অভ্যন্তরীণ রুটে ৬০%  যাত্রী ইউএস-বাংলার
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » ভ্রমণ

অভ্যন্তরীণ রুটে ৬০%  যাত্রী ইউএস-বাংলার

দেশের অভ্যন্তরীণ বিমান যাত্রীর ৬০ ভাগ এককভাবে পরিবহন করছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স। এছাড়া অভ্যন্তরীণ রুটে বর্তমানে সবচেয়ে বেশি বিমান চালনা করছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স।

চট্টগ্রাম ও সিলেটের ট্রাভেল এজেন্টের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও প্রতিনিধিদের নিয়ে দিনব্যাপী জমকালো কার্নিভালে ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের ব্যবস্থাপনা আবদুল্লাহ আল মামুন। ছবি সংগৃহীত

চট্টগ্রাম ও সিলেটের ট্রাভেল এজেন্টের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও প্রতিনিধিদের নিয়ে দিনব্যাপী জমকালো কার্নিভালে ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের ব্যবস্থাপনা আবদুল্লাহ আল মামুন। ছবি সংগৃহীত

আজ শুক্রবার বিকালে নগরীর ফয়’স লেক সী ওয়ার্ল্ডে বর্ণাঢ্য ‘দি রিকগনিশন কার্নিভালে’ ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবদুল্লাহ আল মামুন এসব তথ্য উপস্থাপন করেন।

চট্টগ্রাম ও সিলেটের ট্রাভেল এজেন্টের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও প্রতিনিধিদের নিয়ে দিনব্যাপী জমকালো কার্নিভালে আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স যাত্রার মাত্র দেড় বছরের মধ্যেই দেশের বেসরকারি এয়ারলাইন্সগুলোর মধ্যে শীর্ষে অবস্থান করছে। চলতি বছরে অভ্যন্তরীণ রুটের ৬০ শতাংশ যাত্রী পরিবহন করেছি আমরা। এর স্বীকৃতিস্বরূপ দেশীয় এয়ারলাইন্সগুলোর মধ্যে আমরা ২০১৫ সালে শ্রেষ্ঠ এয়ারলাইন্সের মর্যাদা পেয়েছি।

তিনি বলেন, বর্তমানে ৯৮ দশমিক ৭ শতাংশ অনটাইম পারফরমেন্স নিয়ে ইউএস-বাংলা বাংলাদেশের একমাত্র স্বীকৃত প্রিমিয়াম এয়ারলাইন্স। আপনাদের সহযোগিতায় ইউএস-বাংলার এ অগ্রযাত্রা। এছাড়া সর্বোচ্চ টিকিট বিক্রিতে বিভিন্ন পুরস্কারের ব্যবস্থা করেছি।

আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, আমরা বিশ্বের সবচেয়ে দামি এয়ারক্রাফট ব্যবহার করি। ইউরোপ, আমেরিকা ও জাপানে এ ধরনের এয়ারক্রাফট ব্যবহার করা হয়। প্রতিবছর প্রকৌশল ও গবেষণা খাতে আমরা ১ কোটি টাকার বেশি খরচ করছি। যাতে আমাদের যাত্রীদের সর্বোচ্চ সেবা দিতে পারি। ইতোমধ্যে আমরা ১০ হাজার ফ্লাইট পরিচালনা করেছি। যা বাংলাদেশের এভিয়েশনের ইতিহাসে সর্বাধিক।

তিনি আরও বলেন, বর্তমানে প্রতিদিন অভ্যন্তরীণ রুটে ২ হাজার ২০০ যাত্রী ইউএস বাংলার সেবা নিচ্ছেন। যাত্রার মাত্র ৬ মাসের মধ্যে জাতীয় পতাকাবাহী বিমান বাংলাদেশকে ক্যাপ্টেন ও কেবিন ক্রু দিয়ে অভ্যন্তরীণ গন্তব্যে ফ্লাইট পরিচালনায় সহযোগিতা করেছে ইউএস-বাংলা। বোয়িং ৭৩৭-৮০০ এয়ারক্রাফট দিয়ে কুয়ালালামপুর, সিঙ্গাপুরসহ বিভিন্ন গন্তব্যে ফ্লাইট পরিচালনার পরিকল্পনা রয়েছে আমাদের। চলতি বছরের মে মাস থেকে কাঠমাণ্ডুসহ বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করবে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স ।

অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন আটাব চট্টগ্রাম অঞ্চলের সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সহসভাপতি মোহাম্মদ আবু জাফর।

দেশীয় বিমান পরিবহন খাতে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সই একমাত্র কোম্পানি যা আইএসও ৯০০১:২০০৮ সার্টিফাইড এয়ারলাইন্স। এছাড়া প্রতিষ্ঠানটি আমেরিকার নিউইয়র্ক সিটির ডিভিশন অব কর্পোরেশন এর একমাত্র তালিকাভুক্ত বাংলাদেশি এয়ারলাইন কোম্পানি। ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্সে রয়েছে ফ্রিকোয়েন্ট ফ্লাইয়ার প্রোগ্রাম ‘স্কাই স্টার’।

প্রসঙ্গত, ‘ফ্লাই ফাস্ট-ফ্লাই সেফ’ স্লোগান নিয়ে ২০১৪ সালের ১৭ জুলাই যাত্রা করা ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স এক বছরের মধ্যেই অর্জন করতে পেরেছে নিজস্ব ব্র্যান্ড পরিচিতি। এছাড়া অভ্যন্তরীণ বিমান পরিবহন সেক্টরে অধিক প্রতিযোগিতার মধ্যেও মার্কেট শেয়ারের অধিকাংশই অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে এয়ারলাইন্সটি। এখন পর্যন্ত প্রায় ১০ হাজার ফ্লাইট পরিচালনা করেছে ইউএস-বাংলা এয়ারলাইন্স, যা অভ্যন্তরীণ রুটে একটি মাইলফলক।

দেবব্রত রায়/অর্থসূচক

এই বিভাগের আরো সংবাদ