‘বেসরকারি বিনিয়োগ বৃদ্ধিই মূল চ্যালেঞ্জ’
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

‘বেসরকারি বিনিয়োগ বৃদ্ধিই মূল চ্যালেঞ্জ’

আগামী ২০১৬-১৭ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে রাজস্ব আহরণের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন, সব উন্নয়ন ব্যয় যথাযথভাবে বাস্তবায়ন এবং বেসরকারি বিনিয়োগ বৃদ্ধিকেই মূল চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছে ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ফোরাম অব বাংলাদেশ (আইবিএফবি)।

বুধবার জাতীয় প্রেসকাবে ‘জাতীয় বাজেট ২০১৬-১৭’ এর উপর আইবিএফবির প্রতিক্রিয়া’ শীর্ষক এক সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনটির পক্ষ থেকে এ মন্তব্য করা হয়।

বুধবার জাতীয় প্রেসকাবে ‘জাতীয় বাজেট ২০১৬-১৭' এর উপর আইবিএফবির প্রতিক্রিয়া’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে আইবিএফবি। ছবি মহুবার রহমান।

বুধবার জাতীয় প্রেসকাবে ‘জাতীয় বাজেট ২০১৬-১৭’ এর উপর আইবিএফবির প্রতিক্রিয়া’ শীর্ষক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে আইবিএফবি। ছবি মহুবার রহমান।

সংবাদ সম্মেলনে আইবিএফবি সভাপতি হাফিজুর রহমান খান বলেন, বাজেটের আকার ক্রমাগত বাড়ছে। এটি আমাদের অর্থনৈতিক অগ্রগতির ও সক্ষমতার পরিচায়ক। সার্বিক দিক বিবেচনায় ৩ লাখ ৪০ হাজার ৬০৫ কোটি টাকা আকারের একটি বাজেট প্র্রস্তাব করার সক্ষমতা অর্জন করাও নিঃসন্দেহে উৎসাহব্যঞ্জক ব্যাপার; যার জন্য আইবিএফবি প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাচ্ছে।

তিনি বলেন, গত ২০১৪-১৫ ও ২০১৫-১৬ অর্থবছরের বাজেট পূর্ববর্তী বছরের বাজেটের তুলনায় যথাক্রমে ১২ দশমিক ৫৯ শতাংশ এবং ১৭ দশমিক ৮০ শতাংশ বেশি। ২০২১ সালের মধ্যে মধ্য আয়ের দেশ গড়তে ভবিষ্যতেও বাজেটের আকার বৃদ্ধি ক্রমবর্ধমান ধারা অব্যাহত রাখা প্রয়োজন।

তিনি আরও বলেন, প্রস্তাবিত বাজেটে চলতি অর্থবছরের রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রারর চেয়ে এবার প্রায় ৩৫ শতাংশের বেশি রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। এই লক্ষ্যমাত্রা নিঃসন্দেহে চ্যালেঞ্জিং। অপরদিকে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিসহ (এডিপি) সকল উন্নয়ন ব্যয় যথাযথভাবে বাস্তবায়ন এবং বেসরকারি বিনিয়োগ বৃদ্ধিও একটি বড় চ্যালেঞ্জ।

হাফিজুর রহমান খান বলেন, দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের ক্রমবর্ধমান ধারা ধরে রাখার জন্য বেসরকারি বিনিয়োগ আরও বাড়াতে হবে। এছাড়া ভবিষ্যতে জিডিপির প্রবৃদ্ধি ১০ শতাংশে উন্নীত করার লক্ষ্যে মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা ও কৌশল প্রণয়ন করা উচিত।

সংবাদ সম্মেলনে আইবিএফবির কিছু সুপারিশ তুলে ধরা হয়। সুপারিশগুলোর অন্যতম হচ্ছে- প্যাকেজ ভ্যাট বহাল রাখা; বিদ্যমান ভ্যাট ব্যবস্থা অব্যাহত রাখা, রপ্তানি মূল্যের উপর উৎসে কর প্রস্তাবিত ১.৫০ শতাংশ থেকে কমিয়ে আনা, ভ্যাটের পরিবর্তে আয়করের মতো প্রত্যক্ষ কর আদায় বাড়ানোর ব্যাপারে জোর দেওয়া, বাজার অর্থনীতিতে পুঁজিবাজার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, তাই পুঁজিবাজারে আস্থার সংকট দূর করতে এবং সাধারণ বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগে উৎসাহ বাড়াতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া।

অর্থসূচক/মাইদুল/শাহীন

এই বিভাগের আরো সংবাদ