কর ফাঁকির নথি ফাঁস: আইসল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

কর ফাঁকির নথি ফাঁস: আইসল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ

তথ্য গোপন রেখে আইনি সহায়তাকারী প্রতিষ্ঠান মোওস্যাক ফনসেকার নথি ফাঁসের পর গতকাল মঙ্গলবার পদত্যাগ করেছেন আইসল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী সিগমন্ডুর ডেভিড গুনলাগসন।

বিক্ষোভের মুখে পদত্যাগের আগে প্রেসিডেন্ট ওলাফুর র‌্যাগনার গ্রিমসনকে পার্লামেন্ট ভেঙ্গে দেওয়ার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী গুনলাগসন। তবে এ ব্যাপারে প্রেসিডেন্টের সাড়া না পেয়ে নিজেই পদত্যাগ করেন তিনি।

ফাঁস হয়ে যাওয়া নথি অনুযায়ী, প্রধানমন্ত্রী সিগমন্ডুর গুনলাগসন ও তাঁর স্ত্রী ২০০৭ সালে উইনট্রাস নামের একটি কোম্পানি কিনেন। ২০০৯ সালে এমপি নির্বাচিত হওয়ার সময় গুনলাগসন প্রতিষ্ঠানটি থেকে পাওয়া লভ্যাংশের কথা গোপন করেছিলেন। কেলেঙ্কারির খবর বের হওয়ার পরপরই সোমবার গুনলাগসনের পদত্যাগের দাবিতে গণস্বাক্ষরে সই করে ২৪ হাজার মানুষ।

নতুন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিজের নাম ঘোষণা দিয়ে আইসল্যান্ডের প্রগ্রেসিভ পার্টির উপনেতা ও কৃষিমন্ত্রী সিগুইডুর ইঙ্গি জোনাসন বলেন, পার্লামেন্টারি পার্টির সভায় প্রধানমন্ত্রী পদত্যাগের কথা জানিয়েছেন।

Iceland's prime minister

আইসল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী সিগমন্ডুর ডেভিড গুনলাগসন।

এর আগে গত ৩ এপ্রিল পানামার আইনি প্রতিষ্ঠান মোওস্যাক ফনসেকার এক কোটি ১০ লাখ গোপন নথি ফাঁস হয়েছে। অর্থ পাচার, বিভিন্ন রকম নিষেধাজ্ঞা ও ট্যাক্স ফাঁকি দিতে ওই প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে মক্কেলদের পরামর্শ দেওয়ার প্রমাণ এই নথিগুলো থেকে পাওয়া গেছে।

মোওস্যাক ফনসেকার গোপন নথি থেকে জানা গেছে, সম্পদ গোপন রাখতে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের ৭২ জন বর্তমান ও সাবেক রাষ্ট্রপ্রধান কর ফাঁকি দিয়েছেন। সৌদি আরবের বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ বিন আবদুল রহমান আল সৌদ, মিশরের সাবেক প্রেসিডেন্ট হোসনি মোবারক, লিবিয়ার সাবেক রাষ্ট্রপ্রধান মুয়াম্মার গাদ্দাফী এবং সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ এই তালিকায় রয়েছেন।

এছাড়া রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন ও চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের নিকটাত্মীয়দের নাম রয়েছে এতে। মিসরের প্রেসিডেন্ট হোসনি মোবারকের ছেলে এবং পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের দুই ছেলে ও মেয়ের নাম রয়েছে কর ফাঁকির তালিকায়।

মোওস্যাক ফনসেকার গোপন নথি অনুযায়ী অর্থ পাচারের তালিকায় থাকা ৮০০ ব্যক্তির বিরুদ্ধে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া সরকার। তদন্ত শুরু হয়েছে ফ্রান্স, নেদারল্যান্ডস ও পানামায়।

স্বতন্ত্র তদন্ত কমিটি করার ঘোষণা দিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। অন্যদিকে কর ফাঁকি দেওয়াকে একটি বৈশ্বিক সমস্যা বলে আখ্যায়িত করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। তিনি বলেন, ধনী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানগুলো কর আইনের ফাঁকফোকর বের করে অর্থ পাচার করছে।

অর্থসূচক/পিএ/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ