সুপার স্পেশালাইজড হচ্ছে শেখ মুজিব মেডিকেল
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » সর্বশেষ

সুপার স্পেশালাইজড হচ্ছে শেখ মুজিব মেডিকেল

স্বল্প মূল্যে সাধারণ জনগণকে উন্নত চিকিৎসা সেবা প্রদানের লক্ষ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) সক্ষমতা আরও বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ লক্ষ্যে ‘বিএসএমএমইউকে সুপার স্পেশালাইজড হসপিটাল’ প্রকল্পের অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)।

আজ মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে একনেক চেয়ারপার্সন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে একনেক সভায় ওই প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়।

বৈঠক শেষে পরিকল্পনামন্ত্রী আ.হ.ম. মুস্তফা কামাল বলেন, আজকের একনেক সভায় ৯টি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নে প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ৪ হাজার ৮৫৮ কোটি ৭৭ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিল থেকে ২ হাজার ৪৭৭ কোটি ৪৯ লাখ টাকা, সংস্থার নিজস্ব তহবিল থেকে ১৭৩ কোটি ৯৩ লাখ এবং বৈদেশিক সহায়তা থেকে ২ হাজার ২০৭ কোটি ৩৫ লাখ টাকা দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, বিএসএমইউ সুপার স্পেশিয়ালাইজড হসপিটাল প্রকল্প বাস্তবায়নে প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ১ হাজার ৩৬৬ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। এর বাস্তবায়ন হলে জনগণের স্বাস্থ্যসেবার আওতা বৃদ্ধি পাবে। মেডিকেল কেয়ার ও ব্যবস্থাপনার আধুনিকায়নের মাধ্যমে সেন্টার বেইজড হেলথ কেয়ার ডেলিভারি সিস্টেম প্রতিষ্ঠা, বিশেষায়িত স্বাস্থ্যসেবা সুবিধা বৃদ্ধি, দেশে জটিল রোগের উন্নত সেবা নিশ্চিত করা, উন্নত প্রশিক্ষণের মাধ্যমে স্বাস্থ্যসেবা খাতের পেশাজীবীদের দক্ষতা বাড়ানো, দেশের সার্বিক স্বাস্থ্যসেবার মান উন্নয়নের লক্ষ্যে ক্লিনিকাল রিসার্চের মাধ্যমে এভিডেন্স বেইজড মেডিসিন চালু এবং কার্যকর রেফারেল লিংকেজ তৈরি করা সম্ভব।

আজকের একনেক সভায় ৯টি প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নে প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েছে ৪ হাজার ৮৫৮ কোটি ৭৭ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি তহবিল থেকে ২ হাজার ৪৭৭ কোটি ৪৯ লাখ টাকা, সংস্থার নিজস্ব তহবিল থেকে ১৭৩ কোটি ৯৩ লাখ এবং বৈদেশিক সহায়তা থেকে ২ হাজার ২০৭ কোটি ৩৫ লাখ টাকা দেওয়া হবে।

পরিকল্পনামন্ত্রী জানান, প্রকল্পের আওতায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ভেতরে ২টি বেজমেন্টসহ ১৩তলা ফাউন্ডেশন বিশিষ্ট একটি হাসপাতাল ভবন নির্মাণ করা হবে। সেইসঙ্গে হাসপাতালের জন্য আধুনিক মেডিকেল যন্ত্রপাতি ও আসবাবপত্র সংগ্রহ করা হবে।

আজকের একনেক সভায় অনুমোদিত অন্য প্রকল্পগুলো হলো- ৬৩৫ কোটি ১০ লাখ টাকা ব্যয়ে টাঙ্গাইলে মেডিকেল কলেজ স্থাপন এবং ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালকে ৫০০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে উন্নীতকরণ; ২৪৯ কোটি ৯৯ লাখ টাকা ব্যয়ে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন প্রকল্প; ৯০৯ কোটি ৩০ লাখ টাকা ব্যয়ে তিতাস গ্যাস ফিল্ডে গ্যাস উদগীরণ নিয়ন্ত্রণ এবং ফিল্ডের মূল্যায়ন ও উন্নয়ন প্রকল্প; ৬১৪ কোটি ৮৪ লাখ টাকা বয়ে গোপালগঞ্জ জেলার গুরুত্বপূর্ণ পল্লী অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প; ২৫৪ কোটি ৪ লাখ টাকা ব্যয়ে জলাশয় সংস্কারের মাধ্যমে মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি প্রকল্প; ৫৭১ কোটি ৭২ লাখ টাকা নগরাঞ্চলের ভবন সুরক্ষা প্রকল্প; ১৪৯ কোটি ৯৬ লাখ টাকা ব্যয়ে জাতীয় স্যানিটেশন প্রকল্প এবং ১০৭ কোটি ৪৮ লাখ টাকা ব্যয়ে ফরিদপুর (বদরপুর) সালথা-সোনাপুর- মুকসুদপুর সড়ক উন্নয়ন প্রকল্প।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব কানিজ ফাতেমা এবং সাধারণ অর্থনীতি বিভাগের সিনিয়র সচিব ড. শামসুল আলম।

অর্থসূচক/এমআই/

এই বিভাগের আরো সংবাদ