কে নির্বাচনে আসল না আসল তা দেখার বিষয় নয়: কামরুল

kamrul islam

Kamrul Islamআগামি জাতীয় সংসদ নির্বাচনে কে আসল আর কে আসল না সেটা দেখার বিষয় নয়। বড় কথা হল জনগণ এই নির্বাচনে সত:স্ফূর্তভাবে ভোট দিতে পারল কিনা সেটা দেখার বিষয় বলে মন্তব্য করেছেন আইন প্রতিমন্ত্রী কামরুল ইসলাম। শুক্রবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে বঙ্গবন্ধু একাডেমি আয়োজিত বিরোধী দলের ধ্বংসাত্মক কর্মকান্ড এবং মানুষ পুড়িয়ে মারার প্রতিবাদে এক আলোচনা সভায় তিনি এমন মন্তব্য করেন।

কামরুল ইসলাম বলেন, আগামি নির্বাচন যথা সময়েই অনুষ্ঠিত হবে। সংবিধানের বাইরে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। নির্দিষ্ট সময়েই অনুষ্ঠিত হবে। সংবিধানের বাইরে যাওয়ার কোনো সুযোগ নেই। এই নির্বাচনে জনগণ ভোট দিল কিনা এবং তাদের ভোট কত শতাংশ পড়ল সেটা দেখার বিষয়।

বিরোধী দলের নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে জামায়াতের সঙ্গ ত্যাগ করার আহ্বান জানিয়ে কামরুল বলেন, আপনি (খালেদা) যতক্ষণ তাদের সঙ্গ ত্যাগ না করবেন ততক্ষণ কোনো ধরণের আলোচনা ফলপ্রস্যু হবে না। জানি আপনি তা করতে পারবেন না। কেননা আপনার জন্ম এবং তাদের জন্ম একই সূত্রে গাথা।

বিরোধী দলীয় নেত্রী দেশে সুষ্ঠু নির্বাচন চান না অভিযোগ করে তিনি আরও বলেন, দেশের সংকট নিরসনে দুই দলকে এক টেবিলে বসার জন্য বিদেশি বন্ধুরা যতই চেষ্টা করুক না কেন তিনি যতক্ষণ পর্যন্ত তাদের সঙ্গ বজায় রাখবেন ততক্ষণ আলোচনা করে কোনো লাভ হবে না।

তেল ও পানি যেমন এক সাথে মিশে না ঠিক তেমনি মুক্তিযোদ্ধা ও একাত্তরের পরাজিত শক্তি এক হতে পারে না বলে মন্তব্য করেন তিনি।

সারাদেশে ১৮ দলের ধ্বংসাত্মক কর্মকান্ড প্রতিরোধ রুখে দিয়ে তাদের বাংলা ছাড়া করতে আহ্বান জানিয়ে আইন প্রতিমন্ত্রী বলেন, তাদের প্রতিরোধ করতে আপনারা রাস্তায় নামুন, ১৮ দলের কর্মীদের এবং যারা  অবরোধ করছে তাদের ধাওয়া করেন। প্রয়োজনে দেশের আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা আপনাদের সহযোগিতা করবে।

তিনি বলেন, যতক্ষণ না বিরোধী দল ও স্বাধীনতার ঘাতকেদর ধ্বংস করতে পারব, তাদের কর্মসূচি নস্যাৎ করতে না পারব ততদিন দেশে কোনো শান্তি আসবে না।

বিরোধী দল জনগণকে প্রতিপক্ষ ভেবে তাদের হত্যা করেছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, বিএনপি জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে তাই তারা আজ প্রতিপক্ষ ভেবে সাধারণ মানুষকে হত্যা করছে।

আওয়ামী লীগের এই  নেতা বলেন, দেশে অবস্থা যত খারাপ হবে ততই আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা কঠোর থেকে কঠোরতর হবে।

হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি চিত্তরঞ্জন দাসের সভাপতিত্বে আয়োজিত সভায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, সাম্যবাদী দলের নেতা হারুণ চৌধুরী, জামালপুর আওয়ামী লীগের নেতা ইশতিয়াক হোসেন দিদার, সংগঠনের সভাপতি হুমায়ুন কবির মিজি প্রমুখ।

এমআইকে/এএস