স্বাভাবিক সরবরাহে স্থির সবজির দাম
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » পণ্যবাজার

স্বাভাবিক সরবরাহে স্থির সবজির দাম

শীত বিদায় নিয়েছে বেশ আগে। তবে বাজারে সমানে মিলছে শীতের সবজি। দামও বেশি নয়, বিদায়েবেলা বলেই হয়তো। ক্রেতাদের আকৃষ্ট করতে বিক্রেতারা বলছেন, এই শেষ, আর পাবেন না। রাজধানীর একাধিক বাজার ঘুরে দেখা গেছে, সবজিসহ নিত্য পণ্যের দামে তেমন একটা হেরফের নেই বললেই চলে।

বিক্রেতারা জানালেন, সরবরাহ স্বাভাবিক থাকায় দামে নড়চড় নেই। বছরের এই সময়ে বাজার তুলনামূলক স্থিতিশীল থাকে বলে জানালেন তারা।

বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে আলোচনা চলছিল রসুন নিয়ে। টানা bazarবাড়তে গত সপ্তাহে এ মসলা পণ্যের দাম কিছুটা থমকে দাঁড়িয়েছে। বর্তমানে প্রতিকেজি দেশি রসুন বিক্রি হচ্ছে ১৮০ টাকায় এবং আমদানি রসুন বিক্রি হচ্ছে ১৯০ টাকায়। তবে পেঁয়াজের দাম কিছুটা বেড়েছে। বাজারে দেশি পেঁয়াজ কেজিপ্রতি ৩৫ টাকায় ও আমদানি পেঁয়াজ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এ হিসেবে পেঁয়াজ দেশি-বিদেশি ভেদে ২ থেকে ৫ টাকা বেড়েছে।

বিক্রেতাদের দাবি, অন্যান্য মসলার মধ্যে ধনে, এলাচ, লবঙ্গ, দারুচিনি ও গোল মরিচের দাম কমেছে। তবে বাজার ঘুরে এর সত্যতা পাওয়া যায়নি।

মজুদযোগ্য অন্যান্য পণ্যের মধ্যে সব ধরনের চাল, ডাল, ভোজ্য তেল, গুঁড়োদুধের দামে কোনো পরিবর্তন হয়নি। তবে চিনির দাম বেড়েছে। বর্তমানে বাজারে প্রতিকেজি চিনি ৪৮ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

মাংসের মধ্যে ফার্মের মুরগির দাম বেড়েছে বলে দাবি করেছেন ক্রেতারা। তবে বিক্রেতারা জানিয়েছেন, দাম উল্টো কমেছে। বাজারে বর্তমানে লেয়ার মুরগি ১৭০ ও বয়লার ১৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। তবে সব ধরনের ডিম, গরুর মাংস, খাসির মাংস ও দেশি মুরগির দাম আগের মতই আছে। একইভাবে মাছের দামও আগের মত রয়েছে।

সবজি দাম সম্পর্কে জানতে চাইলে কারওয়ান বাজারের এক বিক্রেতা জানালেন, সকালে একটু বেশি থাকলেও সন্ধ্যার দিকে দাম কমে আসে। তবে সব পণ্যের দামেই স্বাভাবিক।

বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বর্তমানে ফুলকপি প্রতিটি ১০ থেকে ১৫ টাকা, বাঁধাকপি ১৫ থেকে ২০ টাকা, বরবটি ৫০ টাকা, ঢেড়স ৪৫ টাকা, বেগুন ৩০ টাকা, টমেটো ২০ টাকা, করলা ৫০ টাকা, শিম ৩০, কাঁচা মরিচ ৪০, পেঁপে ২০ টাকা টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

নজরুল নামের এক বিক্রেতা জানালেন, বাজারে এখনও শীতের সবজি থাকায় দাম কোন পরিবর্তন হচ্ছে না। ফুলকপি, বাঁধাকাপি, শিম ফুরিয়ে এলেই অন্যান্য সবজির দাম বাড়বে।

এসবি

এই বিভাগের আরো সংবাদ