ম্যানচেস্টারে ভ্রাম্যমাণ যাদুঘর
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

ম্যানচেস্টারে ভ্রাম্যমাণ যাদুঘর

যাদুঘরের ভ্রাম্যমাণ সংস্করণ তৈরি করেছে ম্যানচেস্টার যাদুঘর। ওই যাদুঘরে সংরক্ষিত ঐতিহাসিক জিনিসপত্র স্কুলের শিক্ষার্থীদের কাছে পৌঁছে দিতে এই অভিনব উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, ম্যানচেস্টার যাদুঘরে সংরক্ষিত জিনিসপত্রের আঙ্গিকে তৈরি করা বস্তু রাখা হবে ভ্রাম্যমাণ যাদুঘরে। অভিনব পদ্ধতিতে বাতাস দিয়ে ফোলানো হবে জিনিসগুলো।

Manchester museum2

ম্যানচেস্টার যাদুঘরে সংরক্ষিত একটি প্রাণি।

যাদুঘরে দর্শক যাওয়ার বদলে দর্শকদের ঘরের দরজায় পৌঁছে দেওয়া হবে যাদুঘর।

ম্যানচেস্টার যাদুঘর কর্তৃপক্ষ বলছে, স্কুল শিক্ষার্থীদের কাছে ম্যানচেস্টার যাদুঘর অনেক বেশি জনপ্রিয়। ২০১৫ সালে ৩০ হাজারের বেশি স্কুল শিক্ষার্থী এই যাদুঘর পরিদর্শন করেছে। এছাড়া গত এক বছরে সাড়ে ৪ লাখ মানুষ ম্যানচেস্টার যাদুঘর পরিদর্শন করেছিলেন।

বাতাস দিয়ে ফুলিয়ে তৈরি এই যাদুঘর মানুষের ঘরের দরজায় নেওয়া হলে দরিদ্র এলাকার সুবিধা বঞ্চিত মানুষরাও যাদুঘরের জিনিসপত্র প্রদর্শনের সুযোগ পাবেন।

ম্যানচেস্টারের একজন শিক্ষিকা জানান, আসল যাদুঘরটি অনেক বড় এবং এতে অনেক জিনিসপত্র রয়েছে। অতিরিক্ত ভিড়ের কারণে অনেক ছেলেমেয়ে যাদুঘরে যেতে চায় না- তাদের কাছে যাদুঘর মানেই নিরস ও বোরিং। কিন্তু বিভিন্ন পাড়ায় বাতাস দিয়ে ফোলানো ভ্রাম্যমাণ যাদুঘর নেওয়া হলে এ বিষয়ে জানতে ছোট ছেলেমেয়েদের মধ্যে কৌতূহলী তৈরি হতে পারে।

Manchester museum

ম্যানচেস্টার যাদুঘরের প্রবেশ পথ (আঁকা ছবি)

যাদুঘরের একজন মুখপাত্র বলেন, ভ্রাম্যমাণ যাদুঘর ফুলিয়ে প্রস্তুত করতে সময় লাগবে মাত্র তিরিশ মিনিট এবং শিশুদের এখানে প্রদর্শিত জিনিসপত্র ধরে দেখার সুযোগও দেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ের অংশ হিসেবে ১৮৯০ সালে ম্যানচেস্টার যাদুঘর চালু করা হয়েছিল।

অর্থসূচক/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ