‘ওপেকের জরুরি বৈঠক ধাক্কা দেবে তেল বাজারকে’
today-news
brac-epl
প্রচ্ছদ » লিড নিউজ

‘ওপেকের জরুরি বৈঠক ধাক্কা দেবে তেল বাজারকে’

আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের অব্যাহত দরপতনে উল্টো দিকে হাঁটছে ভেনেজুয়েলার অর্থনীতি। এমতাবস্থায় দ্রুত তেলের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিতে ওপেকভুক্ত দেশগুলো নিয়ে জরুরি বৈঠক ডেকেছে দেশটি।

কিন্তু ইরানের তেলমন্ত্রী বিজ্যান জাঙ্গানি মনে করছেন, আন্তর্জাতিক তেল রপ্তানিকারক দেশগুলোর এ সংগঠন যদি তেলের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত না নিতে পারে। তবে এ জরুরি বৈঠক তেলের বিশ্ব বাজারকে আঘাত করতে পারে। এর ফলে বাজারে আরও নেতিবাচক প্রভাব পড়বে।

ইরানের তেলমন্ত্রী

ইরানের তেলমন্ত্রী

মন্ত্রীর বক্তব্যের বরাত দিয়ে আজ রয়টার্সের এক খবরে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

আন্তর্জাতিক বাজারে সম্প্রতি ব্যারেলপ্রতি ২৭ ডলারেরও নিচে নেমে যায় তেল; যা গত ১৩ বছরে সবচেয়ে কম। এতে চরমভাবে ধসে পড়ছে তেল নির্ভর দেশগুলোর অর্থনীতি। গতকাল শুক্রবার আন্তর্জাতিক বাজারে অপরিশোধিত তেলের দাম গতদিনের চেয়ে বেড়ে ৩৩ ডলারের কাছাকাছি বিক্রি হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, বিশ্ব তেলবাজারের এমন দুর্দশাগ্রস্ত অবস্থায় পণ্যটির দাম ধীরে ধীরে টেনে তুলতে জরুরি বৈঠক ডেকেছে ভেনেজুয়েলা। তবে ইরান ও ওপেকভুক্ত উপসাগরীয় দেশগুলো এ আহ্বানকে প্রত্যখ্যান করেছে।

বিজ্যান জাঙ্গানি বার্তা সংস্থা শানাকে জানান, এ ধরনের বৈঠকে একটি প্রতিষ্ঠানের সিদ্ধান্ত তৈরি হওয়া উচিত। তা না হলে এ বৈঠক বিশ্ব তেল বাজারের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলাবে। তিনি বলেন, পরিবর্তনের ইচ্ছা থাকতে হবে, তবে আমাদের কাছে এ ধরনের কোনো ইংগিত আসেনি।

সম্প্রতি ইরানের উপর থেকে আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করা হয়। এরপরই নিজেদের অর্থনীতিকে মেলে ধরার সুযোগ খুঁজছে দেশটি। ইতোমধ্যে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে, তেলের দরপতনের মধ্যেও তারা তাদের উৎপাদন কমাবে না। আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞায় দেশটির তেল রপ্তানি দিনে ২০ লাখ ব্যারেল কমে যায়। নিষেধাজ্ঞা উঠার পর দেশটি এখন দিনে অতিরিক্ত ৫ লাখ ব্যারেল তেল উত্তোলনের নির্দেশ দিয়েছে।

ওপেকের তথ্য অনুযায়ী, আগামী জুনের আগে সংগঠনটির কোনো বৈঠক কর্মসূচি নেই।

অর্থসূচক/শাহীন

এই বিভাগের আরো সংবাদ