খুনের দায়ে দুই ভাইয়ের যাবজ্জীবন
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » চট্টগ্র্রাম

খুনের দায়ে দুই ভাইয়ের যাবজ্জীবন

চট্টগ্রামে খুনের দায়ে সাতকানিয়ার দুই ভাইকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে চট্টগ্রামের একটি আদালত। আজ মঙ্গলবার দুপুরে চট্টগ্রাম বিভাগীয় জননিরাপত্তা ট্রাইব্যুনালের বিশেষ জজ সৈয়দা হোসনে আরা এ রায় দেন।

দণ্ডিত ব্যক্তিরা হলো- কাপড় ব্যবসায়ী রেজাউল করিম লিটন এবং তার ভাই মফিজুল ইসলাম ফারুক। এদের মধ্যে লিটন পলাতক রয়েছে।

একই অভিযোগে লিটন ও ফারুকের আরেক ভাই আজাদুল আলম আজাদ এবং তাদের দোকানের কর্মচারী আবুল কালাম নামে দুইজনকে বেকসুর খালাস দিয়েছে চট্টগ্রামের ওই আদালত। ওই খুনের সঙ্গে আজাদ ও আবুল কালামের কোনো সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে আদালত।

জননিরাপত্তা ট্রাইব্যুনালের বিশেষ পিপি অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গির আলম বলেন, দণ্ডবিধির ৩০২/৩৪ ধারায় দুই আসামির বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণিত হওয়ায় আদালত তাদের যাবজ্জীবন সাজা দিয়েছে।  বাকি দুজনের বিরুদ্ধে যথেষ্ট সাক্ষ্যপ্রমাণ না থাকায় তারা খালাস পেয়েছেন।

মামলার নথি সূত্রে জানা গেছে, ২০০৫ সালের ১ নভেম্বর রমজান মাসে আকস্মিকভাবে দোকানের ভেতর হাফেজ দিদারের মৃত্যু হয়।  দোকান মালিকরা তার পিতাকে জানায়, সেহেরি খাওয়ার পর বমি করতে করতে দিদার মারা গেছে। তবে মুক্তিযোদ্ধা মাহমুদুর রহমান তাদের কথা বিশ্বাস না করে পুলিশের কাছে এ বিষয়ে অভিযোগ করেন। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠায় পুলিশ। ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে দেখা যায়, হাফেজ দিদারের মাথায়, বুকে ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্ন আছে। আঘাতের কারণেই তার মৃত্যু হয়েছে।

সাতকানিয়ার বাসিন্দা মুক্তিযোদ্ধা মাহমুদুর রহমানের ছেলে হাফেজ দিদারুল আলম ওই উপেজলার কেরানীহাটে ভাই ভাই ক্লথ স্টোরের বিক্রয় কর্মকর্তার কাজ করতেন। ভাই ভাই ক্লথ স্টোরের মালিক ছিলেন রেজাউল করিম লিটন, আজাদুল আলম আজাদ এবং মফিজুল ইসলাম ফারুক।

অর্থসূচক/সুমন/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ