জিকা ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে ১৮০ কোটি ডলার চায় ওবামার
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » আন্তর্জাতিক

জিকা ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে ১৮০ কোটি ডলার চায় ওবামার

লাতিন আমেরিকা ও যুক্তরাষ্ট্রে দ্রুত ছড়িয়ে পড়া জিকা ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে কংগ্রেসের কাছে ১৮০ কোটি ডলারের জরুরি তহবিল চাইবেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা।

4500

মঙ্গলবার ইন্ডিয়া ডটকমের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদেনে বলা হয়, জিকা ভাইরাসের সঙ্গে মশা নিয়ন্ত্রণ ও টিকা গবেষণা কর্মসূচিতেও এই অর্থ প্রদান করবেন ওবামা প্রশাসন।

এক বিবৃতিতে হোয়াইট হাউস জানিয়েছে, কংগ্রেসের কাছে তহবিল চেয়ে ‘সংক্ষেপে’ অনুরোধপত্র জমা দেবে প্রশাসন। তবে এটি কখন বা কোন সময়ে জমা দেওয়া হবে সে সম্পর্কে কিছুই বলা হয়নি।

বিবৃতিতে বলা হয়, জিকা ভাইরাস নিয়ন্ত্রণে বিভিন্ন কৌশলসমূহে সহায়তা করতে এই অর্থ প্রদান করা হবে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, সম্প্রতি লাতিন আমেরিকার দেশগুলোতে জিকা ভাইরাস দ্রুত ছড়িয়ে পড়ছে।  ধারণা করা হচ্ছে, এতে আক্রান্ত হওয়ায় ছোট মাথা ও মস্তিষ্ক নিয়ে শিশুরা জন্ম গ্রহণ করছে। চিকিৎসা বিজ্ঞানের পরিভাষায়, শিশুদের ছোট মাথা বা ত্রুটিযুক্ত মস্তিষ্ক নিয়ে জন্মানোর সমস্যাটিকে বলা হচ্ছে ‘মাইক্রোসেফালি’।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও), জিকা ভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ার পরিপ্রেক্ষিতে এ মাসের শুরুতেই বিশ্বব্যাপী জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে।

ছোটমাথা নিয়ে জন্মগ্রহণকারী শিশুর সঙ্গে জিকা ভাইরাসের কোনও যোগসূত্র রয়েছে কিনা এ বিষয়টি খতিয়ে দেখছে ব্রাজিল। ইতোমধ্যে এতে সংক্রমিত বেশ কিছু দেশ নারীদের গর্ভধারণ থেকে আপাতত বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, বিশ্বব্যাপী জরুরি অবস্থা ঘোষণার একদিন পরই যুক্তরাষ্ট্রে প্রথমবারের মতো জিকা ভাইরাসের সংক্রমণের ঘটনা ধরা পড়ে। যুক্তরাষ্ট্রের কর্তৃপক্ষের এক বিবৃতিতে বলা হয়,  এই ভাইরাস বহনকারী হচ্ছে মশা।

যুক্তরাষ্ট্রের রোগ নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রগুলো নিশ্চিত করেছে, যুক্তরাষ্ট্রে ৫০ জন ব্যক্তি জিকার প্রাদুর্ভাব রয়েছে এমন অঞ্চল থেকে ফিরে আসার পর তাদের দেহে ভাইরাসটি পাওয়া গেছে।

প্যান আমেরিকান হেলথ অর্গানাইজেশনের সূত্রে জানা গেছে, উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকার ২৬টি দেশে ইতোমধ্যে জিকা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে।

তাই দেশ ও দেশের বাইরে জিকা ভাইরাসের ভয়াবহতা নিয়ন্ত্রণেই এই অর্থ চাইবেন ওবামা প্রশাসন।

উল্লেখ্য, জিকা ডেঙ্গু, জাপানি এনসেফ্যালাইটিস, ইয়োলো ফিভার গোত্রীয় ভাইরাস। এর প্রথম সন্ধান মেলে ১৯৪৭ সালে আফ্রিকার উগান্ডায় জিকা অরণ্যের রিসাস বাঁদরের শরীরে। মানুষের দেহে এটি প্রথম পাওয়া যায় ১৯৬৮ সালে।

জিকা ভয়াবহ আকার ধারণ করে ২০০৭ সালে। ফিলিপিন্সের কাছে ইয়াপ দ্বীপপুঞ্জের চার ভাগের তিন ভাগ গ্রাস করে ফেলে এই ভাইরাস। এরপর ২০১৩ সালে এটির দেখা মেলে তাহিতি দ্বীপ ও পলিনেশিয়ায়।

অর্থসূচক/ডিএইচ

এই বিভাগের আরো সংবাদ