প্রতি সেকেন্ডে তোলা হয় জমজমের ১৯ লিটার পানি
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

প্রতি সেকেন্ডে তোলা হয় জমজমের ১৯ লিটার পানি

জমজম কূপ থেকে প্রতি সেকেন্ডে ১১ থেকে ১৯ লিটার পানি তোলা হয় । ঐতিহাসিক এই কূপের পানি প্রতিদিন বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলের মানুষ পান করছে। ক্বাবা শরীফের মাত্র ২০ মিটার দুরে অবস্থিত এই কূপের পানিকে মুসলমানদের জন্য এক পরম সৌভাগ্য বিবেচনা করা হয়।

Zamzam-Water-Bottles

বোতলজাত জমজমের পানি

সৌদির ভূতাত্ত্বিক জরিপ বিভাগের সভাপতি জুহাইর নবাব বলেন, সৌদি আরবের মতো একটি জনবহুল দেশে মক্কার শুষ্ক এবং নির্জন শহরে জমজম কূপের পানি আশ্বির্বাদ স্বরূপ। আবর উপসাগরীয় অঞ্চলে অনেক মানুষ এই পবিত্র কূপের পানি সংগ্রহের জন্য আসেন এবং প্রতিদিনই ব্যারেল ব্যারেল পানি তারা নিয়ে যান।

Zam-Zam-6

জমজমের মুখ

ঐতিহাসিক এই কূপের পানি ব্যবস্থাপনার জন্য মক্কার কিছু ঐতিহ্যবাহী পরিবারকে দায়িত্ব দেওয়া হয়। এছাড়া ২০১০ সালে জমজম কুপের পানি বিশুদ্ধ করতে ৭০ কোটি সৌদি রিয়েলের একটি প্রকল্প অনুমোদন করেন সৌদি বাদশা।

জমজমের পানি পান করছেন নারী হাজিরা

জমজমের পানি পান করছেন নারী হাজিরা

উল্লেখ, বাদশা আবদুল্লাহর জমজম ওয়াটার কোম্পানি প্রতিদিন দুই লাখ পানির বোতল উৎপাদন করে।তবে রমজান ও হজ্ব মৌসুমে পানির বোতল উৎপদন আরও বেশি হয়।

স্থানীয়রা পান করছেন জমজমের পানি

স্থানীয়রা পান করছেন জমজমের পানি

প্রসঙ্গত, ইসলামের কথিত আছে  হযরত ইবরাহিম (আ.) তার দ্বিতীয় স্ত্রী হযরত হাজেরা (রা.) কে দুগ্ধপোষ্য শিশু হযরত ইসমাঈল (আ.) সহ আরবের জনশূন্য মরু অঞ্চলে নির্বাসিত করেছিলেন। সেখানে থাকাকালে শিশু ইসমাঈল (আ.) পিপাসিত হলে হজরত হাজেরা পানির সন্ধানে উত্তপ্ত বালুকাময় মরুভূমিতে সাফা-মারওয়া নামক স্থানে সাতবার দৌঁড়াদৌঁড়ি করেছিলেন। অন্যদিকে আল্লাহর নবী শিশু ইসমাঈল (আ.) পানির তৃষ্ণায় তার পায়ের গোড়ালি দিয়ে মাটিতে আঘাত করছিলেন। আর এ আঘাতেই মহান আল্লাহর কুদরতে সেখানে হঠাৎ মাটির ভেতর থেকে পানি উঠতে শুরু করে এবং ধীরে ধীরে একটি সুপেয় পানির কূপে পরিণত হয়। আর সেটিই আজকের জমজম কূপ।

সফিক/টি

এই বিভাগের আরো সংবাদ