ওদের কলরবে মুখরিত মেলা প্রাঙ্গণ
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » বই মেলা

ওদের কলরবে মুখরিত মেলা প্রাঙ্গণ

তাড়াহুড়োর স্কুল নেই, নেই ফেলে রাখা হোমওয়ার্কের বাকি কাজ। তবুও তাড়া আছে, আজ মেলায় যাবার দিন! তাড়াহুড়ো করেই বাবার সঙ্গে মিরপুর থেকে অমর একুশে গ্রন্থমেলায় এসেছে পিয়াল। মেলায় মনের মতো বই খুঁজবে সে, কয়েকটা কিনবে নিজের জন্য আর কয়েকটা বন্ধুদের জন্য।

ধানমণ্ডির রাইসা কিনতে চায় রূপকথা আর কমিকসের বই। রামপুরার রেহানা মেলায় এসেছে বই পড়তে ভালোবাসে বলে। পছন্দের বইগুলো এখানে সব পাওয়া যায় বলে। আর এখানে প্রিয় লেখকের সঙ্গেও দেখা হয়ে যাওয়ার সুযোগ আছে।

সব মিলিয়ে মেলার দ্বিতীয় শিশুপ্রহরটি জমতে শুরু করেছে। ১১টায় মেলার গেট খুলে দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তাড়াহুড়ো করে প্রবেশ করেছে শিশুর দল। মা-বাবা, ভাই-বোন, চাচা-মামা, খালা-ফুফুর হাত ধরে মেলায় ভিড় করেছে শিশুরা। স্টল আর প্যাভিলিয়নগুলো মুখরিত তাদের কলরবে।

ভিড়ের মধ্যে কোথাও কোথাও উড়ছে লাল-নীল বেলুন। নতুন বই নেওয়ার পর সেদিকেই ছুটছে শিশুরা। শুধু বই কিনে দিলেই চলবে না; বাড়ি ফেরার আগে রঙিন বেলুনের চাহিদাও রয়েছে তাদের।

আজ শুক্রবার সকালে শুরু হয়েছে মেলার ২য় সপ্তাহের প্রথম শিশুপ্রহর। আগামীকাল শনিবারও একই সময়ে শিশুপ্রহর থাকবে। সপ্তাহের এই ২ দিন সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত বই মেলা শুধু শিশুদেরই। এ সময়টি কেবল শিশুদের জন্য মেলা প্রাঙ্গণ উন্মুক্ত রয়েছে। বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণ ও শহীদ সোহরাওয়ার্দী উদ্যান দুটি অংশই কেবলই শিশুদের জন্য বরাদ্দ।

শিশুরা যাতে নির্বিঘ্নে ঘুরে ফিরে তাদের পছন্দের বই কিনতে পারে- সেদিকে বিশেষ নজর রাখছে বাংলা একাডেমি। শিশুপ্রহর উপলক্ষে কয়েকটি স্টল ও প্যাভিলিয়ন সেজেছে নতুন সাজে। নিরাপত্তা ব্যবস্থাও খুব ভালো।

শুক্রবার সকাল এগারোটার দিকে দেখা গেছে, রাজধানীর বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সকাল বেলায় মেলা প্রাঙ্গণে ভিড় করতে শুরু করেছে কোমলমতি শিশুরা। শিশুর পদচারণায় উৎসবের আমেজ ভাসছে মেলা প্রাঙ্গণ।

এছাড়া শিশুপ্রহরে সিসিমপুরের অনুষ্ঠানে থাকছে নতুন চমক। টেলিভিশনের জনপ্রিয় শিশুতোষ শিক্ষামূলক এ অনুষ্ঠানের পক্ষ থেকে কোমলমতি সোনামনিদের জন্য মেলা প্রাঙ্গণে ‘নতুন এক ভুবন’ সাজানো হয়েছে। শিশুপ্রহরের এই সময়ে আনন্দের মাত্রা আরেকটু বাড়িয়ে দিতেই এমন উদ্যোগ নিয়েছে সিসিমপুর কর্তৃপক্ষ।

অর্থসূচক/এসএমএস/টি/এমই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ