যেন এক টুকরো কুমার বাড়ি!
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

যেন এক টুকরো কুমার বাড়ি!

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দোয়েল চত্বর এলাকায় সাধারণত ফুল এবং বিভিন্ন গাছের চারা বিক্রি হয়। তবে বৈশাখের আগমন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত বর্ষবরণ অনুষ্ঠান উপলক্ষে মৃৎ শিল্পের পণ্যের বাজার বসেছে সেখানে।

দেশের নানা প্রান্ত থেকে মাটির হাড়ি-পাতিল, পুতুলসহ নানা দুর্লভ পণ্য নিয়ে দোয়েল চত্বরে হাজির হয়েছেন এই শিল্পের সঙ্গে জড়িত ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা। এক নজর দেখলে মনে হবে, এ যেন কোনো এক কুমার বাড়ির উঠোন।

নববর্ষের উৎসব উপলক্ষে শাহবাগের জাতীয় যাদুঘর, পাবলিক লাইব্রেরি, টিএসসি, দোয়েল চত্বরসহ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্থানে দোকান সাজিয়ে বসেছেন মৃৎ শিল্পের ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা। আর মেলা উপলক্ষে দর্শনার্থীদের উপস্থিতিও উল্লেখযোগ্য। বিক্রিও হচ্ছে প্রচুর।

Boishak3

দোয়েল চত্বরে জমে উঠেছে মাটির হাড়ি-পাতিলের ব্যবসা। ছবি: মহুবার রহমান

মাটির হাড়ি-পাতিল নিয়ে দোয়েল চত্বরে বসা ইদ্রিস নামের এক বিক্রেতা জানান, প্রতিবছরই নববর্ষ উপলক্ষে অনেক বেশি পণ্য নিয়ে এখানে আসি। বিক্রিও ভালো হয়। এবারও তার ব্যতিক্রম হবে না। গত কয়েকদিন আগে থেকেই বিক্রি শুরু হয়েছে। আজ সকালেও অনেক কিছু বিক্রি হয়েছে।

দিন বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মেলায় দর্শনার্থীদের উপস্থিতি বাড়লে বিক্রি আরও বাড়বে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

রশিদ নামে এক বিক্রেতা বলেন, দোয়েল চত্বর এলাকায় মৃৎ শিল্পের ৪০টি দোকান রয়েছে। নববর্ষের মেলাকে ঘিরে কোটি টাকার ব্যবসার পরিকল্পনা রয়েছে এখানকার ব্যবসায়ীদের। সেই অনুপাতে মালামালও সংগ্রহ করা হয়েছে। প্রতিটি দোকানে ২ থেকে ৫ লাখ টাকার পণ্য বিক্রির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে।

শাহাদাত নামে একজন দর্শনার্থী জানান, নববর্ষ উপলক্ষে ছোট ভাই-বোনদের নিয়ে মেলায় ঘুরতে এসেছি। দোয়েল চত্বরে আসতেই মাটির হাড়ি-পাতিলগুলো আমাদের নজর কাড়লো। কয়েকটি হাড়ি-পাতিল কিনেছি। এসব জিনিস এখন আর ব্যবহার করা হয় না। ঘরে সাজিয়ে রাখার জন্য কেনা।

তিনি জানান, ছোট ভাই-বোনগুলো মাটির পুতুল, হাতি, ঘোড়াসহ বিভিন্ন প্রাণির মূর্তি দেখে তা কেনার জন্য বায়না করল। তাদের পছন্দ মতো প্রত্যেককেই ২-৩টা করে কিনে দিলাম। মাটির জিনিসগুলো খুব সুন্দর করে বানানো হয়েছে। এর পাশাপাশি, এতে কারুকাজও অনেক সুন্দর হয়েছে। এগুলো আসলেই যেকোনো কারো নজর কাড়বে।

Boishak

বাংলা বর্ষপঞ্জিকা অনুযায়ী নতুন বছরের আগমন উপলক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দোয়েল চত্বর এলাকার দোকানগুলো সেজেছে মৃৎ শিল্পের পণ্যে। দোকানগুলোতে ঠাঁই পেয়েছে বাংলার ঐতিহ্যের প্রতীক বাঁশ-বেত-তাল পাতার তৈরি হাত পাখাও। ছবি: মহুবার রহমান

এছাড়া বাঁশ, বেত, পাট, শোলা, ধাতব, মৃৎ, চামড়া, তন্তুজাতসহ হরেক রকমের কারুপণ্য ও বাচ্চাদের খেলনা বিক্রির জন্য নববর্ষের মেলায় অংশ নেন ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা। তাদের এসব রকমারি বৈশাখী পণ্যের সমাহারে মুখরিত মেলা। রঙিন বেলুন, মাটি ও কাঠের পুতুল, ঢোল, বাঁশি, নকশি পাখা, খেলনার হাতি-ঘোড়া, পিঠার ছাঁচ, মাটির ব্যাংক, বাহারি ফুলদানি, একতারা, বাঁশ বেতের তৈরি হাত পাকা মেলায় যুক্ত করেছে নববর্ষে আবেশ। এর সঙ্গে সবার মুখে মুখে দেখা যাচ্ছে হাওয়াই মিঠাই, জিলাপি, খৈ-বাতাসা, খাজা, গজা, মওয়াসহ বিভিন্ন স্বাদের ঐতিহ্যবাহী বিভিন্ন খাদ্যসামগ্রী।

অর্থসূচক/মাহমুদ/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ