পোশাক কারখানায় চলছে শ্রমিক ছাঁটাই
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

পোশাক কারখানায় চলছে শ্রমিক ছাঁটাই

প্রতিবছর ঈদ আসলেই বেতন-ভাতা নিয়ে দেশের তৈরি পোশাক কারখানাগুলোতে শুরু হয় অস্থিরতা। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে পোশাক শ্রমিকদের বেতন-ভাতা প্রদানে সরকারি নির্দেশনা থাকলেও অধিকাংশ কারখানা মালিক তা মানতে নারাজ। তবে এবার ঈদুল ফিতরকে কেন্দ্র করে চলছে শ্রমিক ছাঁটাইও।

শ্রমিক সংগঠন গার্মেন্টস শ্রমিক ঐক্য ফোরাম জানায়, প্রতিবছরের ন্যায় এবারও ঈদের আগে বেতন-বোনাস নিয়ে অধিকাংশ পোশাক কারখানায় অস্থিরতা তৈরি হয়েছে। সাভার এবং আশুলিয়ার বেশ কয়েকটি পোশাক কারখানা বেতন-বোনাস নিয়ে ঝামেলা করছে।

আশুলিয়ায় চাকরি বহাল ও বেতন- বোনাস দাবিতে বিক্ষোভে নেমেছে ছাঁটাইকৃত কর্মীরা।

আশুলিয়ায় চাকরি বহাল ও বেতন- বোনাস দাবিতে বিক্ষোভে নেমেছে ছাঁটাইকৃত কর্মীরা।

সংগঠনটির কেন্দ্রীয় নেতা মোমিনুর রহমান মোমিন অর্থসূচককে বলেন, এখনও প্রায় ২০ শতাংশ কারখানা বোনাস দেয়নি। এছাড়া বেতন নিয়েও অনেক কারখানায় ঝামেলা রয়েছে।

তিনি জানান, আশুলিয়া চারাবাগের বঙ্গবন্ধু রোডে অবস্থিত এইচ ডি এফ টেক্সটাইলস লিমিটেড নামের একটি কারখানায় গত ১৩ই জুন থেকে মালিকপক্ষ ধারাবাহিকভাবে এ পর্যন্ত প্রায় ১২০ জন শ্রমিককে সুনির্দিষ্ট কোনো কারণ ছাড়াই ছাঁটাই করে। অনেক শ্রমিককে মাস্তান ও পুলিশের ভয় দেখিয়ে জোরপূর্বক সাদা কাগজে স্বাক্ষর নিয়ে বের করে দেওয়া হয়। তাদের জুন মাসের বকেয়া বেতন ও ঈদ বোনাসসহ আইনানুগ পাওনাদি অদ্যবধি পরিশোধ করা হয়নি। শ্রমিকরা এর আগে মালিক, প্রশাসন ও বিজিএমইএকে লিখিতভাবে জানালেও এখন পর্যন্ত শ্রমিকের পাওনা পরিশোধে কোনো পক্ষ থেকেই কার্যকর কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

ছাঁটাইকৃত শতাধিক শ্রমিককে চাকরিতে পুনর্বহাল এবং ঈদের আগে বেতন বোনাসের দাবিতে গতকাল বুধবার কারখানাটি ঘেরাও করে শ্রমিকরা। তবে কারখানা মালিক ঘটনা টের পেয়ে আগেই কারখানা বন্ধ করে পালিয়ে যায়।

এদিকে সাভারেও বেতন-ভাতা নিয়ে বেশ কয়েকটি কারখানায় জটিলতা তৈরি হয়েছে। বেতন-বোনাস চাইলে শ্রমিক ছাঁটাইয়ের হুমকিও দেয় একটি কারখানা। সাভারের জালাল কম্পোজিট, সার্ক নিট লিমিটেড, মুন প্যাকেজিং লিমিটেড, ঝুমকা টেক্সটাইল, কে এম মরিয়মসহ প্রায় ১২ থেকে ১৩টি কারখানায় অস্থিরতা তৈরি হয়েছে বলে জানা যায়।

ঈদের আগে বেতন-বোনাস পরিশোধ এবং শ্রমিক ছাঁটাইয়ের প্রতিবাদে আজ বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টার দিকে সাভারে ধসে পড়া রানাপ্লাজার সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালন করে গার্মেন্টস শ্রমিক ঐক্য ফোরামসহ বেশ কয়েকটি শ্রমিক সংগঠন।

ছঁাটাইকৃত শ্রমিকরা জানান, এই ঈদে তারা কোথায় যাবে, কিভাবে ঈদ করবে? ঘটনাটি নিয়ে তারা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।

শ্রমিক ছাঁটাইয়ের বিষয়ে জানতে চাইলে পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতি বিজিএমইএ সহ সভাপতি (ফিন্যান্স) মোহাম্মদ নাসির অর্থসূচককে বলেন, কোনো কারখানায় শ্রমিক ছাঁটাইয়ের ব্যাপারে আমাদের কাছে কোনো অভিযোগ আসেনি। এছাড়া আমাদের সদস্যভুক্ত কোনো পোশাক কারখানায় বেতন-ভাতা নিয়ে সমস্যা নেই। আমাদের কারখানাগুলো ইতোমধ্যেই ঈদের বোনাস দিয়ে দিয়েছে। জুন মাসের বেতনও দু একদিনের মধ্যে পরিশোধ হয়ে যাবে। তবে আমাদের সদস্যভুক্ত নয় এমন অনেক কারখানায় বেতন-ভাতা নিয়ে ঝামেলা তৈরি হতে পারে।

অর্থসূচক/মেহেদী/শাহীন

এই বিভাগের আরো সংবাদ