আমদানি ব্যয় কমলেও 'আগুন' বাজারে
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

আমদানি ব্যয় কমলেও ‘আগুন’ বাজারে

চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত অর্থাৎ গত ৪ মাসে ৪টি নিত্যপণ্যে আমদানি ব্যয় কমেছে। পণ্যগুলো হলো- চিনি, ভোজ্যতেল, পেঁয়াজ ও আদা। গত বছরের একইসময়ের তুলনায় এসব পণ্যে কেজিপ্রতি আমদানি ব্যয় কমেছে ৫ থেকে ১২ টাকা পর্যন্ত।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ঋণপত্র (এলসি) নিষ্পত্তির প্রতিবেদন ঘেটে এ তথ্য উঠে এসেছে।

ছবি সংগৃহীত

ছবি সংগৃহীত

প্রতিবেদনে দেখা যায়, এ সময়ে চিনিতে আমদানি ব্যয় হয়েছে কেজিপ্রতি গড়ে ২৬ টাকা, ভোজ্যতেল লিটারপ্রতি ৪৯ টাকা, আদা কেজিতে ৪০ টাকা এবং পেঁয়াজ কেজিতে ১৯ টাকা। গত বছরের একই সময়ে যা ছিল যথাক্রমে চিনিতে ৩১ টাকা, ভোজ্যতেলে ৬১ টাকা, আদাতে ৫১ টাকা আর পেঁয়াজে ২৪ টাকা।

তবে রাজধানীর নয়াবাজার, ফকিরাপুল, শান্তিনগরসহ বেশকয়েকটি বাজার ঘুরে দেখা যায়, এসব পণ্যের দামে তেমন প্রভাব পড়েনি। বরং রমজানকে উপলক্ষ করে এসব পণ্যের দাম এক ধাপ বেড়েছে।

খুচরা বাজারে চায়না আদা বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ৮৫ টাকা কেজি দরে। আমদানি করা পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ২৪ থেকে ৩৫ টাকা। আর কেজি প্রতি চিনি বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা কেজি দরে। ভোজ্যতেল বিক্রি হচ্ছে ৭৫ টাকা থেকে ৯০ টাকা কেজি দরে।

খুচরা বিক্রেতারা বলছেন, ক্রেতারা রোজার আগে পুরো মাসের বাজার একসাথে করতে চায়। কারণ রোজার মধ্যে বাড়তি কোনো ঝামেলা যেন না পোহাতে হয়। তাই স্বাভাবিকভাবে রোজার শুরুতে আবশ্যকীয় পণ্যের দর বাড়ে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য মতে, গত চার মাসে চিনি আমদানিতে এলসি খোলা হয়েছে ৫ লাখ ৮১ হাজার ৩৮০টি। আলোচ্য সময়ে এলসি নিষ্পত্তি হয়েছে ৬ লাখ ২৩ হাজার ৫২৬টি। এ ৪ মাসে প্রতি কেজি চিনির গড় আমদানি মূল্য পড়েছে ২৬ টাকা।

এর মধ্যে জানুয়ারিতে চিনি আমদানি হয় ২৭ টাকা কেজি দরে ৩৪৪ টন; ফেব্রুয়ারিতে ২৬ টাকা দরে ৩৩১ টন; মার্চে ৩১ টাকা দরে ৩০৯ টন। আর এপ্রিলে আমদানি হয় ৩১ টাকা দরে ৩৮৮ টন।

এদিকে ভোজ্যতেল আমদানিতে দেখা গেছে, গত চার মাসে আমদানিতে গড় দাম পড়েছে ৪৯ টাকা। যা এর আগের বছর ছিল ৬১ টাকা। সেই হিসাবে আমদানিতে দর কমেছে ১৯ দশমিক ৬৭ শতাংশ। আলোচ্য সময়ে ভোজ্যতেল আমদানি হয় ২ হাজার ৫০৬ মেট্রিকটন।

আর পেঁয়াজ আমদানিতে গত চার মাসের গড় মূল্য ছিল ১৯ টাকা। গত বছরের একই সময়ে যা ছিল ২৪ টাকা। আলোচ্য সময়ে ২ লাখ ২১ হাজার ৯৭৪টি এলসি নিষ্পত্তি হয়েছে। পেঁয়াজ আমদানি হয়েছে ৯৯৯ মেট্রিকটন।

একইভাবে প্রতি কেজি আদা আমদানির গড় মূল্য পড়েছে ৪০ টাকা। যা গত বছর একই সময়ে ছিল ৫১ টাকা। মোট আদা আমদানি হয়েছে ২ হাজার ২১ টন।

অর্থসূচক/মাহমুদ/শাহীন

এই বিভাগের আরো সংবাদ