ইউরো কাপ উপলক্ষে আন্দোলন থেকে সরে আসার আহ্বান ওঁলাদের
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ইউরো কাপ উপলক্ষে আন্দোলন থেকে সরে আসার আহ্বান ওঁলাদের

শ্রম আইন সংস্কার প্রস্তাবের প্রতিবাদে বেশ কিছুদিন ধরে আন্দোলন করছে ফ্রান্সের তেল শোধনাগার কর্মরত শ্রমিকরা। গত মাসের শেষ দিকে সেই আন্দোলনে যোগ দিয়েছে দেশটির রেল শ্রমিকরা। গত ২ জুন থেকে শ্রমিক আইন সংস্কারবিরোধী আন্দোলনে সমর্থন দিয়েছে মেট্রোরে শ্রমিকরাও। একইসঙ্গে ফ্রান্সের বৈমানিকরাও এই আন্দোলনে সমর্থন জানিয়েছে। সব মিলিয়ে দীর্ঘদিন ধরে পরিবহন সমস্যায় ভোগছেন দেশটির বাসিন্দারা।

অন্যদিকে আজ শুক্রবার সন্ধ্যায় ফ্রান্সে ইউরো কাপ ২০১৬ ফুটবল টুর্নামেন্টের পর্দা উঠছে। ইতোমধ্যে প্যারিসসহ দেশটির বিভিন্ন শহরে ভিড় জমাতে শুরু করেছেন ফুটবলপ্রেমীদের অনেকেই। তবে এই টুর্নামেন্টে শ্রমিক আন্দোলনের নেতিবাচক প্রভাব পড়তে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করছেন অনেকেই।

এদিকে প্যারিসের পাশের শহর স্ট্যাড দি ফ্রান্সে ট্রেন সেবা বন্ধের হুমকি দিয়েছে চালকরা। ওই শহরের স্টেডিয়ামে ইউরো কাপ ২০১৬ ফুটবল টুর্নামেন্টের উদ্বোধনী ম্যাচে স্বাগতিকদের বিপক্ষে লড়বে রোমানিয়া।

Euro 2016

ইউরো কাপ ২০১৬ এর লোগো।

ফুটবল টুর্নামেন্ট উপলক্ষে ফ্রান্সে পাড়ি জমানো বিভিন্ন দেশের নাগরিকদের কথা বিবেচনায় আন্দোলনকারী শ্রমিকদের সতর্ক করেছে দেশটির প্রেসিডেন্ট ফ্রাসোয়া ওঁলাদ। তিনি বলেন, প্রত্যেককে নিজের দায়িত্ব যথাযথ ভাবে পালন করতে হবে। সবাইকে নিজ দায়িত্বের প্রতি সজাগ থাকতে অনুরোধ করছি।

আন্দোলনরত শ্রমিকদের উদ্দেশ্যে ফ্রাসোয়া ওঁলাদ বলেন, রাষ্ট্র অবশ্যই তার দায়িত্ব পালন করবে। এর জন্য প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থাও গ্রহণ করা হবে।

তিনি আরও বলেন, জনপ্রিয় এই টুর্নামেন্টের আয়োজন সত্যিই একটি বড় উদ্যোগ। এটা সফল করা শুধু সরকারের দায়িত্ব নয়। যারা আন্দোলন করছেন এবং যারা আন্দোলনের নেতৃত্ব দিচ্ছেন- তাদেরও দায়িত্ব রয়েছে।

ফুটলবপ্রেমীদের বিষয়টা বিবেচনা করতে ইউনিয়নগুলোর প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন ফ্রান্সের ক্রীড়ামন্ত্রী থিয়েরি ব্রেইলার্ড। তিনি বলেন, আমরা একটি বড় টুর্নামেন্টের আয়োজন করেছি। এমন সময় আন্দোলন করা হচ্ছে। এরই মাঝে ফুটবল প্রেমীদের অনেকেই স্টেডিয়ামের দিকে ছুটছেন। কিন্তু এটাকে স্বাভাবিক বলা যাবে না।

France

ইউরো কাপ ২০১৬ উপলক্ষে ফ্রান্সের শহরগুলোতে ৯০ হাজার পুলিশ এবং অন্যান্য আইন-শৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, ফ্রান্সে চলমান শ্রমিক আন্দোলন এবং স্টেডিয়ামে হামলার অগ্রিম তথ্যের ভিত্তিতে ফুটবল প্রেমীদের নিরাপত্তায় অতিরিক্ত ৯০ হাজার পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত মাসে ভোট ছাড়াই শুধু সাংবিধানিক নীতির অবলম্বনে শ্রম আইন সংস্কার করে ফরাসি পার্লামেন্ট। সংস্কারকৃত শ্রম আইনের কারণে এখন থেকে সহজেই শ্রমিক নিয়োগ ও ছাঁটাই করতে পারবেন মালিকপক্ষ। আর এই সংস্কারের বিরুদ্ধেই আন্দোলন করছে শ্রমিকরা।

অর্থসূচক/সফিক/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ