এইচএসসি পরীক্ষা শুরু
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » লিড নিউজ

এইচএসসি পরীক্ষা শুরু

আজ রোববার থেকে শুরু হচ্ছে ২০১৬ সালের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। আজ সকাল ১০টায় দেশের দুই হাজার ৪৫২টি কেন্দ্রে একযোগে শুরু হয় এ পরীক্ষা।

এ বছর দেশের ৮টি সাধারণ এবং মাদ্রাসা ও কারিগরিসহ ১০টি শিক্ষাবোর্ড থেকে মোট ১২ লাখ ১৮ হাজার ৬২৮ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করছে। এ সংখ্যা গত বছরের চেয়ে ১ লাখ ৪৪ হাজার ৭৪৪ জন বেশি।

পরীক্ষার্থীদের মধ্যে ছাত্র ৬ লাখ ৫৪ হাজার ১১৪ জন ও ছাত্রী ৫ লাখ ৬৪ হাজার ৫১৪ জন। যা গত বছরের তুলনায় যথাক্রমে ৮৩ হাজার ১২১ জন ও ৬১ হাজার ৬২৩ জন বেশি।

HSC_Photo_2

২০১৫ সালের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় অংশ নেওয়া পরীক্ষার্থীদের একাংশ।

সম্পূর্ণ নকলমুক্ত ও সুশৃঙ্খল পরিবেশে পরীক্ষা অনুষ্ঠানের সব ব্যবস্থা সম্পন্ন করা হয়েছে বলে মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে।

জানা গেছে, এ বছর ঢাকা, রাজশাহী, কুমিল্লা, যশোর, চট্টগ্রাম, বরিশাল, সিলেট ও দিনাজপুর এ ৮টি সাধারণ শিক্ষাবোর্ড থেকে ১০ লাখ ২০ হাজার ১০৯ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করবে। এর মধ্যে ছাত্র ৫ লাখ ২৫ হাজার ৬১৩ জন এবং ছাত্রী ৪ লাখ ৯৪ হাজার ৪৯৬ জন।

এছাড়া মাদ্রাসা শিক্ষাবোর্ড থেকে এ বছর ৯১ হাজার ৫৯১ জন, কারিগরি বোর্ড থেকে ১ লাখ ২ হাজার ১৩২ জন এবং ডিআইবিএস থেকে ৪ হাজার ৭৯৬ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে।

মাদ্রাসা বোর্ড থেকে ৫২ হাজার ৬০৩ জন ছাত্র ও ৩৮ হাজার ৯৮৮ জন ছাত্রী, কারিগরি বোর্ড থেকে ৭২ হাজার ৯২ জন ছাত্র ও ৩০ হাজার ৪০ জন ছাত্রী এবং ডিআইবিএস থেকে ৩ হাজার ৮০৬ জন ও ৯৯০ জন ছাত্রী পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করবে।

বিদেশের ৭টি কেন্দ্র থেকে এবার ২৬২ জন পরীক্ষার্থী অংশগ্রহণ করবে। এরমধ্যে ছাত্র ১২৪ জন ও ছাত্রী ১৩৮ জন।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, গত বছরের তুলনায় এবার এইচএসসি পরীক্ষায় মোট পরীক্ষার্থীর পাশাপাশি পরীক্ষার কেন্দ্র ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যাও বৃদ্ধি পেয়েছে। এবার পরীক্ষার কেন্দ্র ৩৩টি বৃদ্ধি পেয়ে ২ হাজার ৪৫২টি এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ২২৮টি বৃদ্ধি পেয়ে ৮ হাজার ৫৩৩টি হয়েছে।

তত্ত্বীয় পরীক্ষা আগামীকাল ৩ এপ্রিল শুরু হয়ে ৯ জুন পর্যন্ত চলবে এবং ব্যবহারিক পরীক্ষা ১১ জুন শুরু হয়ে ২০ জুন শেষ হবে।

মন্ত্রণালয় আরও জানায়, দৃষ্টি প্রতিবন্ধী, সেরিব্রাল পালসিজনিত প্রতিবন্ধী এবং যাদের হাত নেই এমন প্রতিবন্ধী পরীক্ষার্থী স্ক্রাইব (শ্রুতি লেখক) সঙ্গে নিয়ে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবে। এ ধরনের পরীক্ষার্থীদের এবং শ্রবণ প্রতিবন্ধী পরীক্ষার্থীদের জন্য অতিরিক্ত ২০ মিনিট সময় বাড়ানো হয়েছে।

এছাড়া বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন (অটিস্টিক এবং ডাউন সিনড্রোম বা সেরিব্রাল পালসি আক্রান্ত) পরীক্ষার্থীদের ৩০ মিনিট অতিরিক্ত সময় এবং পরীক্ষার কক্ষে তার অভিভাবক, শিক্ষক বা সাহায্যকারী নিয়ে পরীক্ষায় অংশগ্রহণের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে সার্বক্ষণিকভাবে সারা দেশের এইচএসসি ও সমমানের সকল পরীক্ষা তদারকির ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

এসএম

এই বিভাগের আরো সংবাদ