রিজার্ভ চুরি: ৩০০ বিধিতে বিবৃতি দেবেন অর্থমন্ত্রী
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » বাজেট

রিজার্ভ চুরি: ৩০০ বিধিতে বিবৃতি দেবেন অর্থমন্ত্রী

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরি নিয়ে চলতি মাসের মাঝামাঝি সময়ে ৩০০ বিধিতে সংসদে বিবৃতি দেবেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বৃহস্পতিবার ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট সম্পর্কে অর্থমন্ত্রীর বাজেট বক্তব্য সুত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সংসদ কার্য প্রণালীর ৩০০ বিধি বলা আছে, কোন মন্ত্রী স্পিকারের অনুমতি লইয়া জনস্বার্থে গুরুত্বপূর্ণকোন বিষয়ে বিবৃতি প্রদান করিতে পারেন, কিন্তু বিবৃতি প্রদানের সময় কোন প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করা যাইবে না।

বাজেট প্রস্তাবকালে অর্থমন্ত্রী বলেন, আর্থিক খাত সম্বন্ধে আমার বক্তব্য পেশ করার আগে কিছুদিন আগে সংঘটিত বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির বিষয়টি সম্বন্ধে সামান্য কিছু বক্তব্য রাখতে চাই। বিষয়টি গত ফেব্রুয়ারি মাসের শুরুতে সংঘটিত হয় এবং এর অকুস্থল ছিল ঢাকায় বাংলাদেশ ব্যাংক, নিউইয়র্কে ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক, ম্যানিলার রিজাল কমার্শিয়াল ব্যাংকিং কর্পোরেশন (আরসিবিসি) এবং শ্রীলংকার শালিকা ফাউন্ডেশন। দেখা যাচ্ছে যে, অত্যন্ত সুপরিকল্পিতভাবে স্রেফ জালিয়াতির মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকের ১০০ কোটি মার্কিন ডলার পাচারের ব্যবস্থা হয়। শ্রীলংকা ব্যাংকে এই পাচার কর্মটি সাধিত হতে পারে নি যেহেতু যার নামে টাকাটি প্রেরণ করা হয় সেই নামটির বানানে ভুল ছিল। নিউইয়র্কে ফেডারেল রিজার্ভ বড় ধরনের এইসব পেমেন্ট অর্ডার পেয়ে খানিকটা সন্দিগ্ধ হয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের সঙ্গে যোগাযোগের প্রচেষ্টা নেয়। সাপ্তাহিক ছুটি দুই দেশে বিভিন্ন হওয়ার ফলে এবং ম্যানিলায় একটি স্থানীয় ছুটি তার সঙ্গে সংযুক্ত হওয়ার ফলে এই বিষয়টি যথাসময়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের দৃষ্টি আকর্ষণ করে নি। এই বিলম্বের ফলে প্রায় ৮০ কোটি মার্কিন ডলার ম্যানিলায় সন্দেহজনক গ্রহীতার কাছে পাচার হয়ে যায়। বিষয়টি নিয়ে ম্যানিলায় মার্চ মাসে সিনেট শুনানি অনুষ্ঠিত হয় এবং আন্তর্জাতিক প্রচার মাধ্যমে এইটি একটি উল্লেখযোগ্য স্থান দখল করে। তদানীন্তন বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর বিষয়টি গোপনীয়ভাবে নিষ্পত্তি করার উদ্যোগ নেয়ার ফলে সরকার এ সম্বন্ধে যথাসময়ে অবহিত হতে পারে নি। সরকার বিষয়টি সম্বন্ধে অবহিত হওয়ার পরেই বিভিন্ন ধরনের পদক্ষেপ নিতে শুরু করে। সেই সময় বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান ১৫ মার্চ ২০১৬ তারিখে পদত্যাগ করেন এবং সেই জায়গায় অবসরপ্রাপ্ত অর্থসচিব জনাব ফজলে কবির, এনডিসি ২০ মার্চ, ২০১৬ তারিখে গভর্নর পদে যোগদান করেন। অর্থ মন্ত্রণালয় এই বিষয়টি বিবেচনার জন্য ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিনের নেতৃত্বে আরো দু’জন সদস্যসহ একটি কমিটি গঠন করে। কমিটি ২০ এপ্রিল ২০১৬ তাদের প্রাথমিক প্রতিবেদন দাখিল করেন এবং ৩০ মে তারিখে তাদের চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেছেন। এই বিষয়ে বর্তমান সংসদ অধিবেশনকালে জুনের মাঝামাঝি সময়ে আমি ৩০০ বিধিতে একটি বিবৃতি প্রদান করবো।

তিনি আরও বলেন, শ্রীলংকায় ভুল নাম প্রদানের ফলে আমরা ইতোমধ্যে ২০ মিলিয়ন ডলার ফেরত পেয়েছি। জনশ্রুতিতে প্রকাশ যে, ফিলিপাইন সরকার আরো প্রায় ৮/১০ মিলিয়ন ডলার উদ্ধার করতে সমর্থ হয়েছে। এই টাকাটি আমাদের কাছে হস্তান্তরের জন্য আমরা যথাযথ পদক্ষেপ নিচ্ছি। ড. মোহাম্মদ ফরাসউদ্দিন কমিটির প্রতিবেদন অনুসরণ করে ফিলিপাইন এবং নিউইয়র্কের ব্যাংকিং প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে আলোচনা করে আমরা যথাযথ পদক্ষেপ নিচ্ছি। ঢাকা, নিউইয়র্ক এবং ম্যানিলার তিনটি প্রতিষ্ঠান ছাড়াও এই বিষয়ে একটি উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করেছেন আন্তর্জাতিক টাকা লেনদেনের সর্ববৃহৎ মাধ্যম সুইফট কোম্পানি।

এসবি

এই বিভাগের আরো সংবাদ