আজ থেকে যেকোনো দিন ৩ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে অনিবন্ধিত সিম
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

আজ থেকে যেকোনো দিন ৩ ঘণ্টা বন্ধ থাকবে অনিবন্ধিত সিম

বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে মোবাইল ফোনের সিম রেজিস্ট্রেশনের জন্য সরকারের নির্ধারিত সময়সীমা গতকাল শনিবার শেষ হওয়ার কথা ছিল। তাই দিনের শুরু থেকেই মোবাইল ফোন অপারেটর কোম্পানির সেবা কেন্দ্রে এবং বায়োমেট্রিক পয়েন্টগুলোতে উপচে পড়া ভিড় দেখা গেছে। তবে দিন শেষে সুসংবাদ দিলেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। সিম পুনঃনিবন্ধনের সময়সীমা ৩১ মে পর্যন্ত বর্ধিতকরণের সিদ্ধান্তের কথা জানালেন তিনি।

সিম নিবন্ধনের সময়সীমা বাড়ানোর পাশাপাশি অনিবন্ধিত সিমগুলো আজ থেকে আগামী ১ মাসের মধ্যে যেকোনো সময়ে টানা ৩ ঘণ্টা বন্ধ রাখা হবে বলে জানিয়েছেন প্রতিমন্ত্রী।

মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, অনিবন্ধিত সিম বন্ধ রাখার এ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করবে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। সংস্থাটির এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানান, টানা ৩ ঘণ্টা সিম বন্ধ রাখার এই সিদ্ধান্ত যেকোনো সময় কার্যকর করা হবে। অনিবন্ধিত সব সিম একইসঙ্গে বন্ধ রাখা হবে কি না- সে বিষয়ে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

মোবাইল ফোনের সিম, রিম ও মেমোরি কার্ডের ব্যবহারের ওপর ১ শতাংশ হারে সারচার্জ আরোপ করে সরকার।

তবে মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা মেনে আগামী ৩১ মে তারিখের মধ্যে যেকোনো সময়ে অবশ্যই অনিবন্ধিত সিম সাময়িকভাবে বন্ধ রাখা হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

ওই কর্মকর্তা আরও জানান, প্রাথমিকভাবে মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীদের সতর্কবার্তা দিতেই অনিবন্ধিত সিমগুলো ৩ ঘণ্টা করে বন্ধ রাখা হবে। চালু করার পর নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম রেজিস্ট্রেশন না করলে আগামী ১ জুন স্থায়ীভাবে সিম বন্ধ করে দেওয়া হবে।

আগামী ৩১ মে তারিখের মধ্যে যে সিমগুলো রেজিস্ট্রেশন করা হবে না, সেগুলো ১ জুন বিটিআরসি থেকে বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন ওই কর্মকর্তা।

গতকাল শনিবার বিকেলে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জানান, প্রবাসীদের ব্যবহৃত সিম বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে রেজিস্ট্রেশনের জন্য বিশেষ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। নির্ধারিত সময়ে যেসব সিম নিবন্ধন করা হবে না সেগুলো স্থায়ীভাবে বন্ধ করা হলেও পরবর্তী ১৫ মাসে ওই সিমগুলো বিক্রি করতে পারবে না মোবাইল ফোন অপারেটর কোম্পানি। বন্ধ সিমের মধ্যে প্রবাসীদের সিম থাকলে তারা দেশে ফিরে ওই সময়ের মধ্যে নিজেদের সিমগুলো রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন।

প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালের ১৬ ডিসেম্বর থেকে আনুষ্ঠানিক ভাবে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম রেজিস্ট্রেশনের কাজ শুরু হয়। ৬টি মোবাইল ফোন অপারেটর কোম্পানির ১৩ কোটি সিমের মধ্যে এখন পর্যন্ত প্রায় ৯ কোটি সিম পুনঃনিবন্ধন হয়েছে বলে জানিয়েছে বিটিআরসি।

বায়োমেট্রিক রেজিস্ট্রেশন কার্যক্রম শুরুর থেকে তেমন আগ্রহ দেখা যায়নি। তবে চলতি মাসের শেষ দিকে মোবাইল ব্যবহারকারীদের মধ্যে সিম রেজিস্ট্রেশনের আগ্রহ অনেক বেড়েছে। প্রথম ৪ মাসে মাত্র সাড়ে ৫ কোটি সিম বায়োমেট্রিক রেজিস্ট্রেশনের আওতায় আসলেও ১৫ এপ্রিলের পর থেকে গত ১৫ দিনে প্রায় ৩ কোটি সিম বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে।

অর্থসূচক/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ