রাজধানীর মার্কেটগুলোতে শিশুদের ঈদ আয়োজন
শনিবার, ২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

রাজধানীর মার্কেটগুলোতে শিশুদের ঈদ আয়োজন

উৎসব মানেই ছোটদের আনন্দ। আর ঈদ, সেতো অনেক বড় উৎসব। শিশুর আনন্দকে আরও বাড়িয়ে দেয় ঈদের নতুন পোশাক। এ নিয়ে অভিভাবকদেরও থাকে নানা পরিকল্পনা। কারণ ঈদে শোনামনির পোশাকটা তো কিনতে হবে সবার আগেই।eid-kids

তাই প্রতি ঈদে শিশুদের কথা মাথায় রেখে রাজধানীর পোশাকের দোকানগুলোতে থাকে বিশেষ আয়োজন। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। দেশি-বিদেশি বাহারি রং ও ঢংয়ের ছোটদের পোশাকে সাজানো হয়েছে নগরীর খ্যাতনামা সব শপিং মল। এই প্রতিযোগিতায় ছোট বেবি শপগুলোও পিছিয়ে নেই।

ঢাকার বসুন্ধরা সিটি, যমুনা ফিউচার পার্ক, ধানমণ্ডির রাপা প্লাজা, মেট্রো প্লাজা, খাজানা, সীমান্ত স্কয়ার, ইস্টার্ন প্লাজা, আজিজ সুপার মার্কেটসহ বিভিন্ন এলাকার অভিজাত শপিং মলের বেবি হাউজগুলো নানা আইটেমের পোশাকের পসরা সাজিয়ে বসেছে।

বাদ যায়নি নিউমার্কেট ও বদরুদদোজা মার্কেট। এছাড়া রাজধানীর এলিফ্যান্ট রোড, গুলশান-বনানী, মিরপুর এলাকাতেও শিশুদের জন্য রয়েছে আলাদা দোকান। দেশীয় পোশাকের পাশাপাশি এ দোকানগুলোতে রয়েছে দারুণ সব বিদেশি পোশাকের সম্ভার।

বিক্রেতারা বলছেন, এবারের ঈদ গরম আর বৃষ্টিভেজা আবহাওয়ার মধ্যে উদযাপিত হতে যাচ্ছে। ফলে শিশুদের আরামের কথা মাথায় রেখে দেশে তৈরি পোশাকে সুতি কাপড়কে প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে। তবে বিদেশি পোশাকে ভয়েল, বেক্সি ভয়েল, কটন জর্জেট, অ্যান্ডি প্রভৃতি কালেকশন সবচেয়ে বেশি।

একইসঙ্গে বিভিন্ন বয়সের শিশুর দেশি-বিদেশি পোশাকের জন্য যেতে পারেন পান্থপথের বসুন্ধরা সিটি শপিং সেন্টারে। মার্কেটটির লেভেল-১ এ বাচ্চাদের পোশাক ও বিভিন্ন সামগ্রীর প্রায় ৪০০ দোকান রয়েছে। সেগুলোতে ভারত ও চীন থেকে আমদানি করা পোশাকের সমারোহ সবচেয়ে বেশি। ছোটদের পোশাকের ব্র্যান্ডের দোকানের মধ্যে রয়েছে বেবিজ গ্যালারি, বেমি ড্রিমস, যাযাবর, লুক অ্যান্ড লাইক ইত্যাদি।

বসুন্ধরা সিটিতে বেবি লাইকের কর্ণধার শামিম আহমেদ অর্থসূচককে জানান, এবারের ঈদে মেয়ে বাচ্চাদের জন্য পার্টি ফ্রক, ঘাগড়া চোলি, লেহেঙ্গা, ওয়স্টার্ন সেট, গাউন, স্কার্ট,  টিউনিক ক্র্যাপ্রি ও লেগিংস জাতীয় পোশাকের আমদানি সবচেয়ে বেশি। আর ছেলে শিশুদের জন্য রয়েছে সুতি, ডেনিম বা জিনসের প্যান্ট, খাটো হাতার শার্ট, ফতুয়া ইত্যাদি। শিশুদের পোশাকের ক্ষেত্রে বরাবরের মতো এবারও উজ্জ্বল রং প্রাধান্য পাচ্ছে।

তিনি জানান, বাজারে ছোটদের পোশাকের তালিকায় ভারতীয় অর্চনা, সুমিতা ও শ্রীমা কোম্পানির পোশাকই বেশি। ১ হাজার টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ৬ থেকে ৭ হাজার টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে সেগুলো।

অন্যদিকে ছোটদের পোশাকের দেশি ব্র্যান্ডের জন্য লেভেল ৭ এ রয়েছে ১০টি কোম্পানির সমন্বয়ে সাজানো দেশি দশ। আদরের শোনামনির জন্য এখানে পাবেন তার প্রিয় পোশাকটি। কাতান, টিস্যু, মসলিন ও সার্টিনের ব্যবহারে করা হয়েছে জমকাল পার্টি ড্রেস। এছাড়া সুতির কাপড় তো রয়েছেই। নকশায় প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে কারচুপি, এমব্রয়ডারিসহ হাতের কাজ। এছাড়া রয়েছে সিল্ক, ধুপিয়ান, মসলিন কাপড়ের পার্টি পোশাক। ৪৫০ টাকা থেকে ২০০০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে এসব পোশাক।

জনপ্রিয় ব্যান্ড শপ রঙ বাংলাদেশের বিক্রয়কর্মী সাজ্জাদ হোসেন অর্থসূচককে জানান, এবারের ঈদে মেয়ে বাচ্চাদের জন্য পার্টি ফ্রক, টপস, ঘাগড়ার চাহিদা বেশি দেখা যাচ্ছে। এর পাশাপাশি সালোয়ার কামিজের কালেকশনও আছে।

ঈদ সামনে রেখে মেয়ে শিশুদের জন্য ফ্রিল দেয়া পার্টি ফ্রক, হাতের জমকালো কাজ করা সালোয়ার কামিজ, ঘাঘড়া চোলি এনেছে আড়ং। সালোয়ার ও প্যান্টের কাজে নকশা এবং কাটে রয়েছে বৈচিত্র্য। ছেলে শিশুদের পাঞ্জাবি ও ফতুয়াতে কাপড় হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে সুতি, অ্যান্ডি, সিল্ক, মসলিন ও খাদি। উৎসবের আমেজ ফুটিয়ে তোলা হয়েছে বিভিন্ন রকম কারুকাজে। ১২০০ থেকে ৩০০০ টাকায় ছেলে শিশুদের পাঞ্জাবি, পাবেন ১৫০০ থেকে ২৫০০ টাকার মধ্যে মেয়ে শিশুদের সালোয়ার কামিজ এবং ৭০০ থেকে ১৫০০ টাকার মধ্যে ফ্রক পাওয়া যাচ্ছে।

এছাড়া নিউমার্কেট, সাইন্সল্যাব, এলিফ্যান্ট রোড ও শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটে দেশি ব্র্যান্ডগুলোর মধ্যে রয়েছে ফড়িং, আবর্তন, অঞ্জনস, দেশাল, অন্য মেলা, সাদা কালো, বাংলার মেলা, কে ক্র্যাফট, নন্দন, কিডস কালেকশন, নিপুণ ইত্যাদি। সব বয়সের বাচ্চার জন্য এখানে দেশে তৈরি নান্দনিক ডিজাইনের টি-শার্ট, পলোশার্ট, শার্ট, ফতুয়া, শর্ট পাঞ্জাবি ও পাঞ্জাবি, খাটো হাতার শার্ট পাওয়া যাচ্ছে। ১৫০ থেকে ৫০০ টাকার মধ্যে ফতুয়া ও টি-শার্ট এবং ৮০০ থেকে ১২০০ টাকার মধ্যে পাঞ্জাবি পাওয়া যাচ্ছে।

অর্থসূচক/শাফায়াত/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ