৫৫ রানে হারল বাংলাদেশ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » ক্রিকেট

৫৫ রানে হারল বাংলাদেশ

টি-২০ বিশ্বকাপের মূলপর্বে নিজেদের প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানের বিপক্ষে ৫৫ রানে হেরেছে বাংলাদেশ। এ নিয়ে মূলপর্বটি বাজেভাবে শুরু করল টাইগাররা।

২০২ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই পাকিস্তানি পেসার মোহাম্মদ আমিরের বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন বাংলাদেশের উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকার। ছবি: ইএসপিএন ক্রিকইনফো

২০২ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই পাকিস্তানি পেসার মোহাম্মদ আমিরের বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন বাংলাদেশের উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকার। ছবি: ইএসপিএন ক্রিকইনফো

আজ বুধবার কলকাতার ইডেন গার্ডেনে টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ২০১ রানের বিশাল স্কোর গড়ে পাকিস্তান। জবাবে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৪৬ রান তুলতে সক্ষম হয় বাংলাদেশ।

২০২ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে বাংলাদেশ। সেই চাপ আর কাটিয়ে উঠতে পারেনি টাইগাররা। ০.৩ ওভারে সৌম্য সরকারকে (০) বোল্ড করে সাজঘরে ফেরান মোহাম্মদ আমির। ৫.৫ ওভারে আফ্রিদির বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন সাব্বির রহমান (২৫)। এর আগে দ্বিতীয় উইকেটে তামিমের সঙ্গে ৪৩ রানের জুটি গড়েন তিনি। এ জুটিটিই যা একটু ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করে।

৮ম ওভারে আফ্রিদির বলে বাউন্ডারির কাছে ইমাদের হাতে ধরা পড়েন তামিম ইকবাল (২৪)। ফলে বাংলাদেশের ওপর চাপ তীব্র হয়। দলীয় ৭১ রানে বাংলাদেশের চতুর্থ উইকেটের পতন হয়। ১০.২ ওভারে ইমাদ ওয়াসিমের বলে সারজিল খানের হাতে ধরা পড়েন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ (৪)। ১৬.৪ ওভারে আমিরের বলে উইকেটের পেছনে দাঁড়ানো সরফরাজ আহমেদের হাতে ক্যাচ দিয়ে আউট হন মুশফিকুর রহিম (১৮)। এরই সঙ্গে বাংলাদেশের জয়ের আশা উবে যায়।  ১৭.৩ ওভারে ইরফানের বলে মোহাম্মদ আমিরের হাতে ক্যাচ দিয়ে যাওয়া আসার মিছিলে যোগ দেন মোহাম্মদ মিঠুন (২)। শেষ পর্যন্ত ১৫ রানে মাশরাফি ও ৫০ রানে সাকিব অপরাজিত থাকেন। এটি টি-২০ ক্যারিয়ারে সাকিবের ষষ্ঠ ফিফটি। সেইসঙ্গে স্পর্শ করেছেন ১ হাজার রানের মাইলফলকও।

পাকিস্তানের হয়ে আমির, আফ্রিদি ২টি করে এবং ইমাদ ও ইরফান ১টি করে উইকেট নেন।

পাকিস্তানের হয়ে ১৯ বলে ৪৯ রানের টর্নেডো ইনিংস খেলেন আফ্রিদি। ছবি: ইএসপিএন ক্রিকইনফো

পাকিস্তানের হয়ে ১৯ বলে ৪৯ রানের টর্নেডো ইনিংস খেলেন আফ্রিদি। ছবি: ইএসপিএন ক্রিকইনফো

এর আগে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ০.৩ ওভারে আরাফাত সানির বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন পাকিস্তানের উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান সারজিল খান (১৮)।  এরপর লম্বা জুটি গড়েন আহমেদ শেহজাদ ও মোহাম্মদ হাফিজ। তারাই মূলত পাকিস্তানের ইনিংসের ভিত তৈরি করে দেন। ১৩.৫ ওভারে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের সহযোগিতায় আহমেদ শেহজাদকে (৫২) সাজঘরে ফেরান সাব্বির রহমান। ১৬.৪ ওভারে আরাফাত সানির বলে হাফিজের (৬৪) অসাধারণ ক্যাচ নেন সৌম্য সরকার। তবুও পাকিস্তানের রানের চাকা কমেনি। বরং হু হু করে বেড়েছে। ১৭.৫ ওভারে উমর আকমলকে (০) আউট করেন তাসকিন। ১৯.৪ ওভারে তাসকিনের বলে আউট হন আফ্রিদি (৪৯)। এই আফ্রিদিই শেষদিকে বাংলাদেশ বোলারদের জন্য ত্রাস হয়ে ওঠেন। ১৫ রানে অপরাজিত থাকেন শোয়েব মালিক।

বাংলাদেশের হয়ে আরাফাত সানি ও তাসকিন আহমেদ ২টি করে উইকেট নেন। এছাড়া ১টি উইকেট নেন সাব্বির রহমান।

ব্যাটে-বলে সেরা পারফরম্যান্সে ম্যান অব দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হন শহীদ আফ্রিদি।

প্রথম পর্বে (বাছাই পর্ব) নেদারল্যান্ড ও ওমানের বিপক্ষে জয় নিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সুপার টেনে খেলার যোগ্যতা অর্জন করে মাশরাফি বাহিনী। ওই পর্বে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে খেলা থাকলেও তা বৃষ্টির কারণে পরিত্যক্ত হয়।

বাংলাদেশ একাদশ:

মাশরাফি-বিন মুর্তজা (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, মুশফিকুর রহিম, সাকিব আল হাসান, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, মোহাম্মদ মিঠুন, আরাফাত সানি, আল-আমিন হোসেন ও তাসকিন আহমেদ।

পাকিস্তান একাদশ:

শহীদ আফ্রিদি (অধিনায়ক), আহমেদ শেহজাদ, সারজিল খান, মোহাম্মদ হাফিজ, উমর আকমল, শোয়েব মালিক, সরফরাজ আহমেদ, ইমাদ ওয়াসিম, ওয়াহাব রিয়াজ, মোহাম্মদ আমির ও মোহাম্মদ ইরফান।

অর্থসূচক/এমই/ডিএইচ

এই বিভাগের আরো সংবাদ