বিকডার চার্জ আদায়ে শিপিং এসোসিয়েশনকে বন্দরের নির্দেশ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

বিকডার চার্জ আদায়ে শিপিং এসোসিয়েশনকে বন্দরের নির্দেশ

বাংলাদেশ ইনল্যান্ড কন্টেইনার ডিপোর (আইসিডি) সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী বর্ধিত চার্জ আদায়ে শিপিং লাইন প্রতিষ্ঠানগুলোকে নির্দেশ দিয়েছে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ।

অফডক মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ ইনল্যান্ড কন্টেইনার ডিপোস এসোসিয়েশনের (বিকডা) অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ শিপিং এজেন্ট এসোসিয়েশন এবং বাংলাদেশ কন্টেইনার শিপিং এসোসিয়েশনকে বকেয়া চার্জ পরিশোধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ওই দুই এসোসিয়েশনের চেয়ারম্যানের কাছে গত রোববার চার্জ দেওয়ার নির্দেশনা পাঠিয়েছে বন্দর কর্তৃপক্ষ।

এতে বলা হয়েছে, গত ৩ এপ্রিল অনুষ্ঠিত বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আইসিডির কন্টেইনার হ্যান্ডেলিং বিল পরিশোধ করে খালি কন্টেইনার বন্দর থেকে শিগগির সরিয়ে নিতে প্রাইভেট ডিপোগুলোকে অনুরোধ করা গেল। অন্যথায় খালি কন্টেইনারের উপর শিগগির বিধি মোতাবেক বর্ধিত হারে রেন্ট আরোপ করতে কর্তৃপক্ষ বাধ্য হবে।

প্রসঙ্গত, চট্টগ্রাম বন্দরে গত ৩ এপ্রিল বন্দর কর্তৃপক্ষ, বিকডার প্রতিনিধি, এমএলও এবং শিপিং এজেন্টদের মধ্যে দীর্ঘ আলোচনায় সবার সম্মতিতে নতুন চার্জ নির্ধারণ করা হয়। ওই বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ২০-ফুট ও ৪০/৪৫-ফুট কন্টেইনারের জন্য যথাক্রমে গ্রাউন্ড রেন্ট ১০০টাকা ও ২০০ টাকা; ট্রান্সপোর্টেশন ১০০০ টাকা ও ২০০০ টাকা, রপ্তানি পণ্য স্টাফিং চার্জ ৩৬০০ টাকা ও ৪৮০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। উভয় কন্টেইনারের লিফট-অন/লিফট-অফ চার্জ ৩০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

export-importএই চার্জ আদায়ে একমত হয়েছিল বাংলাদেশ শিপিং এজেন্ট এসোসিয়েশন ও বাংলাদেশ কন্টেইনার শিপিং এসোসিয়েশন কর্তৃপক্ষ। তবে শিপিং এসোসিয়েশনগুলো বিকডাকে এখনও বর্ধিত পরিশোধ করছে না।

বর্ধিত চার্জ অনুযায়ী, শিপিং লাইনগুলোর কাছে বিকডার বকেয়া পাওয়া প্রায় ১০০ কোটি টাকা। বিশাল পরিমাণ অর্থ আটকে যাওয়ায় আর্থিক সংকটে পড়েছে বেসরকারি ডিপোগুলো।

বাংলাদেশ শিপিং এজেন্ট এসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান আহসানুল হক জানান, সবাই বর্ধিত চার্জ দিচ্ছে না। এক্ষেত্রে আগের চুক্তি কিছুটা সমস্যা তৈরি করছে। আগের চুক্তির মেয়াদ শেষ হলে ডিপোগুলোর সঙ্গে চুক্তি নবায়ন হলে এই সংকট দূর হবে।

তিনি অভিযোগ করেন, রপ্তানি বাণিজ্য বিকডা নির্ভর হয়ে পড়ায় ওই সংগঠনটি এখন সুযোগ নেওয়ার চেষ্টা করছে। নতুন রেটে বিল করার পর এখন ১০০ কোটি টাকা বকেয়া দাবি করছে।

বিকডা সভাপতি নুরুল কাইয়ুম খান বলেন, গত এপ্রিলে বন্দর চেয়ারম্যানের উপস্থিতে সবাই নতুন রেট মেনে নিয়েছিল। কিন্তু এখনও কেউ পরিশোধ করছে না। জাহাজ শিপিং লাইনগুলো সব ডিপোর সঙ্গে চুক্তি করে সুবিধা অনুযায়ী কাজ করে। কিন্তু আমাদের প্রাপ্য চার্জ না দিয়ে শিপিং এসোসিয়েশনগুলো নতুন চুক্তির কথা বলছে। কবে আগের চুক্তি শেষ হবে আর কবে নতুন চুক্তি করবে- সেই পর্যন্ত লোকসান দিয়ে কাজ চালাতে পারি না।

তিনি বলেন, আমরা কখনও কাজ বন্ধ করিনি। কম পয়সায় কাজ করেও প্রাপ্য অর্থ থেকে আমরা বঞ্চিত। নতুন যে চার্জ ধরা হয়েছে সেটায় আমাদের দিক। আমরাতো অতিরিক্ত কোনো চার্জ তাদের কাছ থেকে নিচ্ছি না।

প্রসঙ্গত, মোট ১৯টি কোম্পানি বেসরকারি কন্টেইনার ডিপোতে পণ্য উঠা-নামা করে। এর মধ্যে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত রয়েছে শুধু সামিট অ্যালায়েন্স পোর্ট লিমিটেড।

চট্টগ্রামে মোট ১৮টি আইসিডির মধ্যে ইকবাল ডিপো বন্ধ হয়ে গেছে। সাবের টিম্বার নামে ডিপো প্রায় অচল। বিকডা সূত্রে জানা যায়, বর্তমানে যে ১৬টি আইসিডি চালু আছে সেগুলোর অন্তত ৭টি চরম অর্থনৈতিক দুরবস্থায় রয়েছে। অপর ৯টি ডিপোর পরিস্থিতিও তেমন ভালো নয়। আইসিডির পরিচালনা খরচ অনেক বেশি। এই ব্যবসার জন্য বিশাল অংকের বিনিয়োগ প্রয়োজন। চড়া সুদে ব্যাংক থেকে টাকা নিয়ে ব্যবসা পরিচালনা করতে গিয়ে ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়েছে অনেক আইসিডি।

অর্থসূচক/দেবব্রত/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ