এবার বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটার হচ্ছে রাজশাহীতে
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » লিড নিউজ

এবার বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটার হচ্ছে রাজশাহীতে

রাজধানী ঢাকার পর এবার রাজশাহীতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নভোথিয়েটার নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। রাজশাহীর শহীদ কামারুজ্জামান পার্কে ২ দশমিক ৩০ একর জমিতে এই নভোথিয়েটার নির্মাণ করা হবে। এ লক্ষ্যে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নভোথিয়েটার, রাজশাহী স্থাপন’ নামে প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)।

আজ মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে একনেক চেয়ারপারসন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে একনেক সভায় এর অনুমোদন দেওয়া হয়। এছাড়া এই সভায় আরও ৮টি প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ.হ.ম. মুস্তফা কামাল।

একনেক সভার বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের বিফ্রিংয়ে তিনি জানান, শিক্ষার্থীদেরকে স্পেস বিষয়ে ধারণা দিতে এবার রাজশাহীতে নভোথিয়েটার স্থাপন করা হবে। ২২২ কোটি ৩ লাখ টাকা ব্যয়ের প্রকল্পটি জুলাই ২০১৫ হতে জুন ২০১৮ মেয়াদে বাস্তবায়ন করবে বিজ্ঞান প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়। এর নির্মাণ কাজ শেষ হলে উত্তরবঙ্গের শিক্ষার্থীরা বিজ্ঞান বিষয়ক জ্ঞান অর্জনে সুবিধা পাবে। সেইসঙ্গে সাধারণ জনগণের জন্য বিনোদনের ব্যবস্থাও হবে।

মন্ত্রী বলেন, ২০২১ সালের মধ্যে ডিজিটাল বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির গুরুত্ব অপরিসীম। এদের মধ্যে স্পেশ সায়েন্স আমাদের প্রাত্যহিক জীবনে যোগাযোগ, অগ্রিম আবহাওয়া বার্তা, দুযোর্গ ব্যবস্থাপনা, তথ্য প্রযুক্তি, গ্লোবাল পজিশনিং ইত্যাদি প্রদান করে থাকে। বিশেষ করে শিক্ষার্থীদের জন্য স্পেশ শিক্ষা গুরুত্বপূর্ণ।

শিক্ষার্থীদেরকে স্পেস বিষয়ে শিক্ষা দেওয়ার জন্য এবার রাজশাহীতে নভোথিয়েটার স্থাপন করা হবে। ২২২ কোটি ৩ লাখ টাকা ব্যয়ের প্রকল্পটি জুলাই ২০১৫ হতে জুন ২০১৮ মেয়াদে বাস্তবায়ন করবে বিজ্ঞান প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়। এর নির্মাণ কাজ শেষ হলে উত্তরবঙ্গের শিক্ষার্থীরা বিজ্ঞান বিষয়ক জ্ঞান অর্জনে সুবিধা পাবে। সেইসঙ্গে সাধারণ জনগণের জন্য বিনোদনের ব্যবস্থাও হবে।

তিনি আরও বলেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির প্রসার ও সাধারণ জনগণের মধ্যে স্পেস বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষা ছড়িয়ে পড়লে আমাদের সমাজ থেকে কুসংস্কার দূর হবে। পর্যায়ক্রমে প্রতিটি বিভাগে নভোথিয়েটার স্থাপন করা হবে।

মুস্তাফা কামাল বলেন, আজকের একনেক সভায় মোট ৯টি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে৷ প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নে প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ৪ হাজার ৯৬১ কোটি ৪২ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি অর্থায়ন থেকে ৪ হাজার ৯৪৫ কোটি ৯ লাখ টাকা এবং সংস্থার নিজস্ব অর্থায়ান ১৬ কোটি ৩৩ লাখ টাকা দেওয়া হবে।

একনেকে অনুমোদিত অন্য প্রকল্পগুলো হলো- ২১৯ কোটি টাকা ব্যয়ে বাংলাদেশ পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটে ১২টি ব্যারাক নির্মাণ; ১৯৪ কোটি টাকা ব্যয়ে ঢাকার মালিবাগে সরকারি কর্মকর্তা/কর্মচারীদের জন্য ৪৫৬টি ফ্ল্যাট নির্মাণ; ১২০ কোটি টাকা ব্যয়ে মিরপুর ৬ নম্বর সেকশনে গণপূর্ত অধিদপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের চন্য ২৮৮টি আবাসিক ফ্ল্যাট নির্মাণ; ৮১ কোটি টাকা ব্যয়ে কুমিল্লার সিটি কর্পোরেশনের রাস্তা, ড্রেন ও ফুটপাত উন্নয়ন; ৬৭ কোটি টাকা ব্যয়ে রাজশাহী মহানগরীতে পানি সরবরাহ ব্যবস্থার পুনঃসংস্কার; ৪৩ কোটি টাকা ব্যয়ে ময়মনসিংহ-গফরগাঁও-টোক সড়কের ৭২ কিলোমিটারে বানার নদীর উপর ২৮২ দশমিক ৫৫৮ মিটার দীর্ঘ পিসি গার্ডার সেতু নির্মাণ; ১৯৫ কোটি টাকা ব্যয়ে সস্রাইল-আলফাডাঙ্গা সংযোগ সড়ক উন্নয়নসহ ফরিদপুর সড়কের উন্নয়ন এবং ৩ হাজার ৮১৬ কোটি টাকা ব্যয়ে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে ৪ লেনে উন্নীতকরণ (৩য় সংশোধিত প্রকল্প)।

ব্রিফিংয়ের সময় পরিকল্পনা সচিব তারিক-উল-ইসলাম, সাধরণ অর্থনীতি বিভাগের সিনিয়র সচিব ড. শামসুল আলম, পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব কানিজ ফাতেমা উপস্থিত ছিলেন।

অর্থসূচক/এমআই/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ