উৎপাদন বন্ধে বিনিয়োগ বোর্ডে আবেদন করবে অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » খাত/কোম্পানি পর্যালোচনা

উৎপাদন বন্ধে বিনিয়োগ বোর্ডে আবেদন করবে অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ

Olympic

অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজের লোগো

২০১৫ সালের ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজের বৈঠকে সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কোম্পানিটির বলপয়েন্ট কলম, সিরিয়াল বারস এবং চাটনির উৎপাদন বন্ধের আবেদন বিনিয়োগ বোর্ডে দাখিলের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানানো হয়েছে। প্রসঙ্গত, চলতি বছরের ৩১ জানুয়ারি থেকে বলপয়েন্ট কলম, সিরিয়াল বারস এবং চাটনির উৎপাদন বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ।

ডিএসইর প্রতিবেদনে আরও জানানো হয়েছে, এই আবেদনে বলপয়েন্ট কলম, সিরিয়াল বারস এবং চাটনির উৎপাদন কারখানার সনদ বাতিলেরও অনুরোধ জানানো হবে। একইসঙ্গে ওই কারখানাগুলোর পরিত্যক্ত মেশিনারি ও যন্ত্রপাতি বিক্রয়ের অনুমতির জন্যও আবেদন করবে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত এই কোম্পানিটি।

কোম্পানির বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, বলপয়েন্ট কলম, সিরিয়াল বারস এবং চাটনির উৎপাদনের জন্য ব্যবহৃত অনেক মেশিনারি ও যন্ত্রপাতির মেয়াদ ইতোমধ্যে উত্তীর্ণ হয়েছে। ফলে পরিত্যক্ত হিসেবে ক্রয়ের জন্য যুক্তিসংগত দাম দিতে আগ্রহী কারও সন্ধান পাওয়া গেলেই সেগুলো বিক্রয় করা হবে।

আইআরসি, ইআরসি, টিন, ই-টিন, ভ্যাট রেজিস্ট্রেশন, ট্রেড লাইসেন্স, কারখানার সনদ, কারখানার নিবন্ধন ইত্যাদি বাতিল এবং প্রয়োজনীয় সংশোধনীর জন্য এই আবেদনপত্র আমদানি-রপ্তানি বিভাগের প্রধান নিয়ন্ত্রক, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর), আয়কর ও ভ্যাট এবং সিটি কর্পোরেশনের সংশ্লিষ্ট বিভাগে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অথবা স্থানীয় ইউনিয়ন কাউন্সিলের চেয়ারম্যান, কারখানার প্রধান পরিদর্শক, ফায়ার সার্ভিস প্রভৃতি বিভাগেও এই আবেদন পাঠানো হবে।

বিনিয়োগ বোর্ডের অনুমোদনের উপর ভিত্তি করে পরিত্যক্ত মেশিনারি ও যন্ত্রপাতি বিক্রয়ের পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে; সাশ্রয়ী মূল্যে বিক্রি করা হবে সেগুলো। এসব পণ্যের ক্রেতার কাছেই মেয়াদোত্তীর্ণ মেশিনারি এবং যন্ত্রপাতিগুলো হস্তান্তর করা হবে।

কোম্পানির পরবর্তী এজিএমে শেয়ারহোল্ডারদের অনুমোদনের পরিপ্রেক্ষিতে বলপয়েন্ট কলম, সিরিয়াল বারস এবং চাটনি কারখানার মেশিনারি ও যন্ত্রপাতি এবং প্রাসঙ্গিক সনদ, পারমিট, নিবন্ধন সনদ ইত্যাদি বাতিল অথবা প্রয়োজনীয় পরিমার্জনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

অর্থসূচক/এআরএস/

এই বিভাগের আরো সংবাদ