খাদ্য সংকটের মুখে জিম্বাবুয়েতে জাতীয় দুর্যোগ ঘোষণা
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » App Home Page

খাদ্য সংকটের মুখে জিম্বাবুয়েতে জাতীয় দুর্যোগ ঘোষণা

জিম্বাবুয়ের গ্রামাঞ্চলে প্রচণ্ড খরার প্রাদুর্ভাব ঘটায় ওইসব এলাকায় খাদ্য সংকট দেখা দিয়েছে। এর কারণে ওইসব অঞ্চলে জাতীয় দুর্যোগ ঘোষণা করেছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবে।

গত বছর থেকে দেশটিতে অস্বাভাবিক হারে কম বৃষ্টিপাত অনুভূত হচ্ছে। ফলে চারণ ভূমিতে খাদ্যের অভাবে হাজার হাজার গবাদি পশুর প্রাণহানি ঘটেছে। ছবি: বিবিসি

গত বছর থেকে দেশটিতে অস্বাভাবিক হারে কম বৃষ্টিপাত হচ্ছে। ফলে চারণ ভূমিতে খাদ্যের অভাবে হাজার হাজার গবাদি পশুর প্রাণহানি ঘটেছে। ছবি: বিবিসি

শুক্রবার বিবিসি এক প্রতিবেদনে বলা হয়, দেশটির প্রায় ২৪ লাখ মানুষ একরকম অনাহারে দিনাতিপাত করছেন। যা জিম্বাবুয়ের গ্রামাঞ্চলের মোট জনসংখ্যার এক তৃতীয়াংশ। এদের জন্য এখন ব্যাপক খাদ্য সহায়তার প্রয়োজন।

দাতা গোষ্ঠীগুলো যাতে জিম্বাবুয়েতে দ্রুত খাদ্য সাহায্য বা ত্রাণ সামগ্রী সরবরাহের উদ্যোগ নেয়-এজন্য মুগাবেকে জাতীয় দুর্যোগ অবস্থা ঘোষণা করার আহ্বান জানান ইউরোপিয় ইউনিয়ন (ইইউ)। সেই প্রেক্ষিতে এ ঘোষণা দিলেন তিনি।

জিম্বাবুয়ানদের কোনো রকম দু:শ্চিন্তা করা থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছে সরকার। সরকারের তরফে বলা হয়েছে, প্রতিবেশি দেশ জাম্বিয়া থেকে ভুট্টা আমদানি করা হচ্ছে।

গত বছর থেকে দেশটিতে অস্বাভাবিক হারে কম বৃষ্টিপাত হচ্ছে। ফলে চারণ ভূমিতে খাদ্যের অভাবে হাজার হাজার গবাদি পশুর প্রাণহানি ঘটেছে।

আন্তর্জাতিক দাতা সংস্থা অক্সফামের জিম্বাবুয়ে পরিচালক জ্যান ভোসেন বলেন, দিনে দিনে এই অবস্থা ভয়াবহ অবস্থা ধারণ করছে।

তিনি বলেন, দেশের কিছু অঞ্চলে আমরা সাধারণ মানুষ, কৃষকদের দেখছি তারা ঘরের চালার ছন তুলে গবাদি পশুদের খাওয়াতে। তার মতে, এর প্রভাবে কৃষি খাতও মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তামাক ও তুলা চাষ।

জাতিসংঘ বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচি বলছে, খরার কারণে আফ্রিকার দক্ষিণাঞ্চলীয় দেশগুলোতে প্রায় ১ কোটি ৪০ লাখ মানুষ ক্ষুধা সমস্যায় ভুগছেন। এল নিনো এতে মারাত্মক প্রভাব ফেলছে।

দক্ষিণ আফ্রিকা, নামিবিয়া এবং বতসোয়ানাও মারাত্মকভাবে খরার আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

ডিএইচ/

এই বিভাগের আরো সংবাদ