এডিপি বাস্তবায়ন ধীরগতিতে উদ্বিগ্ন আইবিএফবি
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » জাতীয়

এডিপি বাস্তবায়ন ধীরগতিতে উদ্বিগ্ন আইবিএফবি

বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি বা এডিপি বাস্তবায়ন ধীরগতিতে হওয়ায় উদ্বিগ্নতা প্রকাশ করেছেন ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ফোরাম অফ বাংলাদেশ (আইবিএফবি)।

প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, এডিপির বাস্তবায়ন তরান্বিত করতে সরকারের ব্যয় সক্ষমতা বৃদ্ধির পাশাপাশি ব্যাক্তি খাতের সম্পৃক্ততা বাড়ানো উচিত।

সম্প্রতি বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচি বা এডিপি বাস্তবায়নের সাম্প্রতিক চিত্র নিয়ে এক প্রতিবেদন প্রকাশ করে একটি জাতীয় দৈনিক। সরকারের পরিকল্পনা কমিশনের বাস্তবায়ন, পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ (ইএমআইডি) সূত্রে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়। সেটি গোচরে আসার পর আইবিএফবি এসব কথা বলেছে।

প্রাপ্ত তথ্য মতে, চলতি অর্থ বছরের জুলাই-ফেব্রুয়ারী মাসে এডিপি বাস্তবায়নের হার মাত্র ৩৪ শতাংশ, টাকার হিসাবে যা মাত্র ৩৪ হাজার ৬৭৪ কোটি টাকা। অথচ, চলতি অর্থ বছরের জন্য মূল এডিপি হিসেবে পরিচিত পরিকল্পনা কমিশনের আওতাধীন বরাদ্দ ছিল ৯৭ হাজার কোটি টাকা। বিগত পাঁচ অর্থ বছরের জুলাই-ফেব্রুয়ারী অর্থাৎ প্রথম আট মাসের মধ্যে এডিপি বাস্তবায়নের এ হার সর্বনিম্ম।

এডিপি বাস্তবায়নের এ ধীরগতিতে গভীরভাবে উদ্বিগ্নতা প্রকাশ করেছে আইবিএফবি।

প্রতিষ্ঠানটি বলছে, পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যের আলোকে গৃহীত সরকারের নানাবিধ উন্নয়ন পরিকল্পনা হলো এ এডিপি। যার সফল বাস্তবায়নের মাধ্যমে এ দেশের উন্নয়ন ও জনগণের কল্যাণ বিধানে সরকারের অংশীদারিত্ব পরিলক্ষিত হয়। কিন্তু এডিপি বাস্তবায়নের এ চিত্রের পরিপ্রেক্ষিতে আইবিএফবি বিশ্বাস করে যে, ব্যায় করার ক্ষেত্রে সরকারের সক্ষমতা আরও বেশি বাড়ানো দরকার। এজন্য প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণের মাধ্যমে সরকারের প্রশাসনিক সক্ষমতা বৃদ্ধি করা যেমন জরুরী, তেমনি এ সংক্রান্ত অনান্য জটিলতাগু̧লিও নিরসন করা দরকার।

আইবিএফবি’র বিশ্বাস, এছাড়া এডিপি বাস্তবায়নসহ সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন পরিকল্পনা ও কার্যক্রমে বেসরকারি খাতের সম্পৃক্ততা আরও বেশি বাড়ানো দরকার। এক্ষেত্রে পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপ বা পিপিপি’র আওতা ও কার্যক্রম বৃদ্ধিতে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ এখন সময়ের দাবীতে পরিণত হয়েছে।

অর্থসূচক/ডিএইচ

এই বিভাগের আরো সংবাদ