ইসরায়েলের নতুন আইন ‘বিপজ্জনক’ এবং ‘মুসলিমবিরোধী’
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ইসরায়েলের নতুন আইন ‘বিপজ্জনক’ এবং ‘মুসলিমবিরোধী’

এখন থেকে ফিলিস্তিুনের স্বাধীনতার কথা লেখা টি-শার্ট বা গেঞ্জি পড়লে, ওই সংক্রান্ত মিছিলে অংশ নিলে কিংবা ফিলিস্তিনের স্বাধীনতার গান গাইলেও জেল খাটতে হবে বছরের পর বছর।israili-anti-terror-law

ইসরায়েল সম্প্রতি এমন এক আইন প্রণয়ন করেছে যার ভিত্তিতে যেকোনো ফিলিস্তিনিকে বিনা বিচারে কারাগারে আটকে রাখা যাবে।

আল জাজিরার খবরে আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে, ইসরায়েলের দখলীকৃত ফিলিস্তিন অঞ্চলের মুক্তিসংগ্রাম নির্মূলে এই আইন প্রয়োগ করবে নেতানিয়াহুর প্রশাসন।

পূর্ব জেরুজালেমের আরব মুসলিমরা নতুন এই ‘সন্ত্রাসবিরোধী’ আইনের নাম দিয়েছেন চরম ‘বিপজ্জনক’ ‘আরববিরোধী’ এবং ‘মুসলিমবিরোধী’ আইন।

ফিলিস্তিনের আইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই আইন নাগরিকদের স্বাধীনতা চরমভাবে বিপন্ন করবে। এর ফলে ইসরায়েলের পুলিশ ফিলিস্তিনিদের গ্রেপ্তারের পর অস্বীকার করতে পারবে। আটককৃত ব্যক্তিকে আদালতে হাজির না করা এবং তাকে আইনজীবীর মাধ্যমে আদালতে আইনী লড়াই থেকেও বিরত রাখতে পারবে।

পূর্ব জেরুজালেমের বাসিন্দারা বলছেন, রাজনৈতিক অধিকার আদায়ের যেকোনো আন্দোলন দমাতে এই আইন করা হয়েছে।এই আইনের ফলে ওই এলাকার ফিলিস্তিনিরা অন্যান্য এলাকার ফিলিস্তিনিদের আন্দোলনে সমর্থনও জানাতে পারবেন না।

এমনিতেই পশ্চিম তীরের ফিলিস্তিনিদেরকে আলাদা সামরিক আইন ও সামরিক আদালতের মাধ্যমে দমিয়ে রাখা হয়েছে।সেখানকার নাগরিক স্বাধীনতা আরও হুমকির মুখে।

ফিলিস্তিনের আইন-বিষয়ক সংগঠন আদালাহ জানিয়েছে, এমনিতেই অনেকগুলো দানবীয় সামরিক আইনের মাধ্যমে ফিলিস্তিনিদের কণ্ঠরোধ করা হয়েছে। তার উপর এই নতুন আইন তাদের ন্যূনতম আইনি অধিকারকেও ভূলুণ্ঠিত করবে।

আদালাহ এর আইনজীবী নাদিম শেহাদাহ বলেন, এখন থেকে যেকোনো মিছিল থেকে ধরা পড়লে, ফেসবুকে ইজরায়েল বিরোধী পোস্ট দিলে বা লেখালেখি করলে অথবা ফিলিস্তিনের পতাকা ওড়ালেই সাজা পেতে হবে। খাটতে হবে কয়েক বছরের জেল। তাও আবার কোনো রকম আইনি সুযোগ-সুবিধা বা আদালতে আপিল করার সুযোগ ছাড়াই।

অর্থসূচক/রাশিদ/টি

এই বিভাগের আরো সংবাদ