দুদকে হাজির হননি নূর হোসেনের স্ত্রী, আবার নোটিশ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » জাতীয়

দুদকে হাজির হননি নূর হোসেনের স্ত্রী, আবার নোটিশ

নারায়ণগঞ্জের আলোচিত সাত খুন মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেন স্ত্রী রুমা হোসেনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করা হলেও তিনি হাজির হননি। এবার পুলিশের মাধ্যমে তাকে তলবি নোটিশ পাঠিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক)।

নূর হোসেনের দাখিলকৃত সম্পদের হিসাব যাচাই-বাছাইয়ের জন্য আজ বৃহস্পতিবার তাকে দুদকের প্রধান কার্যলয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার কথা ছিল। কিন্তু রুমা হোসেন আজ দুদকে হাজির হননি।

naraongong

নারায়ণগঞ্জ সাত খুন: ফাইল ছবি

এরই পরিপ্রেক্ষিতে আজ বৃহস্পতিবার রুমা হোসেনকে আবারও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করে নোটিশ পাঠিয়েছেন দুদকের উপপরিচালক ও অনুসন্ধান কর্মকর্তা মো. জুলফিকার আলী। এবার নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) মাধ্যমে পাঠানো নোটিশটি হয়েছে। নোটিশে তাকে আগামী ৯ মার্চ সকাল ১০টায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে এসে বক্তব্য প্রদানের জন্য তাগাদা দেওয়া হয়েছে।

দুদক সূত্র অর্থসুচককে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছে।

সূত্র মতে, নারায়ণগঞ্জের সাবেক কাউন্সিলর ও সাত খুন মামলার প্রধান আসামি নূর হোসেনের বিরুদ্ধে অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ আসলে তা আমলে নিয়ে অনুসন্ধানে নামে দুদক। ২০১৪ সালের ১৯ মে অনুসন্ধান শুরু করার পর নূর হোসেনের নামে-বেনামে প্রায় ৮ কোটি টাকার অবৈধ সম্পদের খোঁজ পায় দুদক।

ভারতে পলাতক থাকার পর তাকে বাংলাদেশে নিয়ে আসা হলে তার যাবতীয় সম্পদ বিবরণী চেয়ে নোটিশ দেয় সংস্থাটি। পরে গত বছরের ১৩ ডিসেম্বর গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগার-২ এর জেল সুপারের মাধ্যমে সম্পদ বিবরণী দাখিল করেন নূর হোসেন। তবে তার জমাকৃত ওই সম্পদ বিবরণীতে মাত্র এক কোটি ৭৮ লাখ টাকার সম্পদের হিসাব দেখান। সেখানে তার স্ত্রী রুমা হোসেনকেও একটি বাড়িসহ বেশ কিছু সম্পদের মালিক দেখানো হয়। তাই রুমা হোসেনের নামে উল্লেখ করা সম্পদগুলো সঠিক কি-না তা জানতে গত ২২ ফেব্রুয়ারি জিজ্ঞাসাবাদের জন্য প্রথম নোটিশ পাঠায় দুদকের অনুসন্ধান কর্মকর্তা।

নোটিশে আজ বৃহস্পতিবার দুদকের প্রধান কার্যালয়ে উপস্থিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু দুদকের দেওয়া সময়ে উপস্থিত হননি রুমা হোসেন। এমনকি না আসার ব্যাপারে কোনো কারণ জানিয়ে সময়ও চাননি তিনি। তাই এবারে তাগাদা দিয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসির মাধ্যমে নোটিশ পাঠানো হয়েছে।

সূত্র মতে, এর আগে গত ১৫ ফেব্রুয়ারি নূর হোসেনের দাখিলকৃত সম্পদ বিবরণী যাচাইয়ের জন্য এবং আরো কোনো সম্পদ আছে কি-না তা অনুসন্ধানে নারায়গঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জে সরেজমিনে পরিদর্শনে গিয়েছিলেন দুদকের অনুসন্ধান কর্মকর্তা মো. জুলফিকার আলী।

উল্লেখ, ১৯৮৫ সালে ট্রাক হেলপার থেকে ১৯৮৭ সালে ট্রাক ড্রাইভার, ১৯৯১ সালে ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান, ২০১২ সালে নারায়নগঞ্জের সিটির কাউন্সিলর হন নূর হোসেন। এরপর ২০১৪ সালের ৩০ এপ্রিল কাউন্সিলর নজরুল ইসলামসহ সাত খুনের ঘটনার পর ভারতে পালিয়ে যান তিনি। পরে বাংলাদেশ সরকারের হস্তক্ষেপে ভারত থেকে তাকে নিয়ে আসা হয়। তিনি এখন গাজীপুরের কাশিমপুর কারাগার-২ এর জেল হাজতে কারাবাস করছেন।

অর্থসূচক/এমআই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ