নারীকর্মী নিয়োগ: সৌদিতে লাইসেন্স হারাল ৮ এজেন্সি
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » আন্তর্জাতিক

নারীকর্মী নিয়োগ: সৌদিতে লাইসেন্স হারাল ৮ এজেন্সি

বাংলাদেশ থেকে নারীকর্মী নিয়োগের ব্যাপারে ‘দালালদের’ বিরুদ্ধে শর্ত ভঙ্গের অভিযোগ আগেই উঠেছিল। এবার তার ফল ভোগ করতে হলো সৌদির আরবের একাধিক রিক্রুটমেন্ট এজেন্সিকে।

আরব নিউজ এক খবরে জানিয়েছে, শ্রমিক নিয়োগ সংক্রান্ত জটিলতাকে কেন্দ্র করে গত এক বছরে ৮ এজেন্সির লাইসেন্স বাতিল করেছে দেশটির শ্রম মন্ত্রণালয়। আরও ৩০৫ এজেন্সিকে এ সংক্রান্ত নিয়ম নীতি লংঘনের ব্যাপারে সতর্ক করা হয়েছে।housemaids

মন্ত্রণালয়ের একজন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি জানান, শ্রমিক নিয়োগের ব্যাপারে যাবতীয় বিষয়ে রিক্রুটমেন্ট এজেন্সিগুলোর কার্যাবলিও পর্যায়ক্রমে  তদারকি করছে মন্ত্রণালয়।

এ ব্যাপারে এজেন্সিগুলোকে আরও সতর্ক হতে এবং শ্রমিক নিয়োগ সংক্রান্ত নিয়ম নীতি পরিপালনে করণীয় নিশ্চিত করতে মন্ত্রণালয় থেকে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

এদিকে, সৌদির শ্রম মন্ত্রণালয় থেকে লাইসেন্স বাতিলের এমন উদ্যোগ নেওয়ার মুখেও স্থানীয় বেশকিছু রিক্রুটমেন্ট এজেন্সি আবারও নিশ্চিত করেছে, তারা বাংলাদেশ থেকে গৃহকর্মী নেওয়া বন্ধ করে দিয়েছে।

এর জন্য গৃহকর্মী নিয়োগে অতিরিক্ত ব্যয়কেই দায়ী করছেন এ খাতের বিনিয়োগকারী ও বাংলাদেশ থেকে শ্রমিক নিয়োগকারী এজেন্সি কর্তা খালিদ আল জাহরানি।

তিনি জানান, গৃহকর্মী নিয়োগের জন্য সার্ভিস ফি বাবদ খরচ ধরা হয়েছে ৭ হাজার সৌদি রিয়েল। কিন্তু প্রকৃত খরচ ১২ হাজার থেকে ১৫ হাজার সৌদি রিয়েলের মধ্য পড়ে যায়।

জাহরানি বলেন, সৌদিতে নারীকর্মী পাঠানো বাবদ ৭ হাজার সৌদি রিয়েল সার্ভিস ফিতে একমত হয় বাংলাদেশ। কিন্তু তা মানা হচ্ছে না।

প্রসঙ্গত, গত বছরের শেষ দিকে জানানো হয়, সৌদি আরব আরব আসতে ঢাকায় ৩৬ হাজার নারীকর্মী প্রস্তুত আছে। বাংলাদেশও প্রতি মাসে ৪ হাজার করে কর্মী পাঠাচ্ছে।আরও জানানো হয়, সৌদিতে ইতোমধ্যে বাংলাদেশ থেকে ২০ হাজার নারীকর্মী পৌঁছেছে।

দেশটিতে ১২ লাখ বাংলাদেশি শ্রমিক কর্মরত রয়েছে।

অর্থসূচক/শাহীন

এই বিভাগের আরো সংবাদ