এবার প্রশ্নপত্র ফাঁসের সম্ভাবনা নেই: শিক্ষামন্ত্রী
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » লিড নিউজ

এবার প্রশ্নপত্র ফাঁসের সম্ভাবনা নেই: শিক্ষামন্ত্রী

সরকারের গৃহীত পদক্ষেপের ফলে প্রশ্নপত্র আর ফাঁস করা কারও পক্ষে সম্ভব হবে না বলে আশা করছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। সেইসঙ্গে প্রশ্নপত্র ফাঁসের গুজবে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের কান না দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।

আজ সোমবার এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরুর দিনে রাজধানীর তেজগাঁও সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্র পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে এই আশা ব্যক্ত করেন শিক্ষামন্ত্রী।

নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, প্রশ্নপত্র তৈরি ও বিতরণের ক্ষেত্রে বেশ কিছু কৌশল অবলম্বন করা হচ্ছে। এই কৌশলের ফলে কোন প্রশ্নপত্র দিয়ে পরীক্ষা হবে, তা সচিব বা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানের পক্ষেও জানা সম্ভব নয়।

পরীক্ষার উত্তরপত্রে ন্যায্য নম্বর দিতে ফের পরীক্ষকদের নির্দেশ দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী। পরীক্ষকদের উদ্দেশ্যে নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, উত্তরপত্রে ন্যায্য নম্বর দেবেন। বেশি বা কম দেবেন না। কোনো পরীক্ষক বা কর্মকর্তা যদি উত্তরপত্রে বেশি নম্বর দেওয়ার নির্দেশ দিয়ে থাকেন, তবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি জানান, এবার এসএসসি পরীক্ষায় কিছু পরিবর্তন আনা হয়েছে। আগে শিক্ষার্থীদের শুধু সৃজনশীল বা রচনামূলক অংশের উত্তর পরীক্ষার শুরুতে দিতে হতো। তবে এবার থেকে শুরুতেই এমসিকিউ অংশের উত্তর দিতে হবে। এই দুই অংশের পরীক্ষার মধ্যে বিরতি থাকবে ১০ মিনিট। এমসিকিউ অংশের পরীক্ষায় অসৎ পন্থা অবলম্বনের সুযোগ বন্ধ করতে এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। আগামী বছর থেকে এসএসসি পরীক্ষায় এমসিকিউ অংশের নম্বর আরও ১০ কমানো হবে।

নুরুল ইসলাম নাহিদ বলেন, অটিস্টিক, সেরিব্রালপালসি ও ডাউন সিনড্রোম রোগে আক্রান্ত বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী এবারের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। এসব শিক্ষার্থীকে অন্যদের চেয়ে ৩০ মিনিট অতিরিক্ত সময় দেওয়া হয়েছে।

পরীক্ষার কেন্দ্র পরিদর্শনের সময় শিক্ষামন্ত্রীর আরও উপস্থিত ছিলেন শিক্ষাসচিব সোহরাব হোসাইন, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ফাহিমা খাতুন, ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান আবু বক্কর ছিদ্দিক প্রমুখ।

সারাদেশে ৩ হাজার ১৪৩টি কেন্দ্রে আজ সকাল ১০টা থেকে একযোগে এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হয়েছে। এবারের পরীক্ষায় আটটি সাধারণ শিক্ষা বোর্ডসহ ১০টি বোর্ডে নিয়মিত ও অনিয়মিত মিলে মোট পরীক্ষার্থী ১৬ লাখ ৫১ হাজার ৫২৩ জন। ঘোষিত সময়সূচি অনুযায়ী এসএসসির তত্ত্বীয় পরীক্ষা আগামী ৮ মার্চ শেষ হবে। আর ব্যবহারিক পরীক্ষা ৯ মার্চ থেকে শুরু হয়ে ১৪ মার্চ শেষ হবে।

এই বিভাগের আরো সংবাদ