অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা, ৫ মরদেহ ও ১২ জনকে জীবিত উদ্ধার
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page
হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় জিম্মি

অভিযান সমাপ্ত ঘোষণা, ৫ মরদেহ ও ১২ জনকে জীবিত উদ্ধার

গুলশানের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় জিম্মি উদ্ধার অভিযান শেষ ঘোষণা করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার রাত ৯টার দিকে ওই হোটেলে জিম্মির পর আজ শনিবার সকালের অভিযান শেষে ৫ জনের মরদেহ ও ১২ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে।

র‍্যাবের গোয়েন্দা শাখার প্রধান লে. কর্নেল আবুল কালাম আজাদ জানান, পাঁচজন মারা গেছে। ১২ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। নিহত ও উদ্ধার করা ব্যক্তিদের পরিচয় তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি।

অভিযান শুরুর আগে জিম্মি ঘটনার দায় স্বীকার করেছে ইসলামিক স্টেটের (আইএস) কথিত বার্তা সংস্থা আমাক নিউজ। ওই রেস্তোরাঁর ভেতরে থাকা তাদের হাতে নিহত কয়েকজনের রক্তাক্ত ছবিও প্রকাশ করেছিল বার্তা সংস্থাটি। অভিযান শুরুর আগে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সাইট ইন্টেলিজেন্স গ্রুপ টুইটারে ওই সব ছবি প্রকাশ করা হয়েছিল।

Gulshan-Attack-1

গুলশানের হলি আর্টিজান হামলার ঘটনায় আহত একজনকে সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে

আজ সকাল সাড়ে ৭টার পরপর পুলিশ, র‍্যাব, বিজিবি, সোয়াত ও সেনাবাহিনীর সমন্বয়ে অভিযান শুরু হয়। অভিযান শুরুর পর মুহুর্মুহু গুলির শব্দ শোনা যায়। উদ্ধার অভিযানের একপর্যায়ে ওই রেস্তোরাঁয় সাতটি অ্যাম্বুলেন্স নেওয়া হয়।

গতকাল শুক্রবার মধ্য রাত থেকেই আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা অভিযানের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেন। ভোর ৫টার দিকে তাদের প্রস্তুতি শেষ হয়। আশপাশে অবস্থান নেওয়া সংবাদকর্মীদের নিরাপদ দূরত্বে সরিয়ে দেয় পুলিশ। আজ শনিবার সকাল ৬টার দিকে পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) এ.কে.এম. শহীদুল হক ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। সেখানে উপস্থিত আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি। সকাল ৭টার দিকে সাতটি সাঁজোয়া যানসহ সেনাবাহিনীর একটি দল ওই এলাকায় অবস্থান নেয়।

Gulshan2এর আগে শুক্রবার রাত পৌনে ৯টার দিকে গুলশানের ৭৯ নম্বরের হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় ৮ থেকে ১০ জন যুবক অতর্কিত হামলা চালায়। এরপর তারা ওই রেস্তোরাঁয় থাকা লোকজনকে জিম্মি করে। জিম্মিদের মধ্যে অন্তত ২০ জন বিদেশি নাগরিকসহ ৩০-৩৫ জন আছেন বলে ধারণা করা হয়েছিল। এরপর থেকে পুরো চার কিলোমিটার এলাকা আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা ঘিরে রাখে।

আর্টিজান বেকারি নামের ওই রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হামলার কিছুক্ষণ পর পুলিশের অগ্রগামী দলের দুই কর্মকর্তা জঙ্গিদের গুলি ও বোমায় নিহত হয়। নিহত কর্মকর্তারা হলো- ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) সহকারী কমিশনার রবিউল ইসলাম ও বনানী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সালাহউদ্দিন। এছাড়া বেশ কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হন।

Gulshanগুলশানের ইউনাইটেড হাসপাতাল সূত্র জানায়, ওই হাসপাতালে মোট ৩৬ জন আহত ব্যক্তিকে নেওয়া হয়েছিল। এর মধ্যে দুজন মারা গেছেন। এখন ভর্তি আছেন ২৪ জন। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

জঙ্গি হামলা চালিয়ে দেশি-বিদেশি নাগরিকদের জিম্মি করার ঘটনায় দায় স্বীকার করেছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন আইএস। এই ধরনের অতর্কিত হামলা চালিয়ে মানুষজনকে জিম্মি করার ঘটনা বাংলাদেশে এটাই প্রথম।

অর্থসূচক/পিএ/এস/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ