্যাংকের নতুন ভাইস-চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন এম. আযীযুল হক এবং এক্সিকিউটিভ কমিটির চেয়ারম্যান প্রফেসর সৈয়দ আহসানুল আলম।

এম. আযীযুল হক

এম. আযীযুল হক ইসলামী ব্যাংকের ভাইস-চেয়ারম্যান এবং স্বতন্ত্র পরিচালক। ব্যাংকের প্রথম এক্সিকিউটিভ প্রেসিডেন্ট (প্রধান নির্বাহী) তিনি। এর আগে সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড ও ইসলামিক ফাইন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট লিমিটেডের প্রথম ম্যানেজিং ডাইরেক্টর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন এম. আযীযুল হক। বর্তমানে তিনি সেন্ট্রাল শরী’আহ বোর্ড ফর ইসলামিক ব্যাংকস ইন বাংলাদেশের এক্সিকিউটিভ কমিটির চেয়ারম্যান এবং সিটি ব্যাংক, পূবালী ব্যাংক ও  ব্যাংক এশিয়াসহ বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানে ইসলামিক ব্যাংকিং কনসালট্যান্ট হিসেবে কাজ করছেন।

সোনালী ব্যাংক স্টাফ কলেজের প্রিন্সিপাল এবং ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান ও হাবিব ব্যাংকে বিভিন্ন পদমর্যাদায় দায়িত্ব পালন করেছেন এম. আযীযুল হক। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে মাস্টার্স ডিগ্রি লাভের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও মালয়েশিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় ও সেন্ট্রাল ইউনিভাসিটি ইউকেসহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে ইসলামী ব্যাংকিং ও অর্থনীতি বিষয়ে খণ্ডকালীন শিক্ষকতা করেছেন তিনি।

প্রফেসর সৈয়দ আহসানুল আলম

ইসলামী ব্যাংকের এক্সিকিউটিভ কমিটির চেয়ারম্যান ও স্বতন্ত্র পরিচালক সৈয়দ আহসানুল আলম। ব্যাংকিং ও বিনিয়োগ বিষয়ে নেতৃত্বস্থানীয় বিশেষজ্ঞ তিনি। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের সিনিয়র অধ্যাপক এবং একই বিভাগে চেয়ারম্যানের দায়িত্বেও ছিলেন তিনি।

সাধারণ বীমা কর্পোরেশন এবং রূপালী ব্যাংক লিমিটেডের পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন প্রফেসর সৈয়দ আহসানুল আলম। বর্তমানে ব্যুরো অব ইনভেস্টমেন্ট অ্যান্ড ইকনমিক রিসার্চের চেয়ারম্যান এবং চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

ডিফেন্স সার্ভিসেস কমান্ড অ্যান্ড স্টাফ কলেজের সিভিল স্পন্সর, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম বিশ্ববিদ্যালয়ের সদস্যসহ বিভিন্ন সামাজিক ও পেশাজীবী সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন আহসানুল আলম। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও মালয়েশিয়াসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ব্যবসায় প্রশাসনও আইটি বিষয়ে প্রশিক্ষণ লাভ করেন তিনি। রাজশাহী ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এমফিল ও মাস্টার্স শেষে ব্যবসায় প্রশাসন বিষয়ে দীর্ঘ সময় বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রতিষ্ঠানে অধ্যাপনা করছেন তিনি।

Helal Ahmed Chowdhury & Abdul Mabud

ইসলামী ব্যাংকের অডিট কমিটির চেয়ারম্যান হেলাল আহমদ চৌধুরী এবং রিস্ক ম্যানেজমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান মো. আবদুল মাবুদ, পিপিএম।

হেলাল আহমদ চৌধুরী

ইসলামী ব্যাংকের অডিট কমিটির চেয়ারম্যান এবং স্বতন্ত্র পরিচালক হেলাল আহমদ চৌধুরী। ২০০৬-২০১৪ সাল পর্যন্ত দীর্ঘ ৯ বছর পূবালী ব্যাংকের ম্যানেজিং ডাইরেক্টর ও প্রধান নির্বাহী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। মাস্টার্স ডিগ্রী লাভের পর ১৯৭৭ সালে সুপিরিয়র সার্ভিস পরীক্ষার মাধ্যমে প্রথম শ্রেণির কর্মকর্তা হিসেবে পূবালী ব্যাংকে যোগদান করে বিভিন্ন পদমর্যাদায় গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে একই ব্যাংকে প্রধান নির্বাহী হওয়ার বিরল রেকর্ড অর্জন করেন তিনি।

হেলাল আহমদ চৌধুরীর নেতৃত্বে একটি রোল মডেল ব্যাংকে পরিণত হয়েছে পূবালী ব্যাংক। প্রায় চার দশকের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন সফল ব্যাংকার হেলাল আহমদ চৌধুরী বর্তমানে বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্টের সুপারনিউমারারি প্রফেসর হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড ও ক্যামব্রিজ এবং যুক্তরাষ্ট্রের ইউসি বার্কলে ও কলম্বিয়া ইউনিভার্সিটিসহ দেশে-বিদেশে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রতিষ্ঠানে স্কল্পমেয়াদী ও দীর্ঘমেয়াদী কোর্স ও প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন তিনি। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ট্রেড ডেলিগেশন হিসেবে যোগদান করেন তিনি। এবিবির ভাইস চেয়ারম্যান ছিলেন হেলাল আহমদ।

মো. আবদুল মাবুদ, পিপিএম

ইসলামী ব্যাংকের রিস্ক ম্যানেজমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান ও স্বতন্ত্র পরিচালক মো. আবদুল মাবুদ। বাংলাদেশ পুলিশের অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক  এবং বহিরাগমন ও পাসপোর্ট ডিপার্টমেন্টের মহাপরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয় অংশগ্রহণ করেন আবদুল মাবুদ। ১৯৭৩ সাল থেকে দেশের পুলিশ বিভাগে বিভিন্ন পদমর্যাদায় দায়িত্ব পালন করেন তিনি। অসামান্য অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে প্রেসিডেন্ট পুলিশ মেডেলসহ নানা পদকে ভূষিত হন আবদুল মাবুদ। বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির সদস্য এবং বাংলাদেশ ক্যান্সার সমিতির আজীবন সদস্য তিনি।

অর্থসূচক/

এই বিভাগের আরো সংবাদ