ইসলামী ব্যাংক পরিচালকের বিরুদ্ধে দুর্নীতির নানা অভিযোগ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » লিড নিউজ
৫০ কোটি টাকার অস্বাভাবিক লেনদেন

ইসলামী ব্যাংক পরিচালকের বিরুদ্ধে দুর্নীতির নানা অভিযোগ

ইসলামী ব্যাংকের অডিট কমিটির চেয়ারম্যান ও স্বতন্ত্র পরিচালক এন আর এম বোরহান উদ্দিনের ব্যাংক হিসাবে ৫০ কোটি টাকার অস্বাভাবিক লেনদেনের তথ্য পেয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। ৩ ব্যাংকের ৫টি অ্যাকাউন্টে এ অস্বাভাবিক লেনদেনের হদিস পাওয়া যায়।

দুদক সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে। সূত্র মতে, শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের ২টি, আইসিবি ইসলামী ব্যাংকের ১টি ও ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশের ২টি অ্যাকাউন্টের মাধ্যমে এই অস্বাভাবিক লেনদেন করেছেন বোরহান উদ্দিন।ibbl-dudok

আজ বুধবার দুদকের প্রধান কার্যালয়ে বেলা সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর দেড়টা পর্যন্ত দুদক উপপরিচালক ও অনুসন্ধান কর্মকর্তা মো. সামছুল আলম বোরহান উদ্দিনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন।

ডিএমডি নিয়োগে অনিয়ম ও অডিট আপত্তি নিষ্পত্তিতে প্রভাব খাটানোসহ তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির নানা অভিযোগ আছে। এসব অভিযোগ অনুসন্ধানে দুদক আজ তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সাংবাদিকদের অনেক প্রশ্নেরই উত্তর দেননি বোরহান উদ্দিন।

তবে তিনি অভিযোগ করে বলেন, যেহেতু বিষয়টি অনুসন্ধান পর্যায়ে রয়েছে তাই কিছু বলতে পারছি না। তবে দুদক আমাকে হয়রানি করছে।

অভিযোগের বিষয়ে দুদক সূত্রে জানা যায়, বোরহান উদ্দিনের ৩ ব্যাংকের ৫টি অ্যাকাউন্টে প্রায় ৫০ কোটি টাকার অস্বাভাবিক লেনদেনের অভিযোগ পায় দুদক। এর মধ্যে শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের ২টি, আইসিবি ইসলামী ব্যাংকের ১টি ও ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশের ২টি অ্যাকাউন্টে অস্বাভাবিক লেনদেনের তথ্য পায় দুদক।

অভিযোগ রয়েছে, তিনি এমন ব্যক্তির সঙ্গে লেনদেন করেছে যাদের সঙ্গে তার কোনো ব্যবসায়িক সম্পর্ক নেই। ওই লেনদেনের মাধ্যমে মোটা অংকের টাকা বিদেশে পাচার হয়েছে বলে জানানো হয়েছে।

সূত্র আরও জানায়, ইসলামী ব্যাংকের পরিচালক এন আর এম বোরহান উদ্দিন ক্ষমতার অপব্যবহার করে তথ্য গোপন করে ডিএমডি নিয়োগে সহায়তা করেছেন। এছাড়া তিনি ব্যাংকের বিভিন্ন অডিট আপত্তি নিস্পত্তিতে পক্ষপাতিত্ব ও প্রভাব খাটিয়ে অসৎ উদ্দেশ্য হাসিল করেছেন। দুদকের আসা ৭৩ পাতার এমন অভিযোগ যাচাই-বাছাই শেষে চলতি মাসে অনুসন্ধানের সিদ্ধান্ত নেয় কমিশন।

দুদক পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেন অনুসন্ধান কাজ তদারকি করছেন।

এই বিভাগের আরো সংবাদ