আর্থিক অন্তর্ভূক্তি: যেকোনো পদক্ষেপে প্রস্তুত কেন্দ্রীয় ব্যাংক
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » ব্যাংক-বিমা

আর্থিক অন্তর্ভূক্তি: যেকোনো পদক্ষেপে প্রস্তুত কেন্দ্রীয় ব্যাংক

বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান বলেছেন, সব স্তরের মানুষকে আর্থিক অন্তর্ভূক্তিমূলক সেবার আওতায় আনতে হবে। আর এ জন্য প্রয়োজনীয় যেকোনো পদক্ষেপ নিতে কেন্দ্রীয় ব্যাংক প্রস্তুত আছে।

শনিবার রাজধানীর হোটেল ওয়েস্টিনে ‘ন্যাশনাল ফাইন্যান্সিয়াল ইনক্লুশন স্ট্রেটেজি ডেভেলপমেন্ট ফর বাংলাদেশ’ শীর্ষক এক জাতীয় আলোচনায় তিনি এ কথা বলেন।

Governor Atiur Rahman

বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর আতিউর রহমান। (ফাইল ছবি)

বাংলাদেশ ব্যাংক এবং ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ যৌথভাবে এ আলোচনার আয়োজন করে।

গভর্নর বলেন, এক সময় বলা হতো বিদ্যুৎ চাই, এরপর সবার জন্য বিদ্যুৎ চাই। ঠিক তেমনি এখন শুধু আর্থিক অন্তর্ভূক্তি নয়, বরং সবার জন্য আর্থিক অন্তর্ভূক্তির কথা বলা হচ্ছে। এজন্য যেকোনো পদক্ষেপ নিতে বাংলাদেশ ব্যাংক প্রস্তুত আছে।

“এখন আর্থিক অন্তর্ভূক্তি কার্যক্রম চালানো হতে পারে প্রাতিষ্ঠানিক পর্যায়ে উন্নতির জন্য। যেমন, বেসরকারি খাতে পেনশন চালু করা যেতে পারে।”

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদ।

তিনি বলেন, আর্থিক অন্তর্ভূক্তিতে আমাদের শুরুটা হয়েছিল মাইক্রো ক্রেডিটের মাধ্যমে। এখন তা পরবর্তী স্তরে উন্নীত হয়েছে। আমরা এটাকে বলছি মাইক্রো সেভিংস। এখন জাতীয় উন্নয়নের জন্য সব স্তরের মানুষকে আর্থিক অন্তভূক্তিমূলক সেবার আওতায় প্রয়োজন রয়েছে।

তিনি বলেন, আমাদের সঞ্চয় কম বলে বিনিয়োগও কম। আমরা যদি ডিজিটাল ইনক্লুশন চালু করতে পারি তবে জাতীয় পর্যায়ে আয়ের সাথে সাথে সঞ্চয়ের অনুপাত বাড়বে।

মুখ্য সচিব আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী আমাদের প্রায় বলেন, আমরা প্রান্তিক মানুষের জন্য কাজ করছি। নিম্ন স্তরের মানুষের জন্য সোশ্যল সেফটি নেটের ব্যবস্থা করা এর মধ্যে অন্যতম।

আর্থিক অন্তর্ভূক্তির জন্য নিরাপদ ও সহজ ব্যবস্থা চালু প্রয়োজন উল্লেখ করে তিনি বলেন, জিটুজি, জিটুপি, পিটুজি ও পিটুপি পর্যায়ে পেমেন্ট ব্যবস্থা উন্নয়ন করতে হবে।

ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের সচিব এম আসলাম আলম বলেন, আমাদের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ৮ শতাংশে উন্নীত করার দরকার আছে। এজন্য ক্ষুদ্র থেকে ক্ষুদ্রতর পর্যায়ে আমাদের নজর দিতে হচ্ছে।

মাইক্রো ক্রেডিটে সুদের হার খুব বেশি উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে প্রায়ই শুনি সুদের হার কমানো হোক। কিন্তু মাইক্রো ক্রেডিটে সুদের হার নিয়ে কেউ কোনো কথাই বলে না। এটা কমানো উচিত। একটি টেকসই ও কার্যকর আর্থিক ব্যবস্থার জন্য জাতীয় পর্যায়ে আর্থিক অন্তর্ভূক্তি কৌশল প্রণয়ন করা জরুরি।

আলোচনা অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে ছিলেন কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এস কে সুর চৌধুরী, বিটিআরসির চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ, ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আনিস এ খান প্রমুখ।

অর্থসূচক/এসবি/শাহীন

এই বিভাগের আরো সংবাদ