সুন্দরবনে পর্যটন সহায়তায় থাকবে ইকো গাইড
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

সুন্দরবনে পর্যটন সহায়তায় থাকবে ইকো গাইড

বিশ্বের সর্ববৃহৎ ম্যানগ্রোভ বনে দায়িত্বশীল পর্যটন নিশ্চিত করতে ইকো গাইড হিসেবে সুন্দরবন অঞ্চলের যুবকদের প্রশিক্ষণ দিচ্ছে বাংলাদেশ ট্যুরিজম বোর্ড (বিটিবি)। ওই অঞ্চলে প্রথমবারের মতো আয়োজিত এই প্রশিক্ষণ কর্মসূচিতে সহযোগিতা করছে স্থানীয় ট্যুর অপারেটর বেঙ্গল ট্যুরস লিমিটেড।

বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থাকে (বাসস) দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এই তথ্য জানান বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন। তিনি বলেন, দায়িত্বশীল পর্যটন ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে সুন্দরবন সংলগ্ন এলাকার শিক্ষিত এবং উৎসাহী যুবককে ইকো গাইড হিসেবে তৈরি করছি। এই বনের অনন্য বৈশিষ্ট্য ও বন্যপ্রাণী সংরক্ষণে ভূমিকা রাখেবে তারা।

Shundorban

সুন্দরবনে পর্যটক।

মন্ত্রী জানান, সুন্দরবনে প্রথমবারের মতো আয়োজিত ইকো গাইড প্রশিক্ষণে ২০ জন স্থানীয় যুবক-যুবতী অংশ নিয়েছেন। এদের মধ্যে ৪ জন নারী। বেঙ্গল ট্যুরস লিমিটেডের সহযোগিতায় ১০ দিনের প্রশিক্ষণ কর্মসূচি চালু পরিচালনা করছে বিটিবি। এই প্রশিক্ষণ কর্মশালায় সচেতনতা এবং মাঠ পর্যায়ে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা রয়েছে।

তিনি বলেন, সুন্দরবনের জন্য ইকো-ট্যুরিজমের অনুশীলন আবশ্যক। সুন্দরবনে দিন দিন দেশি-বিদেশি পর্যটকদের সংখ্যা বাড়ছে, কিন্তু আমরা জানি ,এখানে ইকো ট্যুরিস্ট গাইড এবং পেশাদার ট্যুর অপারেটররের অভাব রয়েছে।

রাশেদ খান মেনন বলেন, ইকো গাইডের মাধ্যমে একদিকে বনের জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ নিশ্চিত করা যাবে। অন্যদিকে স্থানীয় শিক্ষিত যুবকদের জন্য কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হবে।

যেকোনো ট্যুর অপারেটরের অনুমোদিত ইকো গাইডদের বনে প্রবেশের অনুমতি দেওয়ার জন্য বনবিভাগকে আহ্বান জানিয়েছেন মন্ত্রী। তিনি বলেন, যদি পর্যটকদের সঙ্গে বনরক্ষী ও ট্যুর অপারেটরদের ইকো গাইড থাকে তাহলে পর্যটকরা গভীর বনে যেতেও উৎসাহ বোধ করবেন।

মন্ত্রী আরও বলেন, ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ হিসেবে সুন্দরবনের গুরুত্ব অনুধাবন করছে ইউনেস্কো। পৃথিবীর বৃহত্তম এই ম্যানগ্রোভ বনের উপর বিশেষ গুরুত্বারোপ করছে জাতিসংঘের বিশ্ব পর্যটন সংস্থা। ইউনেস্কোর ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ হিসেবে ঘোষিত বিশ্বের সর্ববৃহৎ ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবনকে সঠিক পর্যটনবান্ধব উপায়ে আন্তর্জাতিকভাবে উপস্থাপনের জন্য বিশ্ব পর্যটন সংস্থা থেকে একটি প্রস্তাব পেয়েছি।

সুন্দরবন পর্যটন নীতি আধুনিক করতে বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে শিগগির বৈঠক করা হবে বলেও জানান তিনি।

বিটিবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আক্তারুজ্জামান খান কবির বলেন, ইকো গাইড হতে আগ্রহী শিক্ষিত স্থানীয় যুবকদের কাছ থেকে আবেদনপত্র চেয়ে আবারও সংবাদপত্রে বিজ্ঞাপন দেবো। খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট ও বরগুনা এই ৪ জেলা থেকে ইকো গাইড হতে আগ্রহী প্রার্থীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

অর্থসূচক/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ