৪৫০০ কোটি ডলারের বৈদেশিক বিনিয়োগ চায় ইরান
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » আন্তর্জাতিক

৪৫০০ কোটি ডলারের বৈদেশিক বিনিয়োগ চায় ইরান

ইরানের অর্থমন্ত্রী আলি তায়েবনিয়া বলেছেন, গত মাসে বিশ্বশক্তিদের সঙ্গে হওয়া পরমাণু চুক্তি বাস্তবায়নে তার দেশের দরকার ৪৫০০ কোটি মার্কিন ডলার।

সংবাদ সম্মেলনে ইরানের অর্থমন্ত্রী আলি তায়েবনিয়া। ছবি: দ্য ডন

সংবাদ সম্মেলনে ইরানের অর্থমন্ত্রী আলি তায়েবনিয়া। ছবি: দ্য ডন

গতকাল শনিবার সাংবাদিকদের তিনি একথা বলেন।

আলি তায়েবনিয়া বলেন, আগামী ইরানিয়ান বর্ষপঞ্জিতেই শুধু তাদের দরকার ১৫০০ কোটি ডলারের প্রত্যক্ষ বৈদেশিক বিনিয়োগ। ইরানের নতুন বছরটি শুরু হবে আগামী ২০ মার্চ থেকে।

গত মাসে ঐতিহাসিক চুক্তি হওয়ার ফলে ইরানের ওপর থাকা আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা ওঠে যায়। পারমাণবিক কার্যক্রম দমনে ইরান সব শর্ত পূরণে সক্ষম হয়েছে জাতিসংঘ এমন ঘোষণা দেওয়ার পর বিশ্বশক্তিরা দেশটির ওপর থাকা সব ধরনের নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়।

সেই নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের পর ইরান এখন অর্থনৈতিক ব্রেকথ্রো (স্বাধীনতা) প্রত্যাশা করছেন। তারা চাচ্ছেন, বিদেশে আটক থাকা তাদের সম্পদে প্রবেশাধিকার এবং  আরও মুক্তভাবে তেল বিক্রি করতে।

ইতোমধ্যে বিদেশে আটকে থাকা ১০,০০০ কোটি ডলারেরও বেশি মূল্যের সম্পদে প্রবেশাধিকার পেয়েছে ইরান।

তায়েবনিয়া বলেন, ইরানের কৌশলগত অবস্থান, রাজনৈতিক স্থীতিশীলতা এবং ৮ কোটি জনসংখ্যা এটিকে সমৃদ্ধ পারস্য রাষ্ট্রে পরিণত করেছে। এসব কারণেই বৈদেশিক বিনিয়োগের জন্য এদেশ লোভনীয় স্থান।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন,  এসব কারণেই আগামী বছর ৪৫০০ কোটি ডলার বৈদেশিক বিনিয়োগ চায় ইরান। এর মধ্যে ১৫০০ কোটি ডলার হতে হবে প্রত্যক্ষ বিনিয়োগ।

অর্থমন্ত্রী বলেন, এ মাসের শুরুতে জাপানের সঙ্গে ১০০০ কোটি ডলারের চুক্তি করেছে ইরান। অন্য দেশগুলোর সঙ্গেও এরকমই চুক্তির আশা করছে দেশটি।

তেল থেকে যে আয় হয় বর্তমানে তার ওপর নির্ভরতা কমাতে চাচ্ছে ইরান। সেইসঙ্গে কর, পর্যটন, কৃষি ও আয়ের অন্য উৎসের ওপর জোর দিচ্ছে দেশটি।

তায়েবনিয়া এইও বলেন, দেশের অর্থনীতি শক্তিশালী করতে সক্ষম হলেই কোনও বৈদেশিক বিনিয়োগকে স্বাগত জানাবে ইরান। অন্যথায় নয়।

তিনি বলেন, দেশের উৎপাদন, রপ্তানি, মুলধন ও প্রযুক্তি খাতের উন্নয়ন ঘটাবে না এমন প্রস্তাবকে আমরা কোনওমতেই স্বাগত জানাবো না।

অর্থসূচক/ডিএইচ

এই বিভাগের আরো সংবাদ