কালো টাকা বৈধ করার বিধান রাখায় টিআইবির উদ্বেগ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

কালো টাকা বৈধ করার বিধান রাখায় টিআইবির উদ্বেগ

২০১৬-১৭ অর্থবছরের বাজেটে কালো টাকা সাদা করার বিধান রাখায় গভীর হতাশা ও উদ্বেগ প্রকাশ করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। পাশাপাশি সরকারকে বিধানটি বাতিলের আহ্বান জানিয়েছে দুর্নীতিবিরোধী সংস্থাটি।

বাজেট পরবর্তী এক প্রতিক্রিয়ায় টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, বাজেটে পরোক্ষভাবে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ রাখা হয়েছে- এটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত দুর্নীতিবিরোধী অবস্থানের পরিপন্থী পদক্ষেপ এটি। এই পরিপ্রেক্ষিতে জনগণের আস্থা অর্জনে বাজেটে কালো টাকা বৈধতা দেওয়ার সুযোগ বাতিল করা উচিৎ সরকারের।

টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান।

টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান।

তিনি বলেন, কালো টাকা সাদা করার অনৈতিক বিধানের বিরুদ্ধে ইতোপূর্বে সংসদ ও সংসদের বাইরে অর্থমন্ত্রীকে বিভিন্নভাবে অবস্থান গ্রহণ করতে দেখা গেছে। অথচ অনৈতিকতাবান্ধব এ সুযোগটি আবারও অব্যাহত রয়েছে। এটি সংবিধানের ২০(২) অনুচ্ছেদের সঙ্গে সাংঘর্ষিক এবং সরকারের ঘোষিত ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে আপোষহীন মনোভাব’ বা বিদেশ থেকে পাচারকৃত অর্থ ফিরিয়ে আনার প্রতিশ্রুতির পরিপন্থী। পরস্পরবিরোধী এই অবস্থানের ফলে দেশে দুর্নীতিকে প্রশয় দেওয়ার মাধ্যমে প্রাতিষ্ঠানিকীকরণের বিব্রতকর দৃষ্টান্ত স্থাপিত হচ্ছে।

প্রসঙ্গত, কালো টাকা সাদা করার সুযোগ নিয়ে নানা আলোচনা-সমালোচনা থাকলেও বাজেটে প্রস্তাবনায় এ নিয়ে নিশ্চুপ অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ১০ শতাংশ হারে জরিমানা দিয়ে অপ্রদর্শিত অর্থ সাদা করার সুযোগ বহাল রাখা হয়েছিল।

আজ বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে ২০১৬-১৭ অর্থবছরের বাজেট প্রস্তাবনায় অর্থনীতির সব খাত নিয়ে বিস্তারিত বর্ণনা থাকলেও কালো টাকা নিয়ে কোনো কথা ছিল না। এমনকি অর্থ আইন ২০১৬ তেও এ ব্যাপারে কোনো দিক নির্দেশনা নেই।

আয়কর আইন সংশোধন করে ২০১৩ সালেই ১০ শতাংশ জরিমানায় অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুযোগ সৃষ্টি করেছিল জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)।

অর্থসূচক/মেহেদী/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ