ভিন্ন ভাষার দেশেও একুশ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » আন্তর্জাতিক

ভিন্ন ভাষার দেশেও একুশ

২১শে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষণা করা হয় ১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর। বিভিন্ন দেশের ভাষা দিবস থেকে ঘটনার প্রেক্ষাপট বিবেচনায় বাংলাদেশের ভাষা দিবসকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে ঘোষণা করে জাতিসংঘের সহযোগী সংস্থা ইউনেস্কো। এরপর থেকে বিশ্বের অনেক দেশেই ২১শে ফেব্রুয়ারিকে যথাযথ মর্যাদায় পালন করা হচ্ছে।

এবারও তার ব্যক্তিক্রম হচ্ছে না। ব্রিটিশ ও পশ্চিমা দেশগুলোতে আজ রোববার সাপ্তাহিক ছুটির দিন। এর পাশাপাশি আজই আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হওয়ায় সেখানকার বাসিন্দারা এই দিন উপলক্ষে বিশেষ কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। এই দিনটি যথাযথ মর্যাদায় পালনের জন্য বিশেষ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিভিন্ন দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। এছাড়া বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি সংগঠনের উদ্যোগে বিশ্বের বিভিন্ন এই দিনটি পালিত হচ্ছে।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস যথাযথ মর্যাদায় পালিত হচ্ছে প্রতিবেশী রাষ্ট্র ভারতে। এ উপলক্ষে বাণীও দিয়েছেন দেশটির পশ্চিমবঙ্গের মূখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এছাড়া ২১শে ফেব্রুয়ারির শহীদদের স্মরণে গত শুক্রবার বিড়লার গ্ল্যানেটোরিয়ামের বিপরীতে একটি উদ্যানে ভাষা শহীদ স্মারকের আরবণ উন্মোচন করেন মমতা।

আনন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে যুক্তরাজ্যের স্থানীয় সময় দুপুর ২টা থেকে বিশেষ কর্মসূচি ঘোষণা করেছে কোয়ান্টলেন পলিটেকনিক ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ। বিভিন্ন কাউন্টিতে নির্দিষ্ট স্থানে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এছাড়া যুক্তরাজ্যের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যের বসবাসকারী বাংলাদেশিরাও একুশে ফেব্রুয়ারি পালনে বিশেষ কর্মসূচি গ্রহণ করেছেন।

International Mother language Day

যুক্তরাজ্যের একটি অঙ্গরাজ্যে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে হাজির হন স্থানীয়রা।

অন্যদিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে ৩ দিনের বিশেষ কর্মসূচির উদ্যোগ নিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার বেসরকারি সংগঠন বিবলিওনেফ। আগামীকাল ২২ ফেব্রুয়ারি থেকে ২৪ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত শিশুদের নিয়ে বিভিন্ন কর্মসূচির উদ্যোগ নিয়েছে সংগঠনটি।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেও যথাযথ মর্যাদায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এবারের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে, ‘মানসম্পন্ন শিক্ষা, নির্দেশনার ভাষা এবং শিক্ষার ফল’।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ২০১৬ উপলক্ষে দেওয়া বাণীতে ইউনেস্কোর মহাপরিচালক ইরিনা বোকোভা বলেন, বহুভাষী জাতির মানসম্মত শিক্ষার অপরিহার্য উপাদান হলো মাতৃভাষা। এর মাধ্যমে নারী, পুরুষ ও সমাজের ক্ষমতায়নের ভিত্তি হিসেবে কাজ করে।

অন্যদিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসকে সম্মান জানাতে বাংলাসহ বিশ্বের ১২টি ভাষায় গাওয়া হলো শহীদদের স্মরণে আবদুল গাফফারের লেখা অমর একুশের শোকসঙ্গীত, ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি/ আমি কি ভুলিতে পারি…’

ভাষাগুলো হলো- মালয় (মালয়েশিয়া), আরবি (লেবানন), জার্মান (জার্মানি), নেপালি (নেপাল), হিন্দি (ভারত), ফরাসি (ফ্রান্স), স্পেনীয় (ভেনেজুয়েলা), রুশ (রাশিয়া), ইংরেজি (যুক্তরাষ্ট্র), চীনা (হংকং) ও ইতালীয় (ইতালি)। গেয়েছেন ওই ভাষাভাষী দেশের শিল্পীরা।

অর্থসূচক/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ