'আমানতের খেয়ানতকারীদের বিরুদ্ধেই দুদকের যুদ্ধ'
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

‘আমানতের খেয়ানতকারীদের বিরুদ্ধেই দুদকের যুদ্ধ’

যারা জনগণের আমানতের খেয়ানত করে, সেই খেয়ানতকারীদের বিরুদ্ধে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) যুদ্ধ করে বলে দাবি করেছেন দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ।

আজ দুপুরে চট্টগ্রাম নগরীর সার্কিট হাউসের সম্মেলন কক্ষে দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির পুরস্কার প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অথিতির বক্তব্যে এই দাবি করেন তিনি।

Iqbal Mahmud

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ।

চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন দুদকের মহাপরিচালক ড. মো. শামসুল আরেফিন, চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনার মো. রুহুল আমিন, নগর পুলিশ কমিশনার মো. ইকবাল বাহার, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদের ডিন ড. মো. আবুল হোসাইন।

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, জনগণকে নিয়ে দুর্নীতির বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে চাই। যারা জনগণের আমানতের খেয়ানত করে, সেই খেয়ানতকারীদের বিরুদ্ধেই আমাদের যুদ্ধ। অর্থ লোপাটকারীরা যতই ক্ষমতাধর ব্যক্তি হোক না কেন- তাদের মুখোশ উন্মোচন করতে চাই। ব্যাংকের অর্থ লোপাটকারী যেই হোক, যারা জনগণের অর্থ নিয়ে গেছে, তাদের ছাড়া যাবে না। ছাড়বো না, এ নিশ্চয়তা দিচ্ছি।

দুদকের মহাপরিচালক ড. মো. শামসুল আরেফিন বলেন, বিনা বেতনে দুর্নীতির বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাশ্রম দিচ্ছেন দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্যরা। এই কমিটি সমাজে গণজাগরণ সৃষ্টি করতে পারে। সেইসঙ্গে দৃঢ় আস্থা এবং অবস্থান সৃষ্টি করতে পারে। তবেই দুর্নীতিবাজদের শাস্তি নিশ্চিত হবে।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন দুদক চট্টগ্রাম বিভাগীয় কার্যালয়ের পরিচালক আবদুল আজিজ ভূঁইয়া। দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির পক্ষে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম মহানগরী সদস্য ফাতেমা জহুরুল ইসলাম, কুমিল্লা জেলা কমিটির সদস্য বদরুল হুদা, চকরিয়ার মো. নোমান, কসবা উপজেলা কমিটির সহসভাপতি মো. সোলায়মান খান।

২০১৫ সালের কাজের স্বীকৃতি হিসেবে বাঁশখালী, কসবা, চকরিয়া উপজেলা ও কুমিল্লা জেলা দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সদস্যদের ‘শ্রেষ্ঠ’ পুরস্কার তুলে দেন দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ।

অর্থসূচক/দেবব্রত/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ