শিশু রবিউল হত্যা মামলার রায় পিছিয়েছে  
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » অপরাধ ও আইন

শিশু রবিউল হত্যা মামলার রায় পিছিয়েছে  

বরগুনার চাঞ্চল্যকর শিশু রবিউল হত্যার বিচারের রায়ের দিন পিছিয়ে আগামী ৩১ মে পুনঃনির্ধারণ করেছে আদালত।

আজ বৃহস্পতিবার বরগুনার অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মাদ আবু তাহের এ আদেশ দেন।

শিশু রবিউল। ফাইল ছবি

শিশু রবিউল। ফাইল ছবি

অতিরিক্ত পাবলিক প্রসিকিউটর মো. আখতারুজ্জামান বাহাদুর জানান, সবকিছুই ঠিকঠাক ছিল। কিন্তু জেলা শহরে টানা ৫ দিনের বিদ্যুৎ বিপর্যয়ের কারণে পিছিয়েছে আদালত।

১১ বছরের শিশু রবিউল হত্যাকাণ্ডের মামলার রায় ঘোষণার দিন ধার্য থাকায় ওই দিন সকাল থেকে আদালত প্রাঙ্গনে কঠোর নিরাপত্তার মধ্যে মামলার বাদি ও বিবাদির পরিবারসহ সাংবাদিক, পুলিশ এবং বিপুল সংখ্যক উৎসুক জনতা রায় শোনার জন্য আদালত প্রাঙ্গণে ভিড় করেন।

নিহত শিশু রবিউলের বাবা দুলাল মৃধা জানান, রায় ঘোষণার তারিখ পিছানোর কারণে একটু মন খারাপ হলেও ১০ মাসের মধ্যে তিনি তার সন্তান হত্যাকারীদের বিচারের রায় পাচ্ছেন। তবে সেই রায় নিশ্চয়ই সন্তোষজনক হবে বলে তার বিশ্বাস।

২০১৫ সালের ৩ আগস্ট রাতে মাছ চুরির অভিযোগে বরগুনার তালতলী উপজেলার লাউপাড়া গ্রামে ১১ বছরের শিশু রবিউলকে চোখ উৎপাটন করে শাবল দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। পরে রবিউলের মরদেহ স্থানীয় লকরার খালে ফেলে রাখা হয়। পরদিন ৪ আগস্ট বিকেলে রবিউলের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। স্থানীয় একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্র ছিল রবিউল।

এ ঘটনায় ৫ আগস্ট শিশু রবিউলের বাবা দুলাল মৃধা বাদী হয়ে তালতলী থানায় অভিযুক্ত মিরাজসহ চারজনকে আসামি করে একটি হত্যা মামলা করেন। ওই দিনই মিরাজকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এরপর ৬ আগস্ট বৃহস্পতিবার বরগুনার আমতলী উপজেলার জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম বৈজয়ন্ত বিশ্বাসের আদালতে হাজির করা হলে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন আসামি মিরাজ। এরপর শুধু মিরাজের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয় পুলিশ।

এ ঘটনায় রবিউলের বাবা দুলাল মৃধা প্রতিবেশী মিরাজসহ চারজনকে আসামী করে তালতলী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পুলিশ রবিউল হত্যার দায়ে মিরাজকে গ্রেপ্তার করে। ৬ আগস্ট আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় মিরাজ।

এসএম

এই বিভাগের আরো সংবাদ