চট্টগ্রাম থেকে ভারতে যাচ্ছে প্রথম পণ্যবাহী জাহাজ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » চট্টগ্রাম ও বন্দর

চট্টগ্রাম থেকে ভারতে যাচ্ছে প্রথম পণ্যবাহী জাহাজ

ভারত-বাংলাদেশ কোস্টাল শিপিং চুক্তির আওতায় চট্টগ্রাম থেকে প্রথম পণ্যবাহী জাহাজ ভারতের উদ্দেশ্যে যাত্রা করেছে। দেশে তৈরি হারবার-১ জাহাজটি চট্টগ্রাম বন্দর থেকে পণ্য নিয়ে আজ মঙ্গলবার ভারতের পূর্বাঞ্চলীয় বন্দর কৃঞ্চাপাটনামের উদ্দেশে রওনা দিয়েছে।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে চট্টগ্রাম বন্দরের এক নম্বর এনসিটি জেটিতে ফিতা কেটে ও বেলুন উড়িয়ে চট্টগ্রাম থেকে ভারতের উদ্দেশ্যে যাত্রা করা প্রথম পণ্যবাহী জাহাজের উদ্বোধন করেন নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান। ছবি সংগৃহীত

আজ মঙ্গলবার দুপুরে চট্টগ্রাম বন্দরের এক নম্বর এনসিটি জেটিতে ফিতা কেটে ও বেলুন উড়িয়ে চট্টগ্রাম থেকে ভারতের উদ্দেশ্যে যাত্রা করা প্রথম পণ্যবাহী জাহাজের উদ্বোধন করেন নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান। ছবি সংগৃহীত

আজ মঙ্গলবার দুপুরে চট্টগ্রাম বন্দরের এক নম্বর এনসিটি জেটিতে ফিতা কেটে ও বেলুন উড়িয়ে এই যাত্রার উদ্বোধন করেন নৌপরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান। চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে নৌপরিবহন মন্ত্রী বলেন, ২০১৫ সালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরের সময় কোস্টাল শিপিংসহ তিনটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। সেই চুক্তির আওতায় প্রথম পণ্যবাহী জাহাজ চট্টগ্রাম থেকে ভারতে যাত্রা করছে।

মন্ত্রী বলেন, ১৯৭৪ সালে প্রথম বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধীর মধ্যে একাধিক চুক্তি স্বাক্ষর হয়। এর ৪০ বছর পর আজ একটি চুক্তি বাস্তবায়ন হচ্ছে। এর মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ-ভারত সর্ম্পক আরও সুদৃঢ় হলো।

তিনি আরও বলেন, ভারতের কৃঞ্চাপাটনাম বন্দরে জাহাজ চলাচলের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক ও উপ আঞ্চলিক বাণিজ্য আরও সম্প্রসারণের পথ সুগম হবে। ইতোমধ্যে বাংলাদেশের সাথে আঞ্চলিক বানিজ্য সম্প্রসারণে বন্দর দিয়ে পণ্য পরিবহনের সমঝোতা স্বারক স্বাক্ষরিত হয়েছে। এছাড়া ফেনী হয়ে ভারতেও পণ্য যাওয়ার কার্যক্রমও দ্রুত শুরু হবে। আশা করছি, আগামীতে এই কোস্টাল শিপিং খুবই জনপ্রিয়তা অর্জন করবে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ভারতের কৃঞ্চাপাটনাম বন্দর লিমিটেডের চেয়ারম্যান রবি রাম প্রসাদ। 

তিনি বলেন, সম্প্রতি ঢাকায় অনুষ্ঠিত ইন্দো-বাংলা সম্মেলনে বেশ কয়েকটি বাণিজ্য চুক্তি সম্পাদিত হয়েছে। বর্তমানে ৬ দশমিক ২০ হারে জিডিপির যে প্রবৃদ্ধি সেটিকে সামনে আরও এগিয়ে নিতে হলে প্রয়োজন সঠিক রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত ও স্থিতিশীলতা। যা বাংলাদেশে বর্তমানে বিদ্যমান।

তিনি আরও বলেন, কৃঞ্চাপাটনাম বন্দর দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে বেসরকারিভাবে অনেক বড় বন্দর। শুধু চট্টগ্রাম বন্দরে নয়; এই বন্দর থেকে ইউরোপ, আমেরিকায় তৈরি পোশাক রপ্তানি করা হয়। এই বন্দর হয়ে চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে এখন থেকে ভারতের ৭টি অঙ্গরাজ্যে সাগরপথে পণ্য পরিবহনের সুযোগ সৃষ্টি হলো। আশা করছি, শুধু আজকের একটি জাহাজ নয়, আগামীতে এই চুক্তির আওতায় চট্টগ্রাম বন্দর থেকে শত শত জাহাজ পণ্য নিয়ে নোঙর করবে।

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান কমডোর জুলফিকার আজিজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মাদারীপুর-১ আসনের সাংসদ ও নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় সংক্রান্ত সংসদীয় কমিটির সদস্য নুর-ই-আলম চৌধুরী। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম ১৪ আসনের সাংসদ নজরুল ইসলাম চৌধুরী, নৌ মন্ত্রণালয়ের সচিব অশোক মাধব রায়, ভারতীয় প্রথম সহকারী হাইকমিশনার রাকেশ রুমন, নিপা পরিবহন লিমিটেডের চেয়ারম্যান সিরাজ উদ্দিন মিয়া, কৃঞ্চাপাটনাম বন্দর লিমিটেডের চেয়ারম্যান রবি রাম প্রসাদ প্রমুখ।

অর্থসূচক/দেবব্রত রায়/ডিএইচ

এই বিভাগের আরো সংবাদ